• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০২:৩১ অপরাহ্ন |
/ Uncategorized

গুজরাটে কনের অভাব বিয়ে হচ্ছেনা যুবকদের !

Biaআন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তার জন্মস্থান গুজরাটে ‘চিরকুমার’ হিসেবেই সবচেয়ে বেশি পরিচিত। কিন্তু আদমশুমারির তথ্যমতে, শুধু মোদিই নন, গুজরাটের ৩০ থেকে ৪০ বছর বয়সের প্রায় ৬ লাখ ২৯ হাজার যুবক এখনো অবিবাহিত। মজার ব্যাপার হলো, ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও এই যুবকরা বিয়ের পিঁড়িতে বসতে পাচ্ছেন না শুধু কনের অভাবে।
বুধবার ভারতের জনপ্রিয় ইংরেজি সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার বিশেষ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
খবরে বলা হয়, গুজরাটে লিঙ্গ অনুপাতের একটি পরিসংখ্যানে দেখানো হয়েছে, প্রদেশটিতে প্রতি ৯১৯ জন নারীর বিপরীতে পুরুষের সংখ্যা ১ হাজার জন এবং ০ থেকে ৬ বছর বয়সের শিশুদের মধ্যে ৮৮৬ জন মেয়ে আর ১ হাজার জন ছেলেশিশু। প্রদেশটিতে নারী-পুরুষের অনুপাতের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।
তৃণমূল পর্যায়েও নারী-পুরুষের এই ভারসাম্যহীনতার কারণে অনেক সুযোগ্য যুবক বিয়ের পাত্রী খোঁজার পরও ব্যর্থ হচ্ছেন। হরিশ পাতিল তাদেরই একজন। অনেক যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তি তিনি এবং তার নামের সঙ্গে এমএসসি, এমএড, এমফিল এবং পিএইচডি ডিগ্রিও রয়েছে।
হরিশ এইচএসসি শিক্ষার্থীদের পড়িয়ে বিপুল অর্থ আয় করেছেন। বলা বাহুল্য যে, সবদিক বিবেচনা করলে তিনিই এখন বিয়ের জন্য উপযুক্ত একজন পাত্র। তবে অনেক খোঁজাখুঁজির পর পাত্রী না পেয়ে বিয়ের আশা একেবার ছেড়েই দিয়েছেন তিনি। হরিশের মতো প্রদেশটিতে এ রকম আরো অনেকে রয়েছেন, যারা পাত্রীর অভাবে বিয়ে করতে পারছেন না।
এ প্রসঙ্গে হরিশ বলেন, ‘বিয়ের জন্য এমন কোনো পাত্র-পাত্রীর অফিস নেই যেখানে আমি রেজিস্ট্র্রেশন করিনি। এমনকি এমন কোনো সম্মেলন নেই যেখানে আমি যায়নি। কিন্তু বিয়ের পাত্রীর সংখ্যা নিতান্তই নগণ্য।’

গণিতশাস্ত্রের এই শিক্ষক তার বৈবাহিক দুরবস্থার জন্য নারী-পুরুষের ভারসাম্যহীন অনুপাতকেই দায়ী করেছেন।বর্তমানে বিয়ের পাত্রী খুঁজে বের করাই যেন এ প্রদেশে সবচেয়ে কঠিন কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ