• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১২:১৯ পূর্বাহ্ন |

কিশোরগঞ্জে নারিশ প্লোট্রি এন্ড হ্যাচারীর বর্জের দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

Kishorgonj,Nilphamari (1)বিপিএম জয়, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী): নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার দক্ষিন সিঙ্গেরগাড়ী চওড়া পাড়ায় নারিশ প্লোট্রি এন্ড হ্যাচারীর পচাঁ বর্জের দুর্গন্ধে ওই গ্রামের ৪’শ পরিবারের একহাজার ৬’শ মানুষের বসবাস করা দুষ্কর হয়ে পড়েছে। ফলে ওইসব পরিবারের সদস্যদের অরুচি বমি বমি ভাব পাতলা পায়খানা সহ নানা রোগবিধি লেগেই আছে। গ্রামবাসী নারিশ কোম্পানির রংপুর অফিসে অভিযোগ দিয়েও কোন প্রতিকার পায়নি।
গতকাল রোববার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,৬ একর জমির চারদিকে ৫ থেকে ৭ ফিট উচুঁ করে প্রাচীর দিয়ে ঘিরে প্লোট্রি এবং হ্যাচারীর পচাঁ ডিম মরা মুরগী ও মুরগীর বিষ্টা ফেলা হচ্ছে। এসব বর্জের পচাঁ দুর্গন্ধে নিশ্বাস নেয়া মুশকিল। নিশ্বাস নিলেই বমি এসে যায়। ওই গ্রামের ৯নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার মনছুর আলী অভিযোগ করে বলেন,নারিশ প্লোট্রি এবং হ্যাচারীর ফেলা বর্জে গ্রামের ১’হাজার ৬’শ মানুষ টিকতে পারছে না। মানুষের সবসময় রোগবিধি লেগেই আছে। বিশেষ করে ছোট ছোট শিশুরা বর্জের গন্ধে এ্যাটাক হচ্ছে বেশী।
গ্রামের আফজাল হোসেন,রেয়াজ মাষ্টার,আজিজুল,জেয়ারুল,ওমর আলী,আমেনাল,মাসুদসহ প্রায় শতাধিক লোকজন বর্জের পচাঁ দুর্গন্ধের হাাত থেকে অতিসত্তর রেহাই পেতে চান। তা না হলে গ্রাম ছেড়ে চলে যেতে হবে।
রেয়াজ মাষ্টার বলেন, সন্ধ্যায় ছেলে-মেয়েরা পচাঁ দুর্গন্ধের কারণে লেখাপড়া করতে পারছে না।
আজিজুল ইসলাম জানান, এব্যাপারে আমরা থানায় অভিযোগ করেছিলাম। ওসি সাহেব এখানে এসে অতি তাড়াতাড়ি ব্যবস্থা নিতে বলেছে। কিন্তু নারিশ কর্তৃপক্ষ এতে কর্ণপাত করেনি ।
কিশোরগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজার রহমাান জানান, এলাকাবাসীর অভিযোগ পেয়ে আমি সেখানে গিয়েছিলাম। মানুষ মরে পচেঁ গেলে যেমন গন্ধ হয় এরকম উৎকট গন্ধ। আমি ৩০ সেকেন্ড সেখানে থাকতে পারিনি। অতি সত্তর ব্যবস্থা নিতে বলেছি নারিশ কর্তৃপক্ষকে।
নারিশ প্লোট্রি এন্ড হ্যাচারির জুনিয়র এজিএম লিমন মিয়ার সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি সিসি নিউজকে বলেন, বর্জ ফেলার ২টি সিফটি রয়েছে। সেখানে বর্জ ফেলা হয়। এছাড়া সিফটি ট্যাংকে গন্ধ নাশক মেডিসিন স্প্রে করা হয়। গন্ধ হওয়ার প্রশ্ন আসে না। তার পরেও গন্ধ হলে বিষয়টি দেখতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ