• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০১:২৬ পূর্বাহ্ন |

ঠাকুরগাঁওয়ে দুই বাংলার মানুষের মিলন মেলা

Thakurgaon-milon-mala-BM-pic01ঠাকুরগাঁও: ‘বিয়ের পর এই প্রথম মাকে দেখলাম। খুব ইচ্ছে করছিল মাকে ছুঁয়ে দেখি। অসুস্থ মাও চাইছিল আমাকে বুকে জড়িয়ে ধরতে। কিন্তু মাঝখানে যে কাঁটাতারের বেড়া। তাই নীরবে শুধু চোখের দেখাটাই দেখতে হলো।’ দু’চোখে শ্রাবণের ঢল নিয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার মুন্ডুমালার শ্রাবন্তী রানী মাকে দেখার অনুভূতির কথা বলছিলেন এভাবেই।

ওপারে মা। বেশ অসুস্থ। করুণ চোখে তাকিয়ে আছেন। আর এপারে মেয়ে। কতদিন পর মা মেয়ের দেখা। অশ্রুসিক্ত চোখে অপলক তাকিয়ে আছেন মা। মাঝখানে কাঁটাতারের বেড়া।

শ্রাবন্তী আরো বললেন, প্রথমে বুক ভেঙে কান্না আসছিল। বেশিক্ষণ কথা হয়নি। তবে অনেক ভালো লাগছে মাকে দেখে।

ওপারের শিলিগুঁড়িতে থাকেন এপারের উষা ও নিরলার ভাই বিশ্বনাথ। দু’বোনের জন্য এনেছেন পিঠা। ভাই বোনের মধ্যে কথা হলেও দিতে পারেনি নিজ হাতে তৈরি পিঠা। তবুও শুধু দেখার আনন্দ নিয়ে বিদায় নিতে হয়েছে।

বুধবার ঠাকুরগাঁওয়ের ধনতলা ও হরিপুর উপজেলার ডাবরি সীমান্তের নোম্যান্স ল্যান্ডে দুই বাংলার মিলন মেলায় শ্রাবন্তী আর তার মা, উষা নিরালা আর বিশ্বনাথের মতোই এসেছিল হাজারো স্বজন প্রিয়জন।

নববর্ষ উপলক্ষে ঠাকুরগাঁও ৩০ বিজিবি ও বিএসএফ এসব স্বজনকে সুযোগ করে দিয়েছিল কাছে আসার।

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বালিয়াডাঙ্গী ধনতলা ও হরিপুর উপজেলার ডাবরি সীমান্তের প্রায় ১৫ কিলোমিটার জুড়ে বাংলাদেশ ও ভারতের হাজার হাজার মানুষের এ মিলন মেলা বসে।

মিলন মেলাকে কেন্দ্র করে উভয় দেশের সীমান্তে পর্যাপ্ত বিজিবি ও বিএসএফ মোতায়ন করা হয়। কঠোর পাহারায় কাঁটাতারের বেড়ার ফাঁক দিয়ে স্বজনদের এক মুহূর্ত দেখতে দূর-দূরান্ত থেকে লাখো মানুষের ঢল নামে। ক্ষণিক মিলনে অনেকেই আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন। ধরে রাখতে পারেনি চোখের পানি।

হরিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বলেন, হরিপুর উপজেলার অধিকাংশ এলাকা পাকিস্তান-ভারত বিভক্তির আগে ভারতের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার অধীনে ছিল। এ কারণে দেশ বিভাগের পর আত্মীয় স্বজনেরা দুই দেশে ছড়িয়ে পড়ে। তাই সারা বছর এদের সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ করতে পারেনা। অপেক্ষা করে থাকে এই দিনের।

দুই দেশের ভৌগলিক সীমারেখা আলাদা করা হয়েছে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করে। কিন্তু সে কাঁটাতার আলাদা করতে পারেনি দুই দেশের মানুষের ভালবাসার টান। সুযোগ পেলেই এ টানেই তারা ছুটে যায় কাঁটাতারের বেড়ার কাছে, মিশে যান একে অন্যের সঙ্গে।

অনেকদিন পর আপনজনের দেখা পেয়ে আবেগে কেদে কেটে বুক ভাসান আর বুক হালকা করেন অনেকে। বিনিময় করেন মনের জমানো হাজারো কথা।

সাধারণ মানুষসহ নানা পেশার মানুষ এ মিলন মেলায় এসে স্বজনদের সঙ্গে দেখা করে খুশি হয়। আবেগের জায়গা থেকে অনেকেই সরকারের কাছে দাবি তুলেছেন, এ মিলন মেলাকে যেন দুই বাংলার মানুষের মিলন মেলায় রূপান্তরিত করে স্থায়ী রূপ দেয়া হয়। বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ