• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৩৭ অপরাহ্ন |

স্বামীর পরকীয়ায় বাঁধা দেয়ায়……

111(1)চাঁদপুর প্রতিনিধি: চাঁদপুর শহরের স্ট্র্যান্ড রোডে দুই সন্তানের জনক মুদি ব্যাবসায়ী কামরুজ্জামান কিরণ পরকীয়া প্রেমে মগ্ন হওয়ায় এর প্রতিবাদ করায় স্ত্রীকে শাররিক নির্যাতন করে গুরুতর আহত করেছে। আহত স্ত্রী বর্তমানে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে জীবন-মৃত্যুর সন্দিহানে রয়েছে। দীর্ঘ কয়েকদিন যাবত নির্যতিত স্ত্রী রুবি হাসপাতালে বেডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভর্তি রয়েছে। আঘাতের ক্ষতস্থান রক্ত সঞ্চালন না হওয়ার চিকিৎসক তার শরিরে দু’ বার অপারেশন করায় সে বর্তমানে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। এই ঘটনায় স্বামী কামরুামান কিরনের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের মামলা প্রস্তুতি চলছে বলে জানা যায়। ঘটনার বিবরনে জানা যায়, স্ট্র্যান্ড রোডে হিরা পাঁচ তারা ভবনের মালিক মৃত নুরুজ্জামান খনের ছেলে কামরুজ্জামান কিরনের সাথে ২০০০ সালের নভেম্বরের ২৪ তারিখে মমিন পাড়ার মৃত আঃ ছাত্তারের মেয়ে রুপমাজাহান রুবির পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। সাংসারিক জীবনে তাদের পরিবারে রিজোয়ান আহম্মেদ খান রামিম (৯) ও রিফাত আহম্মেদ খান শ্রাবন (৫) নামে দুটি পুত্র সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকেই স্বামী কামরুজ্জামান কিরণ স্ত্রীকে যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন চালাতো। এছাড়া সে তার দোকানে আসা বিভিন্ন মেয়েদের সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রেমের ফাঁদে ফেলে শারিরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। এ ব্যপারে তার স্ত্রী তাকে প্রথমে বুঝিয়ে এই পথ থেকে ফিরে আসার অনুরোধ করে। কিন্তু তার স্ত্রীর প্রথম সন্তান গর্ভে থাকা আবস্থায় অজ্ঞাত মহিলাদের সাথে মোবাইলে কথা বলার সময় প্রতিবাদ করলে তাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। তারপর বেবি নামের এক নারীর সাথে পরকিয়া প্রেমে জরিয়ে পরে। এ নিয়ে বেশ কয়েকবার শালিশি বৈঠকেও তার সমাধান হয়নি। একের এক মহিলাদের সাথে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে স্ত্রীকে নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। কামরুজ্জামান কিরনের সাথে ৫নং খেয়া ঘাট এলাকার আরেক মহিলার সাথে অবৈধ সম্পর্কের কথা এলাকাবাসী জানতে পেরে তার পরিবারকে জানায়, এ নিয়ে সংসারে বাকবিতন্ডর সৃষ্টি হয়। হাজী মহসিন রোড়ের এক ব্যাবসায়ী কনফেকশনারির মালিকের দ্বিতীয় স্ত্রীর সাথে পরাকিয়ার সম্পর্ক গড়ে তুলে কিরন।

এই ঘটনা জানতে পেরে তার স্ত্রী রুবি তার শাশুরী ও ছোট দেবর কামরুল হাসান কাকনকে জানিয়ে প্রতিবাদ করলে তারা কিরনের পক্ষ নিয়ে রুবিকে পিটিয়ে আহত করে। তার পরেও রুবি দুই সন্তানের কথা ভেবে স্বামীর নির্যাতন নিরবে সয্য করে আসছিলো। ডিসেম্বরের ২৮ তারিখ সকালে বড় ছেলে স্কুলে যাবার সময় ১০০টাকা চাওয়ার কারনে কিরন ক্ষিপ্ত হয়ে স্ত্রী রুবিকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে ঘর থেকে বের করে দেয়। রুবির ডায়বেটিস থাকায় তার ক্ষতস্থানে রক্ত জমাট বেধেঁ রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে দ্বীরে দ্বীরে অসুস্ত হয়ে পরে। তার পরেও স্বামীর প্রতিনিহত তার উপর নির্যাতন চালিয়ে যায়। তার শরীল মারাক্তক অসুস্থ হওয়ায়, স্বামী তার চিকিৎসা না করার কারনে রুবির মা ও ভাই তাকে প্রথমে চাঁদপুর সরকারী জেনারেল হাসপালে ভর্তি করায়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য পিমিয়ার হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। হসপাতালে কতব্যরত ডা. তার ক্ষতস্থানে রক্ত চলাচলের জন্য পরপর দুবার অপারেশন করায়। পরে আহত রুবিকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে সে বর্তমানে জীবন -মৃত্যুর সন্দিহানে রয়েছে । এদিকে তার স্বামী স্ত্রীকে রুমানাজাহান রুবিকে তালাক দিয়ে অন্য মেয়েকে বিয়ে করার সমস্থ পরিকল্পনা চালিয়ে যাচ্ছে বলে রুবির পরিবার জানায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ