• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৫১ অপরাহ্ন |

তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন: লাঙ্গলবন্দে গুজবে প্রাণহানি

লাঙ্গলবন্দসিসি নিউজ: নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার লাঙ্গলবন্দে মহাষ্টমী স্নানের দিন পদদলিত হয়ে ১০ জনের প্রাণহানির ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটি তাদের প্রতিবেদন দাখিল করেছে।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বেইলি ব্রিজ ভেঙে পড়ার গুজব ও রাজঘাটমুখী পুণ্যার্থীদের অতিরিক্ত চাপের কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। প্রতিবেদনে কমিটি ১৫টি সুপারিশ করেছে।
আজ সোমবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক আনিছুর রহমান মিঞার কাছে তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক ইশরাত হোসেন খানের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি এই প্রতিবেদন জমা দেয়।
দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২৬ মার্চ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত তিন দিন সরকারি ছুটি ছিল। এ কারণে এ বছর লাঙ্গলবন্দে পুণ্যার্থীদের সংখ্যা অন্য বছরের তুলনায় বেশি ছিল। এ ছাড়া পুণ্যস্নান লগ্নের সময় কম বা সংক্ষিপ্ত থাকায় এবং অন্য স্নানঘাটগুলোর তুলনায় রাজঘাটকে পুণ্যার্থীরা স্নানের জন্য বেশি গুরুত্ব দেওয়ায় এ ঘাটে পুণ্যার্থীদের আগমন বেশি ঘটে। ‘রাজঘাট বেইলি সেতুটি ভেঙে যাচ্ছে’ এ ধরনের একটি গুজবে পুণ্যার্থীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। এ সময় মানুষের ছোটাছুটিতে শারীরিকভাবে অপেক্ষাকৃত দুর্বল এবং নারী পুণ্যার্থী পদদলিত হয়ে মারা যান।
তদন্ত কমিটির প্রধান জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক ইশরাত হোসেন খান বলেন, ‘আজ জেলা প্রশাসকের কাছে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়েছে। আমরা দুর্ঘটনার কারণ নির্ধারণ ছাড়াও এ ধরনের ঘটনা পুনরাবৃত্তি রোধে সুপারিশ করেছি।’
জেলা প্রশাসক মো. আনিছুর রহমান রহমান মিঞা সাংবাদিকদের বলেন, প্রতিবেদনে দুর্ঘটনার কারণ শনাক্ত করে এ ধরনের ঘটনা পুনরাবৃত্তি রোধে সুপারিশ করা হয়েছে। লাঙ্গলবন্দে অবৈধ স্থাপনার পাশাপাশি বৈধ স্থাপনাও অনেক ক্ষেত্রে সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এগুলো অধিগ্রহণের প্রয়োজন। আমরা বিষয়গুলো সরকারের উচ্চ পর্যায়কে অবহিত করব।
গত ২৭ মার্চ লাঙ্গলবন্দে সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মহাষ্টমী স্নান উৎসবে পদদলিত হয়ে ১০ জন পুণ্যার্থীর প্রাণহানি ঘটে। এ ঘটনায় আহত হন ২০ পুণ্যার্থী। ঘটনা তদন্তের জেলা প্রশাসন ইশরাত হোসেন খানকে আহ্বায়ক করে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে। কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ