• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:৫৭ অপরাহ্ন |
/ Uncategorized

প্রাণভিক্ষা চাইবেন কামারুজ্জামান : ফাঁসি বিলম্বিত

kamruzzaman-1427862393সিসি নিউজ : ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে জাড়িত থাকার অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামান রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইবেন। আর সে জন্য তার ফাঁসির রায় কার্যকর বিলম্বিত হচ্ছে। অর্থাৎ আজ বুধবার আর তার ফাঁসি কার্যকর করার কোন সম্ভাবনা নেই বলেই জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। অবশ্য তার ফাঁসির রায় কার্যকর করতে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করে রেখেছে কারা কর্তৃপক্ষ। তবে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য না করেই বুধবার রাতে কারাগার থেকে বেড়িয়ে গেছেন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার ফরমান আলী।
যুদ্ধাপরাধী কামারুজ্জামানের আইনজীবীরা জানান, রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাতে আগামীকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তাদেরকে সময় দিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় কামারুজ্জামানের সাথে দেখা করতে কেন্দ্রীয় কারাগারে যাচ্ছেন তার ৫ আইনজীবী। বুধবার সন্ধ্যায় কারা কর্তৃপক্ষ আইনজীবীদের দেখা করার এ অনুমতি দেয়। আজ বুধবার সন্ধ্যায় তার আইনজীবী এডভোকেট শিশির মো. মনির এবিনিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। আইনজীবী প্যানেলের অন্য সদস্যরা হলেন- ব্যারিস্টার এহসান আব্দুল্লাহ সিদ্দিক, মতিউর রহমান আকন্দ, আসাদ উদ্দীন ও মুজিবুর রহমান।
মোহাম্মদ কামারুজ্জামানের আইনজীবী শিশির মনির বলেছেন, আমাদেরকে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে কারাগারে সাক্ষাৎ করার জন্য সেময় দেওয়া হয়েছে। প্রাণভিক্ষা আবেদনের বিষয়ে তিনি আমাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন। এর আগে সন্ধ্যা ৬টার পর কারাগার কর্তৃপক্ষ কামারুজ্জামানকে তার রিভিউ আবেদন খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় পড়ে শোনায়।
এর আগে আজ বুধবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল থেকে তার রয়ের কপি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বুধবার বিকেল পৌনে ৬টার দিকে বিচারিক আদালত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মোহাম্মদ আফতাবুজ্জামানের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের প্রতিনিধি দল রায়ের কপি কারাগারে পৌঁছে দিলে ৬টার পর কর্তৃপক্ষ তাকে এ রায় পড়ে শোনায়। সোয়া ৬টার দিকে কারা সংশ্লিষ্ট সূত্রে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।
উচ্চ আদালত সূত্রে জানা যায়, বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে ৩৬ পৃষ্ঠার কামারুজ্জামানের রিভিউ খারিজ আদেশের কপিতে প্রধান বিচারপতিসহ ৪ বিচারপতি সই করেছেন। পরে বিকাল ৩টার দিকে ওই খারিজের আদেশটি সুপ্রিমকোর্টের রেজিস্ট্রারের কাছে নেয়া হয়। সেখান থেকে কপিটি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পাঠানোর পর তা কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। এর পরই কারা কর্তৃপক্ষ জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠানো হবে আদেশের কপি। একই সাথে সুপ্রিমকোর্ট থেকে খারিজাদেশের কপিটি পৌঁছানো হয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, এটর্নি জেনারেল ও আসামিপক্ষের আইনজীবীর কাছে।
সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের অতিরিক্ত রেজিস্ট্রার (২) মো. সাব্বির ফয়েজ বুধবার বেলা ৩টায় বলেন, আপিল বিভাগের ৪ বিচারপতি রায়ে সই করেছেন। কপিটি সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে এসেছে। এরপর তা ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হবে। ট্রাইব্যুনাল থেকে এ কপি ঢাকা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও কারা কর্তৃপক্ষকে পাঠানো হবে। জানা যায়, কারা কর্তৃপক্ষ আদেশের কপি হাতে পেলে তা পড়ে শোনাবে কামারুজ্জামানকে। এ সময় রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইবেন কিনা না তা জানতে চাওয়া হবে। প্রাণভিক্ষা চাইলে রাষ্ট্রপতির জবাব না আসা পর্যন্ত দণ্ড কার্যকর হবে না। আর যদি প্রাণভিক্ষা না চান, তবে সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ফাঁসি কার্যকর করতে পারবে কারা কর্তৃপক্ষ। তার আগে শেষবারের মতো পরিবারের সাথে আরও একবার দেখা করার সুযোগ পাবেন কামারুজ্জামান।
তারও আগে গত সোমবার সকালে আপিল বেঞ্চে কামারুজ্জামানের রিভিউ আবেদন খারিজ হওয়ার পর দণ্ড কার্যকর নিয়ে শুরু হয় আলোচনা, কারাগারে নেয়া হয় প্রস্তুতি। কারাগারের চিঠির প্রেক্ষিতে কারাগারে এসে কামারুজ্জামানের সঙ্গে দেখা করে যান তার পরিবারের সদস্যরা। রায় কার্যকর করার জন্য সোমবার থেকে ফাঁসির মঞ্চ পুরোপুরি প্রস্তুত রাখা হয়েছে। কারা প্রশাসন ইতিমধ্যে এক দফা মহড়াও দিয়েছে। সোমবার দুটি বালুর বস্তা দিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছে, ৮২ কেজি ওজনের ব্যক্তিকে ঝোলানো সম্ভব কি না। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে মোট ১৬টি ফাঁসির রশি আছে, এর একটি নিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছে। যে ৬ জন জল্লাদ এখন কারাগারে আছেন তাদের প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। তাদের যেকোনো ৩ জনকে নেয়া হবে। তবে ফাঁসি কার্যকরের মাত্র ১ ঘণ্টা আগে জল্লাদদের এসব তথ্য জানানো হয়ে থাকে।
অন্যদিকে রায় কার্যকরের প্রস্তুতির ব্যাপারে জানতে চাইলে সিনিয়র কারা তত্ত্বাবধায়ক ফরমান আলী বলেন, আদেশ পাওয়ার ২ ঘণ্টার মধ্যে প্রস্তুতি নেয়া সম্ভব। দণ্ডিত ব্যক্তিকে ফাঁসি দেয়ার সময় তার শেষ ইচ্ছা কী, তা জানতে চাওয়া হবে কি না, জানতে চাইলে একজন কর্মকর্তা বলেন, এটা সিনেমা-নাটকে আছে, জেল কোডে শেষ ইচ্ছা জানতে চাওয়ার কোনো বিধান নেই। তবু প্রথা অনুসারে কিছু বলার আছে কি না, তা জানতে চাওয়া হয়।
প্রসিকিউশন সূত্রে জানা যায়, ১৯৭১ সালে জামায়াতের কিলিং স্কোয়াড আলবদর বাহিনীর বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা কমান্ডার কামারুজ্জামানকে ২০১৩ সালের ৯ মে মৃত্যুদণ্ড দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ওই রায়ের বিরুদ্ধে তিনি আপিল করলে ২০১৪ সালের ৩ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ কামারুজ্জামানকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ এর দেয়া ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রেখে আপিল মামলার চূড়ান্ত রায় সংক্ষিপ্ত আকারে দিয়েছিলেন আপিল বিভাগ। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর পরদিন ১৯ ফেব্রুয়ারি কামারুজ্জামানের মৃত্যু পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল। গত ৫ মার্চ আপিল মামলার চূড়ান্ত পূর্ণাঙ্গ রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ আবেদনটি দাখিল করেন তিনি। আসামিপক্ষের আবেদনে দু’দফা পেছানোর পর গত রবিবার রিভিউ শুনানি অনুষ্ঠিত হয় এবং সোমবার আবেদনটি খারিজ করে দেয়া হয়।
প্রসঙ্গত মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে শেরপুরের সোহাগপুর গ্রামে ১৪৪ জনকে হত্যা ও নারী নির্যাতনের দায়ে কামারুজ্জামানকে ২০১৩ সালের ৯ মে ফাঁসির আদেশ দেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে এবং বিচারপতি মো. মুজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি শাহীনুর ইসলামের সমন্বয়ে গঠিত ৩ সদস্যের ট্রাইব্যুনাল-২। এর পর ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর যুদ্ধাপরাধে ১ ব্যক্তি হিসেবে কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরের ক্ষেত্রেও এ প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়েছিল। তবে সে সময় কাদের মোল্লা প্রাণভিক্ষার আবেদন করেননি বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হলে তার রায় কার্যকর করা হয়েছিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ