• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০১:০৩ পূর্বাহ্ন |

নববর্ষে টিএসসিতে যৌন নিপীড়নে নিন্দার ঝড়

download (3)ঢাকা: পহেলা বৈশাখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় যৌন নিপীড়নের অভিযোগে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেছে৷ তবে সুনির্দিষ্টভাবে কাউকে আসামি করা হয়নি৷ পুলিশ বলছে, তারা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ ধরে অপরাধীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করছেন৷
নববর্ষে এই যৌন নিপীড়নের ঘটনা প্রথম প্রকাশ করেন ছাত্র ইউনিয়নের কয়েকজন নেতা৷ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় টিএসসি এলাকার এ ঘটনায় এক নারীকে বাঁচাতে গিয়ে আহত হয়েছেন ঢাবি শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি লিটন নন্দীসহ কয়েকজন৷
একদিন পর বুধবার বিকেলে ঢাবি-র মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও ঢাবি ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক তুহিন কান্তি রায় বলেন, ‘‘বর্ষবরণের দিন সন্ধ্যা ৬টা থেকে সাড়ে ৭টা পর্যন্ত একদল যুবক কয়েকটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে নারীদের লাঞ্ছিত করে৷ তারা কারও শাড়ি ধরে টান দিচ্ছিল৷ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গেটে এক নারীকে প্রায় বিবস্ত্র অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়৷ পরে তাকে পুলিশের সহযোগিতায় উদ্ধার করা হয়৷ওই সময় পুলিশ লাঠিচার্জ করে৷” এর আগে-পরে সেখানে আরও কয়েকটি ঘটনা ঘটে বলে জানান তিনি৷ মঙ্গলবার ঘটনার রাতে ছাত্র ইউনিয়ন সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমেও বিষয়টি জানায়৷

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আমজাদ আলী বৃহস্পতিবার বলেন, ‘‘বেশ কয়েকজনকে শ্লীলতাহানির কথা শুনেছি৷ পুলিশকে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে৷ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে পুলিশকে পহেলা বৈশাখ বিকেল ৪টার মধ্যে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গেট বন্ধ করার কথা বলা হলেও সেটা করা হয়নি৷”
তিনি বলেন, ‘‘পুলিশের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও ঘটনাটির তদন্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ তদন্তে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হবে, তারা যদি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেউ হন তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে৷ আর পুলিশের ফৌজদারি ব্যবস্থা তো আছেই৷”

তবে এর আগে মঙ্গলবার রাতে তিনি বিষয়টি আমলে নেননি বলে ছাত্র ইউনিয়ন নেতাদের অভিযোগ৷ আর তখন পুলিশ জানিয়েছিল তারা যৌন হয়রানির কোন অভিযোগ পাননি৷
ব্যাপক সমালোচনার পর বুধবার রাতে শাহবাগ থানা পুলিশ নিজেই বাদী হয়ে একটি মামলা করেছে৷ নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে দায়ের করা ওই মামলায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করা হয়েছে৷
ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার জাহাঙ্গীর আলম সরকার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘দু’একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার খবর আমাদের কাছে এসেছে৷ সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে জড়িতদের শনাক্ত করতে রমনা বিভাগের পুলিশকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে৷” তিনি জানান, ‘‘যেহেতু সরাসরি অভিযোগকারী কাউকে এখনো পাওয়া যায়নি তাই পুলিশ নিজেই বাদী হয়ে মামলা করেছে৷”
নিপীড়নের শিকার নারীদের বাঁচাতে গিয়ে আহত ঢাবি শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি লিটন নন্দী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘ঘটনার পর রাতেই আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেছি৷ কিন্তু প্রক্টর বিষয়টিকে কোন গুরুত্বই দেয়নি৷ আর পুলিশ ঘটনাস্থলে থাকার পরও সক্রিয় হয়নি৷ হলে অপরাধীরা ধরা পড়ত এবং নারীরা নিপীড়নের হাত থেকেও বাঁচত৷”
এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘‘‘যা ঘটেছে তা অত্যন্ত দুঃখজনক৷ আমাদের কোন ছাত্র বা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেউ যদি এই ঘটনায় চিহ্নিত হয়, দায়ী হয় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে৷”

প্রতিক্রিয়া
নববর্ষের দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় নারীকে যৌন হয়রানির ঘটনায় নিন্দার ঝড় উঠেছে৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই এই ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বিচার চেয়েছেন৷ নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন অবশ্য বলছেন ভিন্ন কথা৷
ভারতে নির্বাসিত বাংলাদেশি সংগীত শিল্পী তসলিমা নাসরিন দু’দিন আগে জানান যে তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ‘ডিজেবল’ করে দিয়েছে ফেসবুক৷ তবে বৃহস্পতিবার অ্যাকাউন্টটি ফেরত পেয়েছেন তিনি৷ আর তারপরই মন্তব্য করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় যৌন হয়রানি নিয়ে৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘শ্লীলতাহানি তো পুরুষেরও হতে পারে, মেয়েদের হলে চারদিকে কান্নাকাটির রোল পড়ে কেন? এর মানে কি এই যে পুরুষের শ্লীলতাটা বজায় না রাখলেও চলে, কিন্তু মেয়েদেরটা মাস্ট?”
তসলিমা লিখেছেন, ‘‘যারা মনে করে মেয়েদের শ্লীলতা মেয়েদের জীবনের অত্যন্ত মূল্যবান বিষয়, সুতরাং যে করেই হোক এই শ্লীলতাটা তাদের রক্ষা করতে হবে, তারাই মেয়েদের হিজাব পরায়, বোরখা পরায়, মেয়েদের ঘরবন্দি করে৷ তারাই রাস্তাঘাটে পুরুষরা মেয়েদের কাপড় চোপড় খুলে নিলে রেগে আগুন হয়৷”
বিভিন্ন সময় লেখালেখির জন্য আলোচিত, সমালোচিত তসলিমা তার ফেসবুক পোস্টের শেষাংশে লিখেছেন, ‘‘এই সমাজ একটা মেয়েকে তৈরি করে পুরুষের খাদ্য হিসেবে, এবং একটা পুরুষকে তৈরি করে মেয়েদের খাদক হিসেবে৷ এই তৈরি করায় কারো আপত্তি নেই৷
“শ্লীলতাহানি তো পুরুষেরও হতে পারে, মেয়েদের হলে চারদিকে কান্নাকাটির রোল পড়ে কেন?”
“কিন্তু পুরুষরা জনসমক্ষে মেয়েদের খেতে গেলেই আপত্তি. অবশ্য একটু আড়ালে, একটু নাটক করে, ঢাক-ঢোল বাজিয়ে, কায়দা করে খেলে আপত্তি নেই৷ এই ভণ্ডামিটা হয়ত আরো কয়েকশ বছর চলবে৷”
প্রসঙ্গত, যৌন হয়রানি চলাকালে পুলিশের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে৷ অভিযোগ রয়েছে, পুলিশ ইচ্ছাকৃতভাবে নিষ্ক্রিয় ভূমিকা পালন করেছে৷ সাংবাদিক গোলাম মোর্তোজা এই বিষয়টি তুলে এনেছেন তার ফেসবুক পোস্টে৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘ছাত্র ইউনিয়নের সহ-সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘…ঘটনাস্থল থেকে আমরা দুজনকে ধরিয়ে দিয়েছিলাম৷ কিন্তু পুলিশ পরে তাদের ছেড়ে দিয়েছে বলে জানতে পারি৷’ পুলিশ কেন ছেড়ে দিল, পয়সার বিনিময়ে না রাজনৈতিক কারণে? পুলিশ যারা পরিচালনা করেন, তারা কি প্রশ্নটির জবাব দেবেন?”- ডিডব্লিউ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ