• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:০২ পূর্বাহ্ন |

ফরিদপুরে জাফরউল্লাহর পথসভায় গুলি, ওসিসহ গুলিবিদ্ধ ৭

Jaforসিসি নিউজ: ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহর পথসভায় গুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশের একজন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ (ওসি) সাতজন আহত হয়েছেন।
আজ শনিবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে উপজেলার কাউলিবেড়া ইউনিয়নের পরারণ গ্রামের মুন্সিবাড়ি কুমপাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শীর দাবি, আওয়ামী লীগ নেতা দীপক মজুমদারের শটগান থেকে অসতর্কতায় গুলি বেরিয়ে এ ঘটনা ঘটে।
দীপক ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও ভাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। তাঁর দাবি, তিনি ওই সভায় ছিলেন না। তাঁর শটগানের গুলিতে কেউ আহত হননি। গুলিতে আহত পুলিশের কর্মকর্তার নাম নাজমুল ইসলাম। তিনি ভাঙ্গা থানার ওসি।
আহত অন্য ছয়জন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী। তাঁরা হলেন সদরপুর উপজেলার চরমানাইর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য সাহেব আলী (৪৮), ভাঙ্গার আজিমনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৩ নম্বর ইউনিটের সভাপতি সোবহান মিয়া (৬৫), কাউলিবেড়া ইউনিয়নের পরারণ গ্রামের জমির মাতুব্বর (৬০) ও ফরমান মাতুব্বর (৫৬), খাটরা গ্রামের শাহজাহান মিয়া (৫০) ও সদরপুরের চরমানাই গ্রামের ইমারত আকন (৫৬)।
আহত ব্যক্তিদের প্রথমে ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে গুরুতর আহত ছয়জনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ইমরান আলী বলেন, গুলিবিদ্ধ সাতজন এই হাসপাতালে আসেন। তাঁদের মধ্যে ওসি নাজমুলও ছিলেন। গুলিতে তাঁর নাক সামান্য জখম হয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। অন্য ছয়জনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। বুক, পেটসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় তাঁরা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

ঘটনার বিষয়ে ওসি নাজমুল বলেন, ‘দীপক মজুমদারের শটগান থেকে অসতর্কতামূলকভাবে মিস ফায়ার হলে এ ঘটনা ঘটে।’
গুলিতে আহত চরমানাইর ইউপি সদস্য সাহেব আলীর ভাষ্য, ‘আমরা সভাস্থলের বাম পাশে বসেছিলাম। কিছু বুঝে ওঠার আগেই একটি শব্দ হলো। মুহূর্তের মধ্যে আমিসহ অন্যদের গায়ে গুলি লাগল।’
এ বিষয়ে জানতে চাইলে দীপক দাবি করেন, ‘আমি ওই সভায় ছিলামই না। তাই আমার শটগানের গুলিতে কারও আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেনি।’
দীপকের ভাষ্য, ‘শুনেছি ওই সভায় একটি বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে কয়েকজন সামান্য আহত হয়েছেন।’
এটিকে ‘বিচ্ছিন্ন’ ঘটনা হিসেবেও আখ্যায়িত করেন দীপক।
সভায় উপস্থিত থাকা ভাঙা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী হেদায়েত উল্লাহ বলেন, ‘দীপক মজুমদারের শটগানের মিস ফায়ার থেকেই এ ঘটনা ঘটেছে। তবে ঘটনার সময় শটগানটি তাঁর (দীপক) কাছে ছিল না। তিনি এক তরুণের কাছে এটি রাখতে দিয়েছিলেন। ওই তরুণ কৌতূহলবশত ট্রিগারে চাপ দেন। এতে গুলি বেরিয়ে যায়।’
ঘটনার বিষয়ে কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শীর ভাষ্য, আজ সকালে পরারণ গ্রামের মুন্সিবাড়ি কুমপাড় এলাকায় কাজী জাফরউল্লাহর একটি পথসভা আয়োজন করা হয়। তিনি সকাল সাড়ে আটটার দিকে সভাস্থলে এসে চেয়ারে বসেন। তাঁর বাঁ পাশে ছিলেন দীপক। হঠাৎ করে তাঁর শটগান থেকে গুলি বের হলে ওসিসহ সাতজন আহত হন। ঘটনার পর সভাস্থলে হুড়োহুড়ি শুরু হয়। সভার কার্যক্রম স্থগিত হয়ে যায়। সভায় আসা লোকজন আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। প্রথম আলো


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ