• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৩৬ অপরাহ্ন |

স্কুলে হাজারো চাকরির সুযোগ আসছে

636cd7d1afd66444c67a5839c71bfd44-1সিসি ডেস্ক: বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিদ্যমান জনবলকাঠামো সংশোধন করা হচ্ছে। প্রস্তাবিত এই সংশোধনী বাস্তবায়িত হলে বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় শিক্ষক ও কর্মচারীদের জন্য কয়েক হাজার নতুন পদের সৃষ্টি হবে। এ লক্ষ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর একটি খসড়া করেছে। এখন সেটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। এরপর পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে। অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের চলতি দায়িত্বে থাকা পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) অধ্যাপক ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, এ ধরনের একটি উদ্যোগ নিয়ে তাঁরা কাজ করছেন। তিনি জানান, তাঁরা শুধু জনবলকাঠামোর সংশোধন করছেন। নিয়োগের বিষয়টি আসবে আরও পরে।
বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ করে থাকে প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালনা পর্ষদ। তারাই প্রতিষ্ঠানের চাহিদা ও প্রাপ্যতা অনুযায়ী নিয়োগের ব্যবস্থা করে।
সারা দেশে এমপিওভুক্ত বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা আছে ২৬ হাজারেরও বেশি।
‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ)-এর শিক্ষক ও কর্মচারীদের বেতন ভাতাদির সরকারি অংশ প্রদান এবং জনবলকাঠামো সম্পর্কে নির্দেশিকা’ অনুযায়ী ওই সব প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ-কার্যক্রম হয়ে থাকে। এই নির্দেশিকাটি-ই এখন সংশোধন হচ্ছে।
মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর সংশোধনের যে খসড়াটি করেছে, তাতে প্রতি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিষয়ে একটি করে শিক্ষকের পদ সৃষ্টি করতে বলা হয়েছে। তবে অধিদপ্তরের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, নতুন পদ সৃষ্টি হলেও সব স্কুল-কলেজে নতুন করে নিয়োগের প্রয়োজন হবে না। কারণ, ঐচ্ছিক বিষয় হিসেবে এখনো অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার শিক্ষা বিষয়ে শিক্ষক আছেন। তাঁরাই ওই পদগুলোয় সরাসরি অঙ্গীভূত হবেন। উদাহরণ দিয়ে ওই কর্মকর্তা বলেন, যেমন কলেজগুলোর মধ্যে মাত্র ৬৮২টি কলেজে কম্পিউটার শিক্ষা বিষয় নেই। বাকি সব কলেজে আছে।
বিদ্যমান জনবলকাঠামো অনুযায়ী নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বাংলা, ইংরেজি, সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে একটি করে শিক্ষকের পদ আছে। প্রস্তাবিত কাঠামোতে তিনটি শিক্ষকের পদ সৃষ্টি করতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নতুন করে আরও একটি এমএলএসএসের (পিয়ন) পদ সৃষ্টি করতে বলা হচ্ছে।
বর্তমানে শুধু ছাত্রীদের বিদ্যালয়গুলোতে একজন করে আয়া নিয়োগের সুযোগ আছে। প্রস্তাবিত কাঠামোতে যেসব প্রতিষ্ঠানে সহশিক্ষা (ছাত্রছাত্রী একসঙ্গে যেখানে পড়ে) কার্যক্রম আছে, সেখানে নতুন করে আরও একটি আয়ার পদ সৃষ্টি করতে বলা হয়েছে।
মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বর্তমানে বাংলা, ইংরেজি, সমাজবিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা বিষয়ের জন্য তিনজন শিক্ষকের পদ আছে। প্রস্তাবিত কাঠামোয় ব্যবসায় শিক্ষা চালু থাকলে ওই বিষয়ে আরও একটি পদ সৃষ্টি করতে বলা হয়েছে।
মাদ্রাসার দাখিল স্তরে বাংলা, ইংরেজি, সমাজবিজ্ঞান/ব্যবসায় শিক্ষার জন্য বর্তমানের দুটি পদের বিপরীতে তিনটির প্রস্তাব করা হয়েছে। আর ব্যবসায় শিক্ষা চালু থাকলে আরও একটি পদ সৃষ্টি করা হবে। আলিমে ওই বিষয়গুলোতে চারটি পদ সৃষ্টি করতে বলা হয়েছে। বর্তমানে দুটি পদ আছে। মাদ্রাসায় বিজ্ঞান শাখা চালু থাকলেও প্রদর্শকের পদ ছিল না। এখন প্রদর্শকের প্রস্তাব করা হয়েছে। সূত্র: প্রথম আলো


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ