• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২২ পূর্বাহ্ন |

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি এলাকায় জমি অধিগ্রহণে সরকার আইনী ব্যবস্থা !

Boropukuria Coal khoniমোঃ আফজাল হোসেন, ফুলবাড়ী: দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি এলাকার জমি অধিগ্রহণের জন্য এলাকাবাসী উপর প্রয়োজনে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করে জমি অধিগ্রহণ করবে সরকার। ইতিমধ্যে সরকার উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। কয়লা খনি এলাকায় বিপর্যয় এড়াতে সরকার কঠোর হচ্ছে বলে জানিয়েছে জ্বালানি বিভাগ। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে দিনাজপুর জেলা প্রশাসককে চিঠি দিয়েছে জ্বালানি ও খনি সম্পদ মন্ত্রণালয়।
এ ব্যাপারে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক আহমেদ শামীম আল রাজি জানিয়েছেন, দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি এলাকার নিরাপত্তা ও জনগণের জানমালের রক্ষার্থে সরকার স্থানীয় জনগণকে পুর্নবাসনের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ জন্য সংশ্লিষ্টদের ক্ষতিপূরণ দেয়া হচ্ছে। এর পর বার বার তাদেরকে অধিগ্রহণকৃত জায়গা থেকে সরে যেতে বলা হয়েছে। আবারও বলা হবে তাদেরকে। যদি এতে স্থানীয় ক্ষতিপূরণ নেয়া এলাকাবাসী সরে না যায় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে এলাকাটি দখলমুক্ত করে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি কর্তৃপক্ষকে (বিসিএমসিএল) বুঝিয়ে দেয়া হবে। জ্বালানি বিভাগের সহকারী সচিব সফিকুর রহমান স্বাক্ষরিত চিঠিটি গত ২৫ মার্চ দিনাজপুর জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠানো হয়। এতে বলা হয়, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির অধিগ্রহণকৃত ৬২২ একর জমিতে কিছু সংখ্যক লোক অবৈধভাবে বসবাস করছে এবং অধিগ্রহণকৃত জমিগুলো দখল করে চাষাবাদ করছে। ফলে এলাকায় জমি দেবে জাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ ভূগর্ভ থেকে কয়লা তোলার কারণে ঐ এলাকা এখন পুরোপুরি ঝুকির মধ্যে রয়েছে। বার বার উদ্যোগ নেয়ার পরেও বসবাসকারীরা এলাকা থেকে সরে যায়নি। চিঠিতে ঐ এলাকা দখলমুক্ত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছে। উল্লেখ্য যে, বড়পুকুরিয়া থেকে কয়লা উত্তোলনের ফলে বেশ কিছু এলাকায় অনেক বাড়ী ঘর, কৃষি জমি দেবে গেছে। আবারও দেবে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। স্থানীয়রা এর ক্ষতিপূরণ ও পুর্নবাসনের দাবীতে আন্দোলন শুরু করলে ২০০৯ সালে স্থানীয় জনগণের সাথে খনি কর্তৃপক্ষের সমঝোতা চুক্তি হয়। এর পর সরকার ২০১০ সালের নভেম্বরে ১৯১ কোটি টাকা বরাদ্দ দেন। যাতে ১৩০০ পরিবারকে ঐ এলাকা থেকে সরিয়ে অন্যত্র স্থানে পুর্নবাসনের মাধ্যমে ৬২২ একর জমি অধিগ্রহণ করা যায়। কিন্তু কয়লা খনি এলাকার পূর্ব উত্তর ও দক্ষিণ অঞ্চলের স্থানীয়দের অভিযোগ সরকার এখনও সব পরিবারকে ক্ষতিপূরণের টাকা হস্তান্তর করেনি। তাই স্থানীয়রা তাদের জমি থেকে সরে যায়নি। এই প্রসঙ্গে খনি এলাকার জনগণের স্বার্থরক্ষাকারী সংগঠন জীবন ও সম্পদ রক্ষা কমিটির সভাপতি ইব্রাহীম খলিল বলেন, ৫০ কোটি টাকা বিলি করা বাকী রয়েছে। এছাড়া ৩১০টি ভূমিহীন পরিবারকে পুর্নবাসনের ব্যবস্থা করেননি সরকার। তাই স্থানীয় জনগণ তাদের ভূমি থেকে সরে যায়নি। তাদের পাওনা বুঝে না পেলে তারা এলাকা ত্যাগ করবে না। দেশের উত্তরাঞ্চলের ৫টি কয়লা খনি আবিস্কৃত হয়েছে। উত্তোলনের অপেক্ষায় রয়েছে। এই খনি ৫টি হচ্ছে বড়পুকুরিয়া, জামালগঞ্জ, খালাশপীর, ফুলবাড়ী ও দিঘীপাড়া। বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে ৩৯০ মিলিয়ন মেট্রিক টন, ফুলবাড়ীতে ৫৭২ মিলিয়ন মেট্রিক টন, খালাশপীরে ৬৮৫ মিলিয়ন মেট্রিক টন, জামালগঞ্জে ১০৫৩ মেট্রিক টন এবং দিঘীপাড়ায় ৬০০ মিলিয়ন মেট্রিক টন কয়লা মজুদ রয়েছে। এর মধ্যে দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির কয়লা তোলা শুরু হয় ২০০৫ সাল থেকে। বানিজ্যিক ভিত্তিতে এবং খনির ভূগর্ভ থেকে আন্ডারগ্রাউন্ড পদ্ধতিতে এই কয়লা উত্তোলন করা হচ্ছে। প্রতিদিন ২ থেকে ৩ হাজার মেট্রিক টন কয়লা উত্তোলন হচ্ছে। আর পার্শ্ববর্তী কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে কয়লা সরবরাহ করে ২৫০ মেগ ওয়ার্ট কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি চালু করা হয়েছে। বর্তমান কয়লা খনি এলাকার ক্ষতিগ্রস্থদের কাগজপত্রে এবং পারিবারিক জটিলতার কারণে গচ্ছিত টাকা উত্তোলন করতে পারছে না বলে অনেকে জানান। একটি কু-চক্রী মহল এলাকার কিছু সংখ্যক লোকজনকে আন্দোলন করার জন্য মাঠে নামার সহযোগিতা করছেন। বিষয়টি দ্রুত নিষ্পত্তি করা না হলে আবারও এলাকায় আন্দোলনের দানা বেধে উঠতে পারে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ