• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:১২ পূর্বাহ্ন |

বড়পুকুরিয়া খনি এলাকায় ভূমিহীনদের পুর্নবাসনে শুভঙ্করের ফাঁকি!

Boropukuria Coal khoniআফজাল হোসেন, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর): দেশের উত্তরাঞ্চলের দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিটি একমাত্র উৎপাদনশীল কয়লা খনি। ২০০৫ সালে বানিজ্যিক ভিত্তিতে ভূগর্ব থেকে কয়লা উত্তোলন শুরু হয়। কয়লা উত্তোলন শুরুর আগে এলাকার মানুষ জানতো না যে, শুরঙ্গ পথে কয়লা উত্তোলন শুরু হলে এলাকায় ভূমি ধ্বস শুরু হবে। কয়েক বছর পর ভূগর্ব থেকে কয়লা উত্তোলন করা হলে কয়লা খনির পার্শ্ববর্তী বলরামপুর মৌজার জিগাগাড়ী গ্রামটি প্রথম ভূমি ধ্বসে পড়েন। ভূমি ধ্বস শুরু হওয়ার পর থেকে এলাকার মানুষ উপায় অন্তর না পেয়ে এলাকার কতিপয় ব্যক্তি স্বার্থ হাসিলের জন্য এবং এলাকার মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য একটি সংগঠন করেন যে, সংগঠনটির নাম জীবন ও সম্পদ রক্ষা কমিটি। এই কমিটি দীর্ঘদিন আন্দোলন করার পর তাদের সাথে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি কর্তৃপক্ষের সাথে একটি অঘোষিত সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর হয়। চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার মধ্য দিয়ে তারা অধিকার আদায়ে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছিল। সেখানে উল্লেখ্য করা হয় যমুনা সেতু নির্মাণে ভূমি যেভাবে ক্রয় করা হয়েছিল সেই দামে এখানকার জমি ক্রয় করতে হবে। এবং জমিতে উৎপাদিত ফসলের কয়েকগুন দাম দিতে হবে। এভাবে বেশ কিছু শর্ত দেয়ার পর সরকার ঘোষণা করেন, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি এলাকায় মাইনিং জোন সিটি টাউন নির্মাণ করা হবে। যা দেশের উত্তরাঞ্চলের মডেল হিসেবে চিহ্নিত হবে। কিন্তু সরকার জমি অধিগ্রহণ করার জন্য জেলা প্রশাসককে এলাকার বাড়ী ঘর স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, মসজিদ, মন্দির, দোকানপাটসহ কার কি সম্পদ রয়েছে তা জরিপ করার জন্য মাঠ পর্যায়ে কাজ করার নির্দেশ দেন। নির্দেশ মোতাবেক জরিপ টিম খনি এলাকায় বিভিন্ন সময় জরিপ কাজ সমাপ্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদন জ্বালানি মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর পর সরকার সেখানে জমি অধিগ্রহণ সিটি মডেল টাউন, ক্ষতিপূরণ ও অন্যান্য বিষয়ের উপর সরকার ১৯১ কোটি টাকা প্রদান করেন। টাকা প্রদানের পর এলাকায় পর্যায়ক্রমে ক্ষতিপূরণ দেয়া শুরু হয়। এক পর্যায়ে এসে জমি জমার কাগজপত্রের জটিলতা দেখা দিলে ক্ষতিপুরণের প্রায় ৫০ কোটি টাকা প্রদান করা সম্ভব হয়নি। বর্তমান খনি সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে একটি পত্র পাঠানো হয়। সেই পত্রে উল্লেখ্য রয়েছে, খনি এলাকার ৬২২ একর জমি উদ্ধার করতে সরকার আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি এলাকার অধিগ্রহণ করা গ্রামগুলো হচ্ছে বালু পাড়া, বলরামপুর, মৌপুকুর, পাতিগ্রাম, জিগাগাড়ী এবং বড়পুকুরিয়া বাজার। সরকার ক্ষতিগ্রস্থ আড়াই হাজার পরিবারকে পুর্নবাসনের জন্য ৫ হাজার বাড়ী বানিয়ে দিবেন। যার নাম হবে মাইনিং সিটি। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। বর্তমান ৯নং হামিদপুর ইউনিয়নের দুলাউদুল, পলাশবাড়ী এলাকায় ভূমিহীনদের জন্য একটি গ্রাম তৈরি করেছেন। সেখানে ৩২০ জন পরিবার বসবাস করবেন। কিন্তু সেখানকার পরিবেশের কারণে এখন পর্যন্ত অনেকে ঐ পুর্নবাসন গ্রামে যেতে পারেননি। উল্লেখ্য যে, ৫০ শতক জমি যাদের আছে তাদেরকে ভূমিহীন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। কিন্তু পরিষ্কার ভাবে পুর্নবাসনে বলা হয়েছে ১০ শতক জমি যাদের আছে তারাই ঐ গ্রামে পুর্নবাসনের যোগ্য এবং তারা ভূমি হীন। ৩৫ জন ভূমিহীন তাদেরকে ঐ গ্রামের ঘরবাড়ী বরাদ্দ দেওয়া হয় নি। এর মধ্যে পাতিগ্রাম কালুপাড়া, মৌপুকুর, জিগাগাড়ি, ও বৌদ্ধনাথপুর এলাকার বাসিন্দা রয়েছেন। পূর্ণবাসন গ্রামে পানি ব্যবস্থাপনার জন্য ৬৪টি তারা পাম্প বসানো হয়েছে। সেইগুলি তারাপাম্প দিয়ে পানি উঠে না। ৫টি পরিবারের জন্য একটি তারাপাম্প আর ৫টি পরিবারের জন্য ২টি স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা এবং একটি করে বাথরুম করে দেওয়া হয়েছে।ভূমিহীন পূর্ণবাসনে ঐ মাঠে মাটি ভরাট কাজে ব্যাপারে অনিয়ম দুরনীতি হয়েছে। ঘর নির্মাণের টিন এঙ্গেল লাগানো কাজগুলিতে অনিয়ম করা হয়েছে। ঘরের মেঝেতে গড়েয়া ইট বিছিয়ে পাকা করা হয়েছে। কালুপাড়া গ্রামের মোছাঃ মেহেরবান জন, পাতিগ্রামে বৃদ্ধা মোঃ রমজান আলী বলেন, এখানে বসবাস করা মোটেই সম্ভব নয়। এখানে স্কুল, কলেজ, মাদ্্রাসা, মজিদ, মন্দির ও কবর স্থান এবং খেলা মাঠ, হাটবাজার কিছু নেই। বড় ধরনের দূর্যোগ দেখা দিলে ঘরগুলি ব্যাপক ক্ষতি সাধন হবে। তারা আক্ষেপ করে বলেন, হামার এলাকার সোনার ছাওয়া প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার (এমপি) কইছিল হামার এটে নাকি মাইনিং সিটি হইবে, হামরা এখন বিল্ডিং বাড়িত থাকিমো। কই হামরা তো আর কিছু দেখা পাছি না।
জীবন ও সম্পদ রক্ষা কমিটির ভূইফোড় সংগঠনের নেতারা বলেছিলেন এই এলাকার চিত্র বদলে যাবে, মানুষের জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধি পাবে এবং কোল মাইনিং সিটি গড়ে উঠবে। লক্ষ্য করে দেখা যাচ্ছে অবস্থা এমনই হয়েছে যে, কথাগুলো শুনে হয়েছে আসলেই এই এলাকা মানুষের ভাগ্যের দ্বার খুলে যাবে । কিন্তু তা না হয়ে হয়েছে শুভঙ্ককরের ফাঁকি।
এদিকে ঐ এলাকা ঘুরে দেখা যায়, খনি থেকে উত্তোলনকৃত কোটি কোটি টাকার কয়লা প্রতিদিন শত শত যানবাহনে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এতে সরকার বিপুল পরিমাণ আয় করলেও এলাকার মানুষের ভাগ্যের কোন উন্নতি হয়নি। অনেকে এখন পথে বসেছে। পুর্নবাসন এলাকার রাস্তাঘাটগুলোর করুন অবস্থা। সংস্কারের কোন উদ্যোগ নেই। বর্ষাকাল এলে পানি ভেঙ্গে ঐ এলাকার লোকজনদেরকে গ্রামে যেতে হয়। এখন স্কুল কলেজ, মাদ্রাসাগুলোর প্রায় বন্ধ হওয়ার উপক্রম। নতুন করে এই এলাকায় স্কুল কলেজ মাদ্রাসা গড়ে তোলার কোথা বললেও কমিটির লোকজনেরা সরকারের অনুদান পেয়েও স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা নির্মাণ করছে না। ফলে অধিগ্রহণকৃত এলাকার জমিতেই গড়ে উঠা ঘরে শিক্ষার্থীরা ক্লাস করছে।
এব্যাপারে এলাকাবাসী জ্বালানী ও খনি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রীর এলাকা পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নেক দৃষ্টি কামনা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ