• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৩৫ পূর্বাহ্ন |

চাঁদপুর-লাকসাম রেলপথের কাজ জুনের মধ্যে শেষ হবে

Chandpurশরিফুল ইসলাম, চাঁদপুর: বাংলাদেশ রেলওয়ে মন্ত্রনালয়ের অধীনে এবং ভারতের কালিন্দী রেল নির্মান ইঞ্জিনিয়ারিং লিঃ কোম্পানির তত্বাবধানে দ্রুত এগিয়ে চলছে চাঁদপুর-লাকসাম মিটারগেজ রেলপথ বসানোর কাজ। প্রথম পর্যায়ে চাঁদপুর-লাকসাম রেলপথের ৫৭ কি.মি. এলাকার প্রায় ১শ’ ৭০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ ৪ বছরেও শেষ হয়নি। ভারতীয় কালিন্দি কোম্পানীর ব্যবস্থাপনায় দীর্ঘ দিন যাবত এ পথের কাজ আরম্ভ হওয়ার পরও এ পর্যন্ত ৬ বার বন্ধ হয়ে যায়। বর্তমানে ভারতীয় এ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনায় দ্রুতগতিতে এ রেলপথের কাজ এগিয়ে চলছে। রেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ উপ প্রকৌশলী কুমিল্লার মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছে, এ বছরের জুন মাসের মধ্যেই পুরো কাজ শেষ হয়ে যাবে।
কাজ শেষ হওয়ার পর ৫৭ কি.মি. রেলপথ অতিক্রম করতে যেখানে ২ ঘন্টা সময় লাগতো, সেখানে মাত্র ৪৫ মিনিট সময় লাগবে। চাঁদপুর লাকসাম রেলপথের উন্নয়নে সরকারের একনেকে প্রধানমন্ত্রী ২০১২ সালে ১শ’ ৭০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেন। এর মধ্যে রেলওয়ের মিটার গেজ লাইন বসানোর জন্য প্রাথমিক বাজেট ধরা হয়েছে প্রায় ১২০ কোটি টাকা। বাকি ৫০ কোটি টাকার মধ্যে ৬টি স্টেশন নির্মাণ ও সংস্কার বাবদ ৮ কোটি টাকা ও রেলওয়ে ব্রিজ নির্মান বাকি টাকা বাজেট ধরা হয়েছে। চাঁদপুর জেলা তথা দক্ষিণ অঞ্চলীয় হাজার হাজার যাত্রী এ পথে প্রতিদিন যাতায়াত করে থাকে। যাত্রীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে ও সরকারের রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যে এ পথের উন্নয়নের কথা চিন্তা করেন সরকার। বৃটিশ শাসন আমলে প্রায় ২শ’ বছর পূর্বে এ রেলপথ স্থাপন করা হয়। সেই সময় থেকে এ পথের উন্নয়নে কোন বড় ধরনের সংস্কার করা হয়নি।
বর্তমানে এ সংস্কারের লক্ষ্যে রেলপথ, ব্রীজ, স্টেশন ভবন ও ডিজিটাল পদ্ধতির সিগনাইলের কাজ হাতে নেয় বিগত ২০১২ সালে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। টেন্ডার প্রক্রিয়ায় এ ৫৭ কি.মি. কাজের দায়িত্ব পান ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ভারতীয় কালিন্দি কোম্পানি। এ কোম্পানি ২০১২ সালের ৩০ মার্চ এ কাজ শুরু করে হাজীগঞ্জ এলাকা থেকে। ১ বছরের মধ্যে ২০১৩ সালের ৩০ জুন এ কাজ শেষ করার সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। ভারতীয় কোম্পানির জনবল ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম না থাকায় ৪ বছরে ৬ বার কাজ শুরু করে, আবার বন্ধ করে রাখে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ জানায়, এ পর্যন্ত এ কোম্পানি কে কাজের সময়সীমা ৫ বার বর্ধিত করে দেওয়া হয়। রেলওয়ে চট্রগ্রাম বিভাগীয় প্রকৌশলী জানান, ২০১৪ সালে কালিন্দি কোম্পানি নিজেরা কাজ করতে না পারায়, এ দেশীয় কোম্পানি চট্রগ্রাম আজমাইন ট্রেড ইন্টার ন্যাশনাল কোম্পানির নিকট কাজটি বিক্রি করে দেয়। সেই কোম্পানি ২ বারই কাজ শুরু করে বন্ধ করে দেয়। অবশেষে ভারতীয় কোম্পানি তাদের বিরাট অঙ্কের জামানতের অর্থ ক্ষতি হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় পুনরায় কাজ শুরু করার সিদ্ধান্ত নেয়। সেই মতে গত এক সপ্তাহ যাবত এ পথের উন্নয়ন কাজ অতিদ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ আরোও জানায়, পূর্বে রেলপথ যে অবস্থায় ছিল তার চাইতে বর্তমান রেলপথ ১ ফুট উচু হবে। পুরাতন রেলপথ খুলে ফেলে দিয়ে, নতুন কংক্রিট স্লিপার বসিয়ে ৭৫ পাউন্ড ওজনের রেলপাত স্থাপন করা হচ্ছে। এর পূর্বে ৬০ পাউন্ড রেলপাত ছিল এ পথে।
এ পথে বর্তমানে ট্রেন চলাচল করছে ২৫/৩০ কি.মি. গতিতে। পুরো কাজ শেষ হলে ট্রেন চলাচল করবে ঘন্টায় ৭২/৭৫ গতিতে। এতে সময় বাচবে সোয়া ১ ঘন্টা। ২ ঘন্টার স্থলে লাগবে ৪৫ মিনিট। এ তথ্য দিয়েছেন এ পথের দায়িত্বরত কর্মকর্তা এস.এস.এ ই/ পথ মো. লিয়াকত আলী মজুমদার। রেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আরোও জানান, শতভাগ কাজের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬ কি.মি. কাজ সম্পন্ন হয়েছে। হাজীগঞ্জ থেকে রেলপাত দ্রুত গতিতে বসিয়ে চাঁদপুরের কাছাকাছি ও চিতশী থেকে রেলপাত বসিয়ে শাহরাস্তি পর্যন্ত কাজ করে এসেছেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। এ কাজে প্রতিদিন ১শ’ ৪৮ জন শ্রমিক দিবারাত্রি কাজ করে যাচ্ছে। রেলওয়ের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, ১ বছরের স্থলে এ কাজ করতে ৪ বছর সময় লেগে যাওয়ায়, রাস্তার কিনারে পড়ে থাকা রেলপাতগুলো অনেকাংশে মাটিতে পড়ে থেকে নষ্ট হয়ে গেছে। চাঁদপুর-লাকসাম রেলপথের ৫৭ কিলোমিটার রেলপথ নতুনভাবে সংস্কার করার ফলে যাত্রীরা দুর্ভোগের হাত থেকে রক্ষা পাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ