• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৪২ অপরাহ্ন |

দিনাজপুরে ১৮ কোটি টাকা টেন্ডারবাজি ঘটনায় প্রতিবাদের ঝড়

Dinajpur-Tendarbajyte Protibader Jhor-06-04-2015সিসি ডেস্ক: দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক ভবন নির্মাণ প্রকল্পের ১৮ কোটি টাকা টেন্ডারবাজি ঘটনায় প্রতিবাদের ঝড় বইছে। সর্বত্র চলছে তোলপাড়। এ নিয়ে সোমবার সংবাদ সম্মেলন করেছে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও বঞ্চিত ঠিকাদারেরা। তারা এ টেন্ডার বাতিলের দাবী জানিয়েছে। নিয়ম-নীতি বহির্ভূত এ টেন্ডার বাতিল করে পূর্ণরায় টেন্ডারের আহবান জানিয়ে বঞ্চিত ঠিকাদারেরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে উকিল নোটিশ দিয়েছে। থানায় জিডিও করা হয়েছে। এছাড়াও দরপত্রটি বাতিল করে পুনঃরায় দরপত্র আহবানের জন্য প্রধানমন্ত্রী, জাতীয় সংসদের হুইপ, শিক্ষা সচিব ও হাবিপ্রবিপ্রবি ভিসিসহ সংশ্লিষ্টদের লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন বঞ্চিত ঠিকাদারেরা। অন্যদিকে এই ১৮ কোটি টাকার টেন্ডারবাজি ঘটনায় খোদ সরকার দলীয় দু’টি গ্রুপের মধ্যে চলছে চরম উত্তেজনা। এ নিয়ে যে কোন মূহৃর্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা করছে অনেকেই। এ ব্যাপারে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় জিডিও করেছে বঞ্চিত ঠিকাদারেরা।
এ টেন্ডার বাতিল করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়ে সোমবার দুপুরে মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্রীয় কাউন্সিরের সহ-সম্পাদক বিশিষ্ট ঠিকাদার নূরুল ইসলাম দিনাজপুর প্রেসক্লাব ভবনে এক সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এ সময় জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের জেলা কমান্ডার সিদ্দিক গজনবী, ডেপুটি কমান্ডার সাইদুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা এ. এম মহিউদ্দিন, সদর মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হাকিম, মুক্তিযোদ্ধা দারাজউল্লাহ্, মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল ইসলাম ঝুনু, মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমানসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে রোববার এ নিয়ে প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন বিশিষ্ট ঠিকাদার নাজির হোসেন নাজু। তিনি সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জানান, আমি ইতিপূর্বে দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়াজেদ ভবন, ছাত্রী হোস্টেল, স্টাফ কোয়ার্টার, লাইব্রেরী ভবনসহ অনেক স্থাপনার কাজ বিশ্বতার সাথে সম্পন্ন করেছি। এখনও আমার অনেক কাজ চলছে এ প্রতিষ্ঠানে। প্রতিষ্ঠানের দরপত্র বিজ্ঞপ্তি-৫ এর ছাত্র আবাসিক ভবন নির্মাণ ১৮ কোটি টাকার প্রকল্পে আমিও অন্যান্য ৩০ জন ঠিকাদেরর মতো দরপত্র ক্রয় করি। কিন্তু দরপত্র দাখিলের নির্দিষ্ট দিন ৩১ মার্চ মঙ্গলবার দরপত্র দাখিল করতে গেলে সন্ত্রাসীরা আমাকে বাধা দেয়। অনেককে আটকিয়ে রাখে। জীবন নাশের হুমকি দেয়। ফলে দরপত্র দাখিল করতে ব্যর্থ হই আমরা। এব্যাপারে আমি বৃহস্পতিবার দিনাজপুর কেতোয়ালি থানায় আমি সাধারণ ডায়েরি করেছি । এছাড়াও আমি সহ অন্যান্য ঠিকাদাররা দরপত্রটি বাতিল করে পুনরায় দরপত্র আহবানের জন্য প্রধানমন্ত্রী, জাতীয় সংসদের হুইপ, শিক্ষা সচিব ও হাবিপ্রবিপ্রবি ভিসিসহ সংশ্লিষ্টদের লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন। তারা জানিয়েছেন, দরপত্রে অংশগ্রহণের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে ৩১টি দরপত্র ক্রয় করেন ঠিকাদাররা। দরপত্র ফেলার নির্দিষ্ট সময় ছিল মঙ্গলবার দুপুর ১২টা ৪৫ মিনিট। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয়সহ জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে টেন্ডারবাক্স রক্ষিত ছিল।ঠিকাদাররা দরপত্র ফেলার জন্য সরাসরি বিশ্ববিদ্যালয়ে গেলে সরকারী দলের সন্ত্রাসীরা তাদের বাধা দেন। এসময় ঠিকাদারদের প্রাণনাশের হুমকি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের তাড়িয়ে দেয়া হয়। ওই একইভাবে জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে দরপত্র বাক্সে দরপত্র ফেলতে গেলে সন্ত্রাসীরা বাধা দেয়। তবে সরকারদলীয় সমর্থকদের পক্ষ থেকে একটি টেন্ডার ফেলা হয়েছে।
তিনি জানান, প্রতিযোগিতামূলক ভাবে দরপত্র ফেলা হলে সরকারের প্রায় ১ কোটি টাকা রাজস্ব সাশ্রয় হতো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ