• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৪৮ অপরাহ্ন |

চিলমারীতে বিয়ে রেজিষ্ট্রারী নিয়ে বিপাকে জনসাধারন

kurigramচিলমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলায় থানাহাট ইউনিয়নে দুই কাজী। বিয়ে রেজিষ্ট্রারি নিয়ে বিপাকে পড়েছে জনসাধারন। কার কাছে বিয়ে রেজিষ্ট্রারি করবে কোনটা সঠিক হবে কোনটা হবে না এই নিয়ে র্দুচিন্তায় জনসাধারন। দিন দিন জনসাধারনের ক্ষোভ বাড়ছে। প্রশাসনের কোন ভুমিকা নেই। কতৃপক্ষ বিষয়টি নিয়ে যেন খেলা খেলছে। মামলা খারিজের পর আবারো হাই কোটে রিট।
জানা গেছে, ১৯৮২ সালে প্রাক্তন নিকাহ রেজিষ্টার মূরহুম শাহ আব্দুল ওয়াজেদ অবসরের পর তার পুত্র রাগিব আহসান চিলমারী থানার নিকাহ্ রেজিষ্টার হিসাবে দায়িত্ব পান এবং ২০-১২-১৯৮৯ ইং আইন ও বিচার মন্ত্রাণালয় সহকারী সচিব মোহাম্মদ ইদ্রিস আলম স্মারক নং ৬৯৫-বিচার-৭/২ এন ১২১/৮১ চিঠির মাধ্যমে বি,জি,প্রেশ হইতে কাজী রাগিব আহসানকে প্রয়োজনীয় মালামাল সরবরাহের জন্য জেলা রেজিষ্টারকে অনুমতি প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে সরকারী সিন্ধান্ত মোতাবেক প্রতিটি ইউনিয়নে একজন করে নিকাহ্ রেজিষ্টার রাখার সিন্ধান্ত হলে নিকাহ্ রেজিষ্টার রাগিব আহসান থানাহাট ইউনিয়নের বাসিন্দা হওয়ায় তাহাকে থানাহাট ইউনিয়নের নিকাহ্ রেজিষ্টার হিসাবে বহাল রেখে ১৮-০৫-২০০৪ ইং আইন,বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রাণালয় সিনিয়র সহকারী সচিব এ,এইচ,এম,শামসূল আরেফিন কাজী রাগিব আহসান বরাবর একটি চিঠি প্রেরণ করেন। এর পর থেকে নিকাহ্ রেজিষ্টার রাগিব আহসান নিজ দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন কিন্তুু হঠাৎ করে গত ১৫/০৩/২০১০ইং আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রাণালয় নং-বিচার-৭/২ এন-৫৩/২০০৩ চিঠির মাধ্যমে ৩নং থানাহাট ইউনিয়নের নিকাহ্ রেজিষ্টার শূন্য পদটি পুরনের জন্য প্যানেল প্রস্তুুত করে মন্ত্রণালয়ে প্রেরনের জন্য সাব-রেজিষ্টার চিলমারীকে নিদের্শ দেন। এই বিষয়টি কাজী রাগিব আহসান জানতে পেরে তাকে ৩নং থানাহাট ইউনিয়নে নিকাহ্ রেজিষ্টার হিসাবে বহাল রাখা হয়েছে মর্মে দরখাস্থ সহ প্রয়োজনীয় কাগজ সহ সাব-রেজিষ্টার চিলমারীকে অবহিত করেন। কাজী রাগিব আহসান থানাহাট ইউনিয়নে নিকাহ্ রেজিষ্টার হিসাবে বহাল আছে মর্মে সমস্ত কাগজ পত্র নিয়োগের মুল কপি সাব-রেজিষ্টার চিলমারীকে দেখার পরও অজ্ঞাত কারনে আবার আইন,বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রাণালয় থেকে নং- –বিচার-৭/২ এন -৫৩/২০০৩-৭৫২ চিঠির মাধ্যমে গত ৩১/১০/২০১০ইং তারিখে কাজী রাগিব আহসানকে উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের বাসিন্দা দেখিয়ে উক্ত ইউনিয়নের নিকাহ্ রেজিষ্টার হিসাবে বহাল রেখে তার অধিক্ষেত্রে থাকা ২নং নয়ারহাট ও ৩নং থানাহাট ইউনিয়ন কর্তন করা হয়েছে মর্মে উক্ত দুই ইউনিয়নে নিকাহ্ রেজিষ্টার নিয়োগের নিমিত্তে প্যানেল প্রস্তুুত করার জন্য সাব-রেজিষ্টার চিলামারীকে নির্দেশ দেন। এরই পেক্ষিতে উপজেলায় একটি প্যানেল তৈরি করে উপজেলা নিবার্হী অফিসার স্বাক্ষরিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে মাওঃ মোঃ কাজী গোলাম মোস্তফাকে নিয়োগ প্রদান করে কতৃপক্ষ।
এব্যাপারে কাজী গোলাম মোস্তফার সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে থানাহাট ইউনিয়নে নিকাহ রেজিষ্টার নিয়োগ দেওয়া হবে তা জানতে পেরে আমি আবেদন করেছিলাম এছাড়াও আর দুই জন আবেদন কারী ছিল পরে যাচাই বাচাইয়ের মাধ্যমে আমাকে নিয়োগ দেওয়া হয়। কাজী রাগিব আহ্সান জানান আমি থানাহাট ইউনিয়নের স্থায়ী বাসিন্দা হওয়ায় আমাকে ইতি পূর্বে থানাহাট ইউনিয়নে নেকাহ্ রেজিষ্টার হিসাবে বহাল রাখা স্বর্তেও কি কারনে আবার ওই একই ইউনিয়নে নেকাহ্ রেজিষ্টার নিয়োগ দেয়া হল আমি তা বুঝতে পাড়তেছি না। আমি এবারে হাই কোর্টে আপিল করেছিলাম হাই কোর্ট থেকে গোলাম মোস্তফাকে বিবাহ্ সক্রান্ত কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন। পরে উপজেলা নিবার্হী অফিসার মোঃ তবিবুর রহমানের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ