• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৩:০০ পূর্বাহ্ন |

আখিরা বধ্যভূমিতে আজও নির্মিত হয়নি স্মৃতিসৌধ

Akhera_Photo_142217415 copyআফজাল হোসেন, ফুলবাড়ি:  আজ ১৭ এপ্রিল দিনাজপুরের ফুলবাড়ি উপজেলার আখিরা গণহত্যা দিবস।  ১৯৭১ সালের আজকের এই দিনে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে প্রাণে বাঁচাতে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় এলাকার চিহ্নিত রাজাকার কেনান সরকার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা অর্ধশত হিন্দু পরিবারের দেড় শতাধিক নারী-পুরুষ, শিশু ও কিশোর-কিশোরীকে ভারতে পৌঁছে দেয়ার কথা বলে পাকিস্তানী খানসেনাদের হাতে তুলে দেয়। পরে খানসেনারা আটক সবাইকে উপজেলার আলাদিপুর ইউনিয়নের  বারাইহাট সংলগ্ন আঁখিরা নামক স্থানের পুুকুর পাড়ে নিয়ে গিয়ে ব্রাশ ফায়ার করে নির্মমভাবে হত্যা করে।

দেশ স্বাধীনের পর ওই এলাকায় বীর ওইসব শহীদদের হাঁড়-গোড়, মাথার খুলি ছিড়িয়ে ছটিয়ে দেখতে পায় এলাকাবাসী। অবশ্য দেশ স্বাধীনের পর এলাকার মুক্তিযোদ্ধারা ঘাতক রাজাকার কেনান সরকারকে ধরে এনে শরীর থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে হত্যা করে। স্বাধীনতার ৩৯ বছর পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত সেই আত্মত্যাগকারী বীর শহীদদের জন্য নির্মিত হয়নি কোন স্মৃতি সৌধ। একইভাবে সংরণের উদ্যোগও নেয়া হয়নি সেই বধ্যভূমির। এ কারণে অবহেলা, অযত্ন আর অরতি অবস্থায় পড়ে রয়েছে বধ্যভূমিটি। অরতি অবস্থায় বধ্যভূমিটি পড়ে থাকায় সেখানে অবাধে চড়ে বেড়াচ্ছে গরু-ছাগলসহ অন্যান্য গবাদি পশু। দিনটি প্রতি বছর আসে আর যায়। আত্মত্যাগকারী বীর শহীদদের স্মরণ করতে কেউই কোন উদ্যোগ নেয় না। ফলে দিনটি নিরবে আসে আর নিরবেই চলে যায়।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লিয়াকত আলী বলেন, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানী খানসেনা ও তাদের এ দেশীয় রাজাকার, আলবদর ও আল-শামসদের হাত থেকে প্রাণে বাঁচতে মুক্তিকামী মানুষ যখন বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালিয়ে যাচ্ছিল ঠিক এমনই এক সময় আজকের এই দিনে ফুলবাড়ি উপজেলার পার্শ্ববর্তী আফতাবগঞ্জ, বিরামপুর, শেরপুর, খোলাহাটি, বদরগঞ্জ ও ভবানীপুর এলাকার অর্ধশত হিন্দু পরিবারের দেড় শতাধিক নারী-পুরুষ, শিশু ও কিশোর-কিশোরীকে ফুলবাড়ি সীমান্ত দিয়ে নিরাপদে ভারতে পৌঁছে দেয়ার কথা বলে ফুলবাড়িতে নিয়ে আসে পার্শ্ববর্তী পার্বতীপুর উপজেলার (বর্তমান ফুলবাড়ি) রামচদ্রপুর গ্রামের কুখ্যাত রাজাকার কেনান সরকার। কিন্তু কেনান সরকার ঐ পরিবারগুলোকে ভারতে পৌঁছে না দিয়ে তুলে দেয় ফুলবাড়িতে অবস্থানরত খানসেনাদের হাতে। এর পরিবর্তে কেনান সরকার হাতিয়ে নেয় ওই পরিবারগুলোর সাথে থাকা বিপূল অংকের নগদ অর্থসহ স্বর্ণালংকার। খানসেনারা আটক পরিবারের নারী-পুরুষ, শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের ধরে নিয়ে আসে আঁখিরা পুকুর পাড়ে। সকাল ১১টায় সকলকে পুকুর পাড়ে লাইন ধরে দাড়িয়ে রেখে স্টেনগানের ব্রাশ ফায়ারে গুলি করে পাখির মতো হত্যা করে। এ সময় দু’একজন শিশু-কিশোর প্রাণে বেঁচে গেলেও পরে তাদেরকে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে। অবশ্য দেশ স্বাধীনের পর রাজাকার কেনান সরকারকে মুক্তিযোদ্ধারা হত্যা করে প্রতিশোধ নেন। দেশ স্বাধীনের পর থেকে আঁখিরা বধ্যভূমিটি সংরক্ষণ করে সেখানে বীর ঐসব শহীদদের স্মৃতি উদ্দেশ্যে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের জন্য মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পক্ষ থেকে একাধিকবার উদ্যোগ নেয়া হলেও শুধুমাত্র অর্থের অভাবে সেটি করা যাচ্ছে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ