• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০১:১১ পূর্বাহ্ন |

চলতি মাসেই বন্ধ হচ্ছে বাঘমন্দির

tiger-temple-in-kanchanaburi-thailand1সিসি ডেস্ক: থাইল্যান্ডের জাতীয় উদ্যান দপ্তরের ডিরেক্টর জেনারেল নিপন চোটিবানের নির্দেশে, এ মাসের শেষে বন্ধ হয়ে যাবে ওয়াত পা লুয়াং তা বুয়া বাঘমন্দির। যেখানে বাস করে ১৪৬টি বাঘ। থাই নববর্ষ উত্‍সবের পর বন্ধ করা হবে বলে জানান তিনি। একাধিক বিজ্ঞানভিত্তিক টিভি চ্যানেলের সৌজন্যে এই বাঘমন্দির পৌঁছে গেছে বসার ঘরেও৷ অনায়াসে বাঘেদের পাশে বসে তাদের আদর করা বা দুষ্টু বাঘেদের কান মুলে দিয়ে তাদের শাসন করা এই মন্দিরের সন্ন্যাসীদের প্রতিনিদিনের কাজ৷ বাঘেরাও যেন মেনে নিয়েছে তাদের এই ভবিতব্য৷ ঘরে মধ্যে খেলতে গিয়ে জিনিসপত্র নষ্ট করে ফেলা অতিকায় চেহারার বোনপো নিরস্ত্র সন্ন্যাসীর দেখা পাওয়া মাত্র যে ভাবে লেজ তুলে পালিয়ে যায়, তা দেখে হয়তো হেসে ফেলবে বাঘের মাসি বিড়ালরাও। কিন্তু সেই সবই কি এবার নিছক স্মৃতি হয়ে থেকে যাবে? ব্যাংকক থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দূরে, কাঞ্চনাবুরি জেলার এই জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্রটিতে পর্যটকরা বাঘেদের সাথে কিছুটা সময় কাটানোর পাশাপাশি তাদের সঙ্গে সেলফিও তুলতে পারতেন৷ তবে এর জন্য নগদ কিছু টাকা গুণতে হবে। বহু দিন ধরেই অভিযোগ উঠছিল যে এটি বন্যপ্রাণী পাচারের অন্যতম ঘাঁটি৷ এ ছাড়া, এখানে বাঘদের ঠিকমতো দেখাশোনা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে৷ চীনে বাঘের দেহাংশ এবং হাতির দাঁত থাইল্যান্ড থেকেই পাচার করা হয়ে থাকে। বাঘমন্দির কর্তৃপক্ষ অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন এটি বাঘেদের আশ্রয়স্থল ও প্রজনন কেন্দ্র। গত সন্তাহেই, বাঘমন্দির কর্তৃপক্ষ আইনি নথিপত্র দেখাতে না পারায় সেখান থেকে ছ’টি এশিয়ান ভালুক বা মুন বেয়ার বাজেয়াপ্ত করা হয়৷ বাজেয়াপ্ত করা হয় ৩৮টি ধনেশ পাখিও। জাতীয় উদ্যানের কয়েকজন কর্মকর্তা যখন কোর্ট ওয়ারেন্ট নিয়ে বাঘমন্দিরে তিনটি নিখোঁজ বাঘের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করতে আসেন তখন তাঁদের ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। আগামী মাসে, বাঘগুলিকে রাচাবুরি প্রদেশে নিয়ে যাওয়া হবে৷ এদের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব নেবে থাইল্যান্ড সরকার৷ জনগণকে এদের দত্তক নিতে উত্‍সাহও দেওয়া হবে। বাঘদের নতুন আবাসস্থল ঘুরে এসে সন্তুষ্ট জাতীয় উদ্যান দপ্তরের কর্মকর্তারা। সরকারের এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়ে ‘ওয়ান গ্রিন প্ল্যানেট’ এর প্রতিষ্ঠাতা-সম্পাদক বলেছেন, ‘সত্য উদ্ঘাটনের সময় এসেছে। যতই বলা হোক যে বাঘমন্দিরের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ভিক্ষুরা জীবজন্তুদের যত্ন ও উদ্ধারকাজে সর্বদাই ব্যস্ত থাকেন, আমাদের অন্তর্তদন্তে কিন্তু এর ঠিক উল্টো ছবিই ধরা পড়েছে। পরিবেশকর্মীদের তাই আজ বড় আনন্দের দিন।’ সূত্র: পিটিআই


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ