• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০২:৪৩ অপরাহ্ন |

পাকিস্তানকে ১ উইকেটে হারালো বিসিবি একাদশ

ARSP_0004খেলাধুলা নিউজ: পাকিস্তান-বিসিবি একাদশের মধ্যকার চরম নাটকীয়তায় ঠাসা এক ম্যাচ।  যেখানে ক্ষণে ক্ষণে বদলেছে ফতুল্লায খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের চিত্র। সে সঙ্গে বুধবার খেলা দেখতে আসা সমর্থকরাও বারবার নড়ে-চড়ে বসেছেন, পাকিস্তান বধের আশায়। শেষ পর্যন্ত রূদ্ধশ্বাস এই ম্যাচটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে ১ উইকেটের নাটকীয় এক জয় তুলে নিল মুমিনুল হক সৌরভের নেতৃত্বাধীন বিসিবি একাদশ।

৩১ মে, ১৯৯৯ সালে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো পাকিস্তানকে বধ করেছিল বাংলাদেশ। তারপর থেকে এ দলটির বিপক্ষে জয়-শুন্য ছিল টাইগার ক্রিকেটাররা। তবে ২০১২ সালে ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত এশিযা কাপে জয়ের প্রায় কাছাকাছি গিয়েও মাত্র দুই রানের পরাজয়ের বেদনায় নীল হতে হয়েছিলেন মুশিফিক-মাশরাফিদের।

অবশেষে বুধবার ফতুল্লা স্টেডিয়ামে এলো সেই মাহেন্দ্র ক্ষণটি। নারায়নগঞ্জের লোকাল হিরো মোহাম্মাদ শহীদ জুনায়েদ খানের বলকে থার্ডম্যান দিয়ে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে বিসিবি একাদশকে ১ উইকেটের এক নাটকীয় জয় এনে দেন।

তবে এ ম্যাচের জয়ের অন্যতম নায়ক সাব্বির রহমান রুম্মানের কথা না বললেই নয়। ডানহাতি এ অলরাউন্ডারের সেঞ্চুরি শেষ পর্যন্ত বৃথা যেতে দিলেন না তাইজুল-শহীদরা। পাকিস্তানের করা ২৬৮ রানের জবাবে শুরুতেই রনি তালুকদার (০) ও তামিম ইবকালের (৯) উইকেট দুটি হারিয়ে বিপদে পড়ে বিসিবি একাদশ। এরপর লিটন দাসকে সঙ্গী করে ইনিংস মেরামতের দিকে মনোযোগী হয়ে ওঠেন সাব্বির। তবে এ জুটি  বেশিক্ষণ ক্রিজে স্থায়ী হয়নি। লিটন দাস ২২ রান করে সাঈদ আজমলের বলে রিজওয়ানের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন।

এরপর মুমিনুল হক (১২) রান করে আউট হয়ে যাওয়ায় ম্যাচটি সম্পূর্ন হেলে পড়ে সফরকারীদের দিকে। তবে এখান থেকে ইমরুল কায়েসকে নিয়ে ম্যাচে বিসিবি একাদশকে লড়াইয়ে রাখেন সাব্বির। প্রথমে ফিফটি, পরে কাংখিত সেঞ্চুরিটিও তুলে নিলেন তরুন এইডানহাতি অলরাউন্ডার।

তবে এদিন অধিনায়ক নাসির হোসেনের চোটের দলে আসা বাম হাতি ব্যাটসম্যান তামিম রাহাত আলির বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ার আগে মাত্র ৯ রানে ফিরে যান। ষষ্ঠ ওভারে ৯ রানের মাথায় দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানকে হারানো বাংলাদেশ প্রাথমিক প্রতিরোধ গড়ে সাব্বির ও লিটন দাসের ব্যাটে। ২৭ বলে ২২ রান করে লিটনের বিদায়ে বড় একটা ধাক্কা খায় স্বাগতিকরা।

নাসিরের অনুপস্থিতিতে বিসিবি একাদশকে নেতৃত্ব দেন মুমিনুল হক। রনি, তামিমের মতো প্রথম দুই ওয়ানডের জন্য ঘোষিত দলে থাকা মুমিনুল ওভালো করতে পারেননি। ১২ রান কওে লেগ স্পিনার ইয়াসির শাহর বলে এলবিডব্লিউ আউট হন মুমিনুল।

৮১ রানে চার উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া বিসিবি একাদশকে কক্ষপথে ফেরানোর কৃতিত্ব সাব্বির ও ইমরুল কায়েসের। ১৯ ওভারে ১২৪ রানের চমৎকার জুটি গড়ের এই দুই জন। ইমরুলকে (৩৬) বোল্ড করে বিপজ্জনক হয়ে ওঠা জুটি ভাঙেন ওয়াহাব রিয়াজ। এক সময় বিসিবি একাদশের সংগ্রহ ছিল ৪ উইকেট ২০৫ রান। জয়ের জন্য এই সময় আরো ৬৪ রান প্রয়োজন ছিল তাদের।

জাতীয় দলে সাত নম্বরে ব্যাট করা সাব্বির প্রস্তুতি ম্যাচে খেলতে নামেন চার নম্বরে। ‘প্রমোশন’ পেয়ে যেন আরও দুর্দান্ত হয়ে ওঠেন তিনি। খেলেন ১২৩ রানের অসাধারণ এক ইনিংস। তার ৯৯ বলে ১২৩ রানের দৃঢ়তাভরা ইনিংসটি ৭টি চার ও ৮টি ছক্কায় সমৃদ্ধ। এদিন বাজে বল পেলেই একের পর এক সীমানা ছাড়া করেন সাব্বির।

সাব্বিরের অসাধারণ সেঞ্চুরির পর যখন নিশ্চিত জয়ের পথে বিসিবি একাদশ, তখন হঠাৎই পাকিস্তানি পেসারদের সাঁড়াসি আক্রমণ। একের পর এক উইকেট হারিয়ে কক্ষপথচ্যূত হয়ে পড়ে স্বাগতিকরা।

কিন্তু নবম উইকেট জুটিতে মোহাম্মদ শহিদকে সঙ্গে নিয়ে সোহাগ গাজী ৩১ রানের জুটি গড়লে জয়ের দ্বার আবারও উম্মোচন হয়ে যায়। কিন্তু ৪৭তম ওভারের ৫ম বলে জুনায়েদ খানের বলে সোহাগ গাজী বোল্ড হয়ে গেলে আবারও তৈরী হয় অনিশ্চয়তা।

শেষ পর্যস্ত এ অনিশ্চয়তা কাটিয়ে, পাস্তিানি পেসারদের চোখ রাঙানি উপেক্ষা করে ৭ বল হাতে রেখেই মোহাম্মদ শহিদ আর তাইজুল ইসলাম বিসিবি একাদশকে পৌঁছে দেন জয়ের বন্দরে। ৪৯তম ওভারের পঞ্চম বলে জুনায়েদ খানকে বাউন্ডারি মেরেই বিসিবি একাদশের জয় নিশ্চিত করেন মোহাম্মদ শহিদ।

১৯৯৯ বিশ্বকাপে ওয়াসিম আকরামের সেই পাকিস্তানকে হারানোর পর এই পথম দেশটির জাতীয় দলের বিপক্ষে জয় পেলো বাংলাদেশের কোন দল। আফসোস, আইসিসির খাতায় এই ম্যাচটি অফিসিয়াল হিসেবে গণ্য হবে না।
এরআগে  মোহাম্মদ হাফিজ ও ফাওয়াদ আলমের জোড়া ফিফটিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৬৮ রান সংগ্রহ করে পাকিস্তান।

টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে আজহার আলীকে নিয়ে ৬৬ রানের জুটি গড়ে বড় সংগ্রহের ইঙ্গিত দেন মোহাম্মদ হাফিজ। মুক্তার আলীর বলে আজহার আলী ২৭ রান করে ফিরে গেলেও দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে হারিস সোহেলকে নিয়ে ৬৪ রান তোলে ৩০০ প্লাস রানের সম্ভাবনা জাগিয়ে তোলে সফরকারীা।

তুকিন্তু শুভাগত, তাইজুল ও জুবায়েরের ত্রিমুখী আক্রমণে পড়ে দ্রুত ৬ উইকেট হারিয়ে ফেলে পাকিস্তান। ১৩০ থেকে ১৮৫- এই ৫৫ রানের মধ্যে ৬ উইকেট হারিয়ে বেশ চাপে পড়ে সফরকারীরা।

শেষদিকে ফাওয়াদ আলমের হার না মানা ৫৮ বলে ৬৭ রানের ইনিংসের সুবাদে ২৬৮ রানের সম্মানজক স্কোর গড়ে তোলে পাকিস্তান। ফাওয়াদ নবম উইকেট জুটিতে ইয়াসির শাহকে নিয়ে ২৫ ও দশম উইকেট জুটিতে আজমলকে নিয়ে ৪০ রানের ‘ঝড়ো’ জুটি গড়েন। ফলে চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ পায় আজহার আলীর দল। বিসিবি একাদশের হয়ে শুভাগত হোম ৩৯ রানে ৩টি উইকেট পান।এছাড়া ১টি করে উইকেট পান তাইজুল, জুবায়ের, মুক্তার, শহিদ, ও সোহাগ গাজী।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
পাকিস্তান: ৫০ ওভারে ২৬৮/৯ (হাফিজ ৮৫, আজহার ২৭, হারিস ২৩, রিজওয়ান ১৮, ফাওয়াদ ৬৭*, আজমল  ১৬*; শুভাগত ৩/৩৯, সোহাগ ১/১৬, শহীদ ১/৩৪, মুক্তার ১/৪০, তাইজুল ১/৪০, জুবায়ের ১/৫৬)।

বিসিবি একাদশ: ৪৮.৫ ওভারে ২৭০/৯ ( লিটন ২২, সাব্বির ১২৩, মুমিনুল ১২, ইমরুল ৩৬, সোহাগ ৩৬, শহীদ ১২*, তাইজুল ৬*;জুনায়েদ ৪/৩৮, রাহাত ২/৫৪, ইয়াসির ১/৩৭, ওয়াহাব ১/৪০)।
ফল: বিসিবি একাদশ ১ উইকেটে জয়ী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ