• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৩:২১ অপরাহ্ন |

উত্তরবঙ্গের বড় রসুনের হাট খানসামায়

Dinajpur-Roasunআমিনুল ইসলাম:  দিনাজপুরের খানসামার কাচিনিয়ায় উত্তরাঞ্চলের সবচেয়ে বড় রসুনের হাট। দিন দিন বাড়ছে এর পরিধি। সপ্তাহের শুক্র ও মঙ্গলবার বাদ ফজর থেকে চলে রাত ৯টা পর্যন্ত।

উত্তরাঞ্চরের রাজশাহী, রংপুর, বগুড়া, লালমনিহাট, গাইবন্ধা, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, নীলফামারী ও সিরাজগঞ্জ ছাড়াও দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন এলাকার রসুন ব্যবসায়ীরা কাচিনীহাটের রসুনের বাজারে রসুন কিনতে আসে।

খানসামার রসুনের মান ভালো ও দাম কম হওয়ায় দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ব্যবসায়ীরা রসুন কিনতে আসে।
এবার রসুনের ফলন বাম্পার হলেও গত কয়েক দিনের আবহাওয়া ও বর্তমান বাজার মূল্যে রসুন নিয়ে চাষীরা বিপাকে পড়েছে। ফলন বেশি হওয়ায় এবং হঠাৎ বৃষ্টির কারণে রশুনের দাম কমে যাওয়ায় কৃষকরা বিপাকে। মার্চ মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে রসুন উত্তোলন আর বেচাকেনা শুরু হয়।

খানসামা উপজেলায় গত কয়েক দশক ধরে রসুন চাষ হচ্ছে ব্যাপক হারে। প্রতি বছরের মতো এবারও প্রচুর রসুন চাষ হয়েছে এই এলাকায়। রসুনের এই ভরা মৌসুমে এবারো কাচিনিয়া হাটে রসুন বেচা-কেনার হাট বসছে।

রসুন চাষে অন্যতম স্থানগুলো হলো খানসামার ভাবকী ইউপির গারপাড়া, রামনগর, গুলিয়াড়া, কাচিনিয়া, দেউলগাঁও এবং মারগাঁওসহ বিভিন্ন এলাকা।

খানসামা উপজেলায় কৃষি অফিস জানায়, শীতের শুরুতে এবং মাঝখানে কিছু কিছু রসুনক্ষেত কৃমি ও কোল্ড ইনজুড়িতে আক্রান্ত হলেও নানা ওষুধ প্রয়োগে এসব রসুনক্ষেত রক্ষা হয় এবং রসুনের বাম্পার ফলন হয়েছে।

রসুন চাষী গোয়ালডিহি গ্রামের বাবলু রহমান ও নেছারুল ইসলাম, গারপাড়া গ্রামের আবুল কালাম জানান, এ বছর বীজ রসুনের বাজার মূল্য বেশি হওয়ায় প্রতি একর জমিতে বীজ, সার, বপন, হাল চাষ, নিড়ানি ও অন্যান্য খরচ হয়েছে প্রায় ৬০ হাজার টাকা। যা বিগত বছরগুলোর চেয়ে দেড়গুণ। কিন্তু ফলনও ভালো হওয়ায় প্রতি একর জমিতে রসুন উৎপাদন হয়েছে কমপক্ষে ৮০ মণ। যার বর্তমান বাজার মূল্য ৯৬ হাজার টাকা। একরে ৬০ হাজার টাকা খরচ হলেও কৃষকের লাভ হয়েছে ৩৬ হাজার টাকা। ফলে কৃষকেরা রসুন চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে। সে কারণে প্রতি বছর এই উপজেলায় রসুন চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বাজারে সিরাজগঞ্জ থেকে আসা ব্যবসায়ী জাকির হোসেন জানায়, প্রতি বছর রসুনের এ মৌসুমে তারা রসুন কেনার জন্য এ কাচিনিয়া বাজারে আসে। তারা শুধু উত্তরাঞ্চল নয়, দেশের কোথাও রসুনের এত বড় বাজার দেখেননি। খানসামা উপজেলার রসুনের মান ভালো ও দাম কম হওয়ায় তারা প্রতি বছর রসুন কিনতে এখানে আসে।

কৃষকরা জানায়, শুরুতে এসব রসুনের বাজার মূল্য প্রতি মণ প্রায় আড়াই হাজার টাকা থাকলেও বর্তমানে বেশি আমদানি আর হঠাৎ বৃষ্টির কারণে তা এক থেকে দেড় হাজার টাকায় এসে দাঁড়িয়েছে।

কাচিনীয়া গ্রামের রসুন চাষী রশিদুল ইসলাম বলেন, ‘এ বছর এলাকায় রসুনের ব্যাপক চাষ হয়েছে। ফলন ভালো হয়েছে। কিন্তু আবহাওয়া খারাপ, ঠিকমত রসুন শুকাতে পারছি না। বর্তমানে রসুনের দাম কম থাকায় শুকনা অবস্থায় প্রতি কেজি ৩০ টাকা করে ১২শ টাকা প্রতি মণ রসুন বিক্রি হচ্ছে।’

খানসামা উপজেলায় কৃষি অফিসার এজামুল হক  সিসি নিউজকে জানান, চলতি বছর রসুন চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৪৫০ হেক্টর। কিন্তু রসুন চাষ করা হয়েছে ৮৯০ হেক্টর জমিতে। যা গত বছরের তুলনায় অনেক বেশি। রসুনের ফলনও ভালো হয়েছে। রসুন কাঁদা মাটি থেকে তুলে ভালোভাবে শুকাতে হবে। তাহলে কোনো ক্ষতি হবে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ