• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৩:২৫ অপরাহ্ন |

চাঁদপুরের হাজিগঞ্জে সিএনজি অটো রিক্সা থেকে বেপরোয়া চাঁদাবাজি

Chadpurচাঁদপুর প্রতিনিধি: চাঁদপুর জেলাধীন হাজিগঞ্জ বাজার এলাকায় অবৈধভাবে রাস্তার উপর ১১টি সিএনজি স্ট্রান্ড বসিয়ে এবং ৩টি সমিতির নামে চালকদের কাছ থেকে চলছে বেপোরোয়া চাঁদাবাজির বানিজ্য। পেশিশক্তি প্রয়োগ করে অসহায় সিএনজি চালকদের কাছ থেকে প্রতিদিন প্রায় লক্ষাধীক টাকা হাতিয়ে নিয়ে নিজের মধ্যে ভাগবাটোয়া করে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার ছুটির দিনেও গিয়ে দেখা যায়, আধা কিলোমিটার এলাকায় বেপোরোয়াভাবে মালিক সমিতি, প্রাতবন্ধি কল্যান সংস্থা, ১১টি স্ট্রান্ডে জিপিসহ নামে বেনামে চাঁদা উত্তেলনের মহোৎসব চলছে। আর এই চক্রটির কাছে আসহায়ত্ব বরণ করে দিশেহারা হয়ে পরেছে সাধারণ সিএনজি আটো রিক্সা চালকরা। এর কাজের সাথে যারা জরিত তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে নিজেরা সিএনজির মালিক না হয়েও পেশি শক্তির বলে সরকার দলের নাম ভাঙ্গিয়ে মালিক সমিতি ও প্রতিবন্ধি কল্যান সংস্থার নেতা দাবি করে রাম রাজত্ব কায়েম করে যাচ্ছে। সিএনজি চালক সুক্কুর আলম, শাহবুদ্দিন, জাহাঙ্গির, জাহর, বাবু, কবির, পারভেছ, ফারুক, সোহেল, ইসহাক, রাজন ও কঞ্চনসহ বেশ কয়েকজন অভিযোগ করে বলেন, প্রতিদিন ১জন সিএনজি চালক শুধু মাত্র হাজিগঞ্জে পৌরসভার চাঁদাসহ আরো প্রায় ৩টি সমিতি ও ১১টি স্ট্রান্ডে জিপিসহ নামে বেনামে কয়েকটি সংস্থাকে প্রতিদিন গাড়ি প্রতি ৮০ থেকে ৯০ টাকা দিতে হচ্ছে। হাজিগঞ্জে প্রায় ১৮শ সিএনজি থেকে ঐ চক্রটি প্রায় লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। সিএনজি মালিক সমিতির নামে নতুন করে ১০ টাকা, প্রতিবন্ধি কল্যান সংস্থার নামে ২০টাকা, পৌরসভার ইজারাদারের মাধ্যমে ১০টাকা, প্রতি স্ট্রান্ডে ৩০ থেকে ৪০ টাকা দিতে হয়। এছাড়াও লাইনের লোক ও স্থানিয় চাঁদাবাজদের চাঁদা তো রয়েছেই। সিএনজি মালিক সমিতির নামে হাজিগঞ্জে যে সমিতি রয়েছে তারা মালিকদের কাছ থেকে চাঁদা না নিয়ে সে চাঁদার টাকা অন্যায়ভাবে চালকদের কাধেঁ চাপিয়ে দিচ্ছে। আর এতোসব চাঁদা দিতে গিয়ে দিশেহারা হয়ে পরেছে সাধারণ সিএনজি অটো রিক্সা চালকরা।

একটি সূত্র জনায়, হাজিগঞ্জে মালিক সমিতির ( রেঃ জিঃ নং-চট্রঃ ১৮৭৮) নামে রিসিটের মাধ্যমে সিএনজি চালকের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে তার সবটাই মালিক সমিতির সভাপতি সোহাগ আহমেদস মাইনু ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিরজুর রহমান সুজুনসহ সমিতির অল্প কিছু লোক নিজেদের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা করে নেয়। শাহারা¯ী’ অটো টেম্পু, অটো রিক্সা ও সিএনজি মালিক সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর বাসার সুমন নিজেরা জেলা কমিটি দাবি করে হাজিগঞ্জে এই অবৈধভাবে কিছু রাজনৈতিক দলের নেতাদের সমন্বয়ে এই সমিতির অনুমোধন দিয়েছেন। হাজিগঞ্জের মালিক সমিতির নামধারী নেতারা নিজেদের লোকের মাধ্যমে প্রতিদিন প্রায় আঠারো শ’ সিএনজি অটো রিক্সার কাছ থেকে ১০টাকা করে ১৮ হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। তেমনি দীর্ঘ পাঁচ বছর যাবত প্রতিবন্ধি কল্যান সংস্থার নামে সংস্থার সভাপতি মহিবুর রহমান খোকন এবং সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসনাত জুয়েল তাদের লোকজন দিয়ে সিএনজি প্রতি দিনে ২০টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছে। প্রতি মাসে ঐ সংস্থাটি প্রায় ১০ লক্ষ টাকার উর্দ্ধে হাতিয়ে নিয়েছে। পাঁচ বছরে এভাবেই কল্যান সংস্থার নেতারা সাধারণ সিএনজি চালকদের কাছ থেকে চাঁদা নিয়ে নিজেদের পকেট ভারি করেছে। শুধু মাত্র বৈধভাবে পৌরসভার ইজারাদাররা চালকদের কাছ থেকে চাঁদা নিচ্ছে। সূত্রটি আরো জনায়, হাজিগঞ্জের প্রভাবশালি নেতারা ও উৎশৃংখল যুবকরা নিজের প্রভাব খটিয়ে এবং পেশি শক্তি প্রয়োগ করে হাজিগঞ্জ এলাকার মাত্র আধা কিলোমিটার সড়কে অবৈধভাবে ১১টি স্ট্রান্ড বসিয়ে সিএনজি প্রতি ৩০টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছে। ঐ এলাকার পূবালী ব্যাং চক্তর, আমিন রোড়, ষ্টেশন রোড়, মাছ বাজার, বিশ্ব রোড়ে ৩নটি, গাউছিয়া হাইওয়ে হোটেলের সামনে ৩টি, পপুলার হাসপাতালের সামনে স্ট্রান্ড বসিয়ে প্রতিদিন লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এসব অবৈধ স্ট্রান্ড থাকার কারনে হাজিগঞ্জে দিন দিন যানজটের মাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। সংস্লিষ্ট প্রশাসন এদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনিয় ব্যাবস্থা গ্রহন করলেই অসহায় সিএনজি চালকরা হয়রানি থেকে রক্ষা পাবে এবং জানজটের মাত্রা কমে যাবে। পাশাপাশি সরকারের কোষাগারে জমা হবে বিপুল আংকের টাকা। এ ব্যাপারে হাজিগঞ্জ সিএনজি অটো রিক্সা মালিক সমিতর সভাপতি সোহাগ আহম্মেদ মাইনু সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, সিএনজি মালিকদের উন্নয়নে ও ক্ষতিপূরণের জন্যই এই মালিক সমিতি করা হয়েছে। আর এই কারনে চাঁদা তোলা হচ্ছে। হাজিগঞ্জ সিএনজি অটো রিক্সা মালিক সমিতিটি মাত্র কদিন পূর্বেই অনুমোদন পেয়েছি। অন্যান্য সমিতিরা দীর্ঘদিন যাবত চাঁদা আদায় করেছে। এভাবেই ক্ষমতার প্রভাব ও পেশি শক্তি প্রয়োগ করে রাজনৈতিক দলের নেতাদের নাম ভাঙ্গিয়ে হাজিগঞ্জে সড়কে চাঁদাবাজদের রামরাজত্ব চালিয়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে হাজীগঞ্জ থানার ওসি শাহআলম জানায়, যারা অবৈধ ভাবে সিএনজি স্কুটার থেকে চাঁদা আদায় করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে। কিছু রাজনৈতিক দলের নেতা কর্মীরা ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে এসব কাজ করছে। তবে উর্ধতন কতৃপক্ষ ও স্থানিয় সচেতন ব্যক্তিরা যদি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় তহলে হাজীগঞ্জের অবৈধ ষ্টেন্ড ও যারা চাঁদা আদায় করছে তাদেরকে প্রতিহত করা সম্ভব হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ