• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৫০ পূর্বাহ্ন |

পাকিস্তানের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২৩৯

Ajhar-ALiখেলাধুলা নিউজ: শুরুটা ছিল ভালোই। ৩৭ রানের মধ্যেই পাকিস্তানের দুই ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়েছিল মাশরাফি শিবির। এরপর সাড়াশি আক্রমণে আর বিধ্বস্ত পাক শিবির। এক পর্যায়ে ৭৭ রানে পাঁচ উইকেট খুইয়ে বসে পাকিস্তান। তখন মনে হচ্ছিল ১৫০ রানের মধ্যেই হয়তো গুটিয়ে যাবে আজহার শিবির। তবে মিডলঅর্ডারে হারিস-নাসিম-ওয়াহাব রিয়াজদের ব্যাটিং দৃঢ়তায় শেষ পর্যন্ত সম্মানজনক স্কোরই গড়তে পেরেছে পাকিস্তান। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ২৩৯ রান সংগ্রহ করেছে সফরকারীরা। জিততে হলে বাংলাদেশকে করতে হবে ২৪০ রান।

রোববার দুপুরে টস হেরে ফিল্ডিং করতে নামে বাংলাদেশ। শুরু থেকেই ছিল নাটক। প্রথম বল করতে আসেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। অপর প্রান্তে স্ট্রাইক ব্যাটসম্যান পাকিস্তান অধিনায়ক। প্রথম বলটিই ছিল অফ সাইডে। হালকা ইনসুইং করে ঢুকলো ভেতরে। ব্যাটসম্যান বল ছেড়ে দিলেন। কিন্তু আম্পায়ার নাইজেল লং ডেকে বসলেন, বলটি ছিল নো।

পরে দেখা গেলো, প্রথম বলটিতেই মাশরাফির পা হড়কে চলে গেলো ক্রিজের বাইরে। সুতরাং, নিয়ম অনুসারে ফ্রি হিট। আম্পায়ার সিগন্যালও দিলেন ফ্রি হিটের। পাকিস্তান অধিনায়ক আজহার আলিও সুযোগের সদ্বব্যবহার করলেন। পাঠিয়ে দিলেন বাউন্ডারির বাইরে।

পরের বলেই ইনসুইঙ্গার দেন মাশরাফি। প্যাড দিয়ে ঠেকান আজহার আলি। জোরালো আবেদন উঠেছিল আউটের। কিন্তু আম্পায়ার নাইজেল লং তাতে সাড়া দেন না। পরের চার বলে শুধু আর এক রান দেন মাশরাফি। পরের ওভার করতে আসেন তাসকিন আহমেদ এবং তার এই ওভার থেকে কোন রানই নিতে পারেননি পাকিস্তানি দুই ওপেনার।

পঞ্চম ওভারের প্রথম বলে তাসকিন আহমেদের বাউন্সার পুল করতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন আজহার আলি। শর্ট ফাইন লেগে অনেক দূর দৌড়ে এসেও বলটি তালুবন্দী করতে পারলেন না আরাফাত সানি। তবে অষ্টম ওভারে বল করতে এসেই উইকেট তুলে নিলেন রুবেল হোসেন। প্রথম বলেই দিলেন আউট সুইঙ্গার। কাভার ড্রাইভ করতে গেলেন সরফরাজ। কিন্তু বল ব্যাটের কানায় লেগে উঠে গেল প্রথম এবং দ্বিতীয় স্লিপের মাঝামাঝি অঞ্চলে। অসাধারণ ভঙ্গিতে ক্যাচ ধরলেন সৌম্য সরকার। পতন ঘটলো পাকিস্তানের প্রথম উইকেটের।

প্রথম উইকেটের পর দ্বিতীয় উইকেটের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি বাংলাদেশকে। ৯ম ওভারের শেষ বলেই মোহাম্মদ হাফিজের মিডল স্ট্যাম্প উড়িয়ে দিলেন স্পিনার আরাফাত সানি। ৬ বল মোকাবেলা করে স্কোরবোর্ডে কোন রান যোগ করার আগেই বোল্ড হয়ে গেলেন হাফিজ।

হারিস সোহেলকে নিয়ে ২১ রানের জুটি গড়ে ফেলেছিলেন পাকিস্তান অধিনায়ক আজহার আলী। ৩৬ রান করে ক্রমেই বিপজ্জনক হয়ে উঠছিলেন বাংলাদেশের সামনে। এমন সময় মাশরাফি বল তুলে দিলেন সাকিব আল হাসানের হাতে। আস্থার প্রতিদান দিতে মোটেও দেরি করেননি সাকিব। বল করতে এসে তৃতীয় বলেই তুলে নিলেন আজহার আলীর উইকেট। তার শর্ট লেংথের বলটি রিভার্স সুইপ করতে যান আজহার। কিন্তু স্লো বলটিতে সঠিকভাবে টাইমিং করতে ব্যর্থ হন তিনি। বল ব্যাটের হাতল এবং গ্লাভসে লেগে চলে যাচ্ছিল বাইরে। ঝাঁপিয়ে পড়ে বলটি তালুবন্দী করলেন মুশফিক।

চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে পাকিস্তান। একের পর এক উইকেট হারাতে থাকে আজহার আলীর দল। সাকিবের বলে আচমকা কট বিহাইন্ড আউট হয়ে যাওয়ার পরের ওভারেই নাসির হোসেনের বলে বোল্ড হয়ে গেলেন মিডল অর্ডার ফাওয়াদ আলমও। ১৭তম ওভারের পঞ্চম বলেই বোল্ড হয়ে গেলেন তিনি। এর পরের চমকটাও সাকিব দেখিয়েছেন। নিজের চতুর্থ ওভারের তৃতীয় বলে এলবিডব্লিউর শিকার বানান মোহাম্মদ রিজওয়ানকে। ২২ বলে মাত্র ১৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন রিজওয়ান। রিভিউ নেয়ার সুযোগ ছিল। তবে নিশ্চিত আউট জেনেই প্যাভিলিয়নের পথে হাঁটা দেন রিজওয়ান।

তবে ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে চাপ সামলে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আভাস দিচ্ছিলেন হারিস সোহেল ও সাদ নাসিম। এই জুটি ক্রমেই ভয়ংকর হয়ে ওঠে বাংলাদেশের বোলারদের উপর। তবে শেষ পর্যন্ত এই জুটি বিচ্ছিন্ন করেছেন অধিনায়ক মাশরাফিই। ৩৯তম ওভারের শেষ বলে হারিসকে আউট করেন মাশরাফি। স্ট্রেইট হাকাতে গিয়ে মাশরাফির হাতেই ক্যাচ তুলে দেন হারিস। তবে তার আগে করে যান ৬১ বলে ৪৪ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। ষষ্ঠ উইকেটে জুটিতে হারিস-সাদ যোগ করেন মোট ৭৭ রান।

হারিস বিদায় নিলেও ওয়াহাব রিয়াজকে সঙ্গে নিয়ে ব্যাট চালাতে থাকেন সাদ নাসিম। এই দুজন শেষ পর্যন্ত খেলে পাকিস্তানকে ভালো এক পর্যায়ে পৌছে দেন। ৯৬ বলে ৭৭ রানে নাসিম ও ৪০ বলে ৫১ রানে অপরাজিত থাকেন ওয়াহাব রিয়াজ। বাংলাদেশের হয়ে সাকিব দুটি, মাশরাফি, আরাফাত, রুবেল, নাসির নেন একটি করে উইকেট।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ