• শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩৮ অপরাহ্ন |

চাঁদপুরে সেরা ৫ জন প্রতিযোগীকে ইয়েস কার্ড প্রদান

DSCN3264চাঁদপুর প্রতিনিধি: বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যাণেল বাংলাভিশনের আয়োজনে ৭ম বাংলাভিশন কুরআনের আলো প্রতিযোগীতায় জোনভিত্তিক প্রাথমিক হাফেজ বাছাই পর্বের চাঁদপুরের অডিশান সমাপ্ত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্তশহরের ট্রাকরোডস্থ আল-আমিন মডেল মাদ্রাসায় প্রতিযোগীতার বাঁছাই পর্ব শুরু হয়। দীর্ঘ বাঁছাই ২৫ জনের মধ্য থেকে শেষে বিচারকদের রায়ে ৫ জন সেরা প্রতিযোগীকে ইয়েস কার্ড প্রদান করা হয়। হিফজুল কোরআন শিক্ষা গবেষনা ফাউন্ডেশনের আলহাজ্ব হাফেজ মাওলানা আসাদুজ্জামান দেওয়ান এর সভাপতিত্বে এবং অফিস ও পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক মুসাদ্দেক আল আকিবের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যাণেল বাংলাভিশনের ইসলামী অনুষ্ঠানের উপস্থাপক ড. প্রফেসার মাওলানা মোকতার আহমেদ। তিনি বলেন, মহান আল্লাহ পাকের গ্রন্থ হলো আল কুরআন।
পবিত্র এ গ্রন্থকে হেফাজত করতে হবে। কুরআনকে সুরলিতভাবে পাঠ করতে হবে। গত ২০০৯ সালে বাংলার ঘরে ঘরে আল-কুরআনের আলো পৌছে দেওয়ার জন্য বাংলা ভিশন চ্যাণেলে প্রথমবারের মতো শুদ্ধরুপে কুরআন পড়া এবং প্রতিযোগীতামূলক অনুষ্ঠান কুরআনের আলো শুরু করা হয়। এর পর থেকে গত ৬ বছরে এই অনুষ্ঠানটিতে ব্যাপক সারা পাওয়া যায়। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে এ অনুষ্ঠানের সাফল্য ব্যাপক ইতিবাচক সারা পাওয়া যাচ্ছে। বাংলাদেশের মধ্যে চাঁদপুর শহর ইসলামের একটি প্রাণ কেন্দ্র। বাংলাদেশের টিভি চ্যাণেলগুলোর ইসলামিক অনুষ্ঠানগুলোর মধ্যে কুরআনের আলো অনুষ্ঠানটির গ্রহন যোগ্যতা অনেক বেশি। এখান থেকে হেফজখানায় শিক্ষার্থিরা প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহন করে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে গড়ে তুলতে পারবে। এ অনুষ্ঠান থেকে যারা বিজয়ী হবে তারা বিশ্বের যে কোন প্রান্তই যাক না কেন তারা সাফল্য অর্জন করবে।
চাঁদপুরে হেফজ মাদ্রাসাগুলোর অনেক সুনাম রয়েছে। আমি আশা করবো যারা প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রহন করছো তাদের মধ্যে থেকেই একজন প্রথম স্থান অংশ গ্রহন করে চাঁদপুরের সুমনাম বয়ে আনবে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক ও দৈনিক চাঁদপুর প্রবাহের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এবং বাংলাভিশন চ্যানেলের চাঁদপুর জেলা প্রতিনিধি রহিম বাদশা, আল-আমিন মডেল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা ফখরুল ইসলাম মাসুম, কুরআনের আলো প্রতিযোগীতা মূলক অনুষ্ঠান আয়োজন সহকারি সাইফুল ইসলাম । প্রতিযোগীতায় চাদপুরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানের বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থি অংশ গ্রহন করে। প্রতিযোগীতায় মোট ৫ জনকে কেন্দ্রীয় অংশগ্রহনের জন্য ইয়েস কার্ড প্রদান করা হয়। ইয়েস কার্ড প্রাপ্তরা হলো, ১ম স্থান অধিকারি জাফরাবাদ আশ্রাফিয়া উলুম মাদ্রাসার মহিব্বুল্লাহ, ২য় স্থান অধিকারি শরিফুল ইসলাম, ৩য় স্থান অধিকারি নুরুজামান, ৪র্থ স্থান অধিকারি তাসমিদ ও ৫ম স্থান অধিকারি মোঃ খালেদ। প্রতিযোগীদের মধ্যে যারা ইয়েস কার্ড পেয়েছে তাদেরকে অতিথিদের কাছ থেকে ক্রেস্ট ও ইয়েস কার্ড গলায় পরিয়ে দেওয়া হয়।

নয়া কৌশলে স্পিড বোর্ড দিয়ে জাটকা ও ইলিশ পাচার করছে
চাঁদপুরে জাতীয় মাছ ইলিশ সম্পদ রক্ষা করা জন্য সরকার নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। পদ্মা ও মেঘনায় জাটকা নিধন বন্ধে তৎপর রয়েছে সরকারের নিদের্শে প্রশাসনের লোকজন। অথচ কিচুতেই বন্ধ হচ্ছে না জাটকা নিধন। ফলে চাঁদপুর হয়ে প্রতিদিনি ঢাকা, নারায়নগঞ্জসহ দেশের অন্যান্য জেলায় পাচার হচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকার জাটকা ও ইলিশ। অশাধু জাটকা ও ইলিশ ব্যাবসায়ীরা মাছ পাচারের কাজে ব্যাবহার করছে স্পিড বোর্ড ও উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন এক প্রকার ছোট নৌকা যা করা হচ্ছে প্রাশসনের চোখ ফাঁকি দিয়েই। প্রতিদিন সন্ধা থেকে গভির রাত পর্যন্ত হাইমচর থেকে শুরু করে অনন্দ বাজার পর্যন্ত আড়ৎগুলো থেকে মাছ বোজাই করে স্পিড বোর্ড নিয়ে ঢাকা ও নারয়নগঞ্জে পাচার করা হচ্ছে।
নদী এলাকায় গিয়ে দেকা যায়, হাইমচর, কাটাখালি, গোবিন্দিয়া, হরিণা থেকে স্পিড বোর্ড ও মোহনপুরের উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্য ইঞ্জিন চালিত নৌকা দিয়ে মাছ বোজাই করে ঢাকা- নারায়নগঞ্জ পাচার করা হচ্ছে। এছাড়া বহরিয়া রনাগোয়াল, দোকানঘর, পুরাণবাজার, অনন্দ বাজার, রাজরাজেস্বর, আলুর বাজার থেকে বেশ কয়েকটি স্পিড বোর্ড ও মোহনপুরের ইচ্চ ক্ষমাতা সম্পন্ন নৌকাগুলো মাছ পাচার করা হচ্ছে। স্পিড বোর্ডে মাছ পাচারের অভিযোগে পুরাণবাজারের এক ব্যাক্তির মালিকালাধিন স্পিড বোর্ডসহ দুটি বোর্ড চাঁদপুর কোষ্টগার্ড আটক করে। পরে সেগুলো ছেড়ে দেয়ায় স্পিড বোর্ডে জাটকা ও ইলিশ পাচার আবারো চালু হয়। এছাড়া চাঁদপুর মাছঘাটে দুই মৎস্য ব্যাবসায়ী ১টি স্পিড বোর্ড মাওয়া থেকে ভাড়া এনে নারায়নগঞ্জে জাটকা পাচার করে ফেরার পথে পাগলার কোষ্টগার্ড সে বোর্ডটি আটক করে। এসময় স্পিড বোর্ডে থাকা তিন জনের কাছে মাছ বিক্রির ৯১হাজার টাকা জব্দ করা হয়। পরে ম্যাজিষ্ট্রেট ও মৎস্য কর্মকার্তার উপস্থিতিতে তাদের অর্থ দন্ড করে ছেড়ে দেয়। কিছু দিন মাছ পাচার বন্ধ থাকলেও প্রশাসন স্পিড বোডগুলো আটক না করায় আবারো মাছ পাচার বেড়ে চলছে। সচেতন শহরবাসীর দাবি তাই এসব স্পিড বোর্ড ও উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্য নৌকাগুলো অভয় আশ্রম চলাকালে আটক রাখা হলে জাটকা নিধন অনেকটাই বন্ধ করা সম্ভব হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ