• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:১৯ পূর্বাহ্ন |

যুদ্ধাপরাধে দণ্ডপ্রাপ্ত কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় কার্যকর

timthumসিসি নিউজ : বহু নাটকীয়তার পর অবশষে আজ শনিবার দিবগত রাত রাত ১০টা ৩০ মিনিটে কার্যকর করা হলো ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে জাড়িত থাকার অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা মামলায় মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের রায়। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের একটি সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়, এর আগে আজ রাত ৯টার দিকে তার স্বাস্থ্যপরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়। এরপ রাত সাড়ে ৯টার দিকে তিনি গোসল করে এশার নামাজ আদায় করেন। তারও আগে আজ বিকেলে কামারুজ্জামানের ফাঁসির দন্ড কার্যকরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত ও ফাঁসি কার্যকরের নির্বাহী আদেশ তাকে অবহিত করা হয়েছে। শনিবার বেলা ২টা ৫০ মিনিটে কামারুজ্জামানের ফাঁসি কার্যকরের নির্বাহী আদেশ ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পৌঁছায় এবং তাকে তা পড়ে শোনানোও হয়।
কারা কর্তৃপক্ষ সূত্র জানায়, নিয়ম অনুযায়ী রাত ৯টার পর পরই ১ম কামারুজ্জামানের স্বাস্থ্য পরীক্ষা হয়, এরপর তাকে তওবা করাতে কেন্দ্রীয় কারাগারের পেশ ইমামকে নিয়ে প্রিজন কেবিনে প্রবেশ করেন সংশ্লিষ্ট একজন ম্যাজিস্ট্রেট। সন্ধ্যায় এ জামায়াত নেতার সাথে তার পরিবারের সদস্যরা দেখা করে বেরিয়ে আসার পর কারা ফটক এবং আশপাশের এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করা হয়। এরপর এক এক করে কোনো আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আইজি প্রিজন, সিভিল সার্জনসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কারা অভ্যন্তরে ঢুকতে দেখা যায়। এছাড়াও ফাঁসির মঞ্চের পাশেই প্রস্তুত রাখা হয়েছে একটি এম্বুলেন্স।
জানা যায়, কামারুজ্জামানের রায় কার্যকরের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে শনিবার সন্ধ্যা ৬টা ৫০ মিনিটে কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন আইজি প্রিজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইফতেখার উদ্দিন। একই সাথে  ডিআইজি প্রিজন এবং লালবাগ জোনের ডিসিও কারাগারের ভেতরে প্রবেশ করেছেন বলে জানা গেছে। তখন কারাগারের ভেতর ছিলেন সিনিয়র জেল সুপার ফরমান আলী ও জেলার নেচার আলম।
এছাড়া কামারুজ্জামানের সাথে শেষ দেখা করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। শনিবার বিকেল ৪টা ১০ মিনিটে দুটি মাইক্রোবাসে করে কামারুজ্জামানের স্বজনরা কারাগারে যান। মোট ২৪ জন কারাগারের ভেতরে প্রবেশ করেন। পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ছিলেন, কামারুজ্জামানের স্ত্রী নূরুন্নাহার, বড় ছেলে হাসান ইকবাল, মেঝো ছেলে হাসান ইমাম, মেয়ে আতিয়া নূর, বড় ভাই কফিলউদ্দিন, ২ ভাতিজি, দুই ভাগ্নি রুখশানা জেরিন মুন্নি ও মলিসহ অন্যরা।
এদিকে আজ শনিবার দুপুরের পর পরই ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার এলাকাসহ পুরো রাজধানীর সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। শনিবার দুপুরে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশর (ডিএমপি) মুখপাত্র মনিরুল ইসলাম বলেন, কামারুজ্জামানের রায় কার্যকরকে কেন্দ্র করে যেকোনো ধরনের নাশকতা এড়াতে আমরা নিরাপত্তা পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি এবং তা বাস্তবায়নে সচেষ্ট আছি। নিরাপত্তা নিয়ে জনসাধারণের উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই বলেও জানান তিনি।
পক্ষান্তরে ফাঁসির প্রস্তুতির অংশ হিসেবে আজ বিকাল ৪ টার পর পরই ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে কামারুজ্জামানের সঙ্গে তার স্বজনদের দেখা করেছেন। কামারুজ্জামানের ছেলে হাসান ইকবাল ওয়ামী ও তার আইনজীবী শিশির মনির এবিনিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
এ প্রসঙ্গে শনিবার দুপুরে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের জানিয়েছেন মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা কামারুজ্জামানের রায় কার্যকর করতে প্রয়োজনীয় সব প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। তিনি বলেন, অতি দ্রুত এই রায় কার্যকর করা হবে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তিনি প্রাণ ভিক্ষা চাইবেন না বলে ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে জবানবন্দী দিয়েছেন। ম্যাজিস্ট্রেটের লিখিত কামারুজ্জামানের জবানবন্দীর কপিটি আমাদের হাতে এসেছে। এখন পরবর্তী প্রক্রিয়াগুলো চলছে।
রায় অতি দ্রুত কার্যকর করা হবে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, কোনো চাপ, বাধা নেই জানিয়ে তিনি আরও বলেন, রায় অনুযায়ী অতি দ্রুত দণ্ড কার্যকর হবে। তবে তিনি কোন সময় উল্লেখ করেননি। তবে সাধারণত রাত ১০ টা বা ১২টা ১ মিনিটের মধ্যেই ফাঁসির এ রায় কার্যকর হয়ে থাকে বলে সংশ্লিষ্টরা মতামত দিয়েছেন। এক্ষেত্রেও তেমনটিই ঘটবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
তার আগে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যার পর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতর বাঁশ ও শামিয়ানা নিয়ে একটি রিকশা ভ্যান প্রবেশ করলে সবার আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয় সেটি। এ সময় কারাগারের আশপাশের এলাকাসহ বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যদের সংখ্যা বাড়ানো হয়। তবে রাত ১০টার পর শিথিল করা হয় সে নিরাপত্তা ব্যবস্থা
আদালত সূত্রে জানা যায়, গত ৮ এপ্রিল বুধবার সকালে ১১টায় কামারুজ্জামানের সঙ্গে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে তার আইনজীবীরা সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎ শেষে ওইদিন তার আইনজীবী এডভোকেট শিশির মনির সাংবাদিকদের বলেন, তিনি আমাদের কাছে আইনের প্রভিশনগুলো জানতে চেয়েছেন, দেশে কী নজির রয়েছে তা জানতে চেয়েছেন। আমরা তাকে সাধ্যমতো জানিয়েছি। বাকি বিষয়গুলো নিতান্তই তার সিদ্ধান্তের বিষয়। তিনি প্রাণভিক্ষা চাইবেন কি-না সে বিষয়ে ভেবে-চিন্তে কর্তৃপক্ষকে জানানোর কথা বলেছিলেন তিনি।
জানা যায়, কামরুজ্জামানের প্রাণভিক্ষার বিষয়ে তার সিদ্ধান্ত জানতে কেন্দ্রীয় কারাগারে গতকাল শুক্রবার দুজন ম্যাজিষ্ট্রেট গিয়েছিলেন। তারা হচ্ছেন- তানভীর মোহাম্মদ আজিম ও মাহবুব জামিল। তাদের সাথে ছিলেন আইজি প্রিজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইফতেখার উদ্দিন, ডিআইজি প্রিজন গোলাম হায়দার ও সিনিয়র জেল সুপার ফরমান আলী। তাদের কাছে কামারুজ্জামান প্রাণভিক্ষা চাইবেন বলে জানিয়েছেন।
এদিকে গত ৬ এপ্রিল সোমবার কামারুজ্জামানের আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ (পুর্নবিবেচনা) আবেদন খারিজ করে রায় দেয় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে আপিল বিভাগের ৪ বিচারপতির বেঞ্চ। গত ৮ এপ্রিল বুধবার ওই রায়ে স্বাক্ষর করেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা ও বেঞ্চের তিন বিচারপতি। তিন বিচারপতি হলেন-বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী।
রিভিউ খারিজ করে দেয়া রায়ের কপি ওইদিনই ট্রাইব্যুনালে প্রেরণ করে সুপ্রিমকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখা। পরে ট্রাইব্যুনালের ভারপ্রাপ্ত রেজিষ্টার আফতাব-উজ-জামান রায়ের কপি কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট জায়গায় ওইদিন বিকেলে পৌছেঁ দেন। রায়ের কপি পাওয়ার পরপরই তা আসামী কামারুজ্জামানকে পড়ে শোনানো হয় বলে কারা সূত্র জানায়।
গত ৫ মার্চ কামারুজ্জামানের পক্ষে রিভিউ আবেদনটি দাখিল করা হয়েছিল। গত বছরের ৩ নভেম্বর সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি (বর্তমানে প্রধান বিচারপতি) সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের বেঞ্চ কামারুজ্জামানকে মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ট্রাইব্যুনালের মৃত্যুদন্ডের রায় বহাল রেখে রায় দেয়। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ৫৭৭ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায়ের কপি প্রকাশ করে আপিল বিভাগ। রায় প্রকাশের ১৫ দিনের মধ্যে আসামীপক্ষের রিভিউ আবেদনের সুযোগ থাকায় সে অনুযায়ী তারা আবেদন দাখিল করে।
প্রসঙ্গত অন্য একটি মামলায় ২০১০ সালের ২৯ জুলাই কামারুজ্জামানকে গ্রেফতার করা হয়। ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার আবেদনের প্রেক্ষিতে ২ আগস্ট তাকে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে গ্রেফতার দেখানো হয়। সে থেকে তিনি কারাগারে রয়েছেন। তার ফাঁসি কার্যকর হলে এটি হবে ২য় যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসির রায় কার্যকরের ঘটনা। তার আগে কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ