• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন |

সাহেব নামের গোলাম কর্তৃক ৩৫ জেলে অপহরণ

Opoবাগেরহাট : বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা ও চাঁদপাই রেঞ্জের সীমান্তবর্তী ধানসাগর স্টেশনের শ্যালা নদীর আড়ুয়াবয়া এলাকা থেকে ৩৫ জেলেকে অপহরণ করেছে বনদস্যুরা।

রোববার সকালে জনপ্রতি এক লাখ টাকা মুক্তিপণের দাবিতে এসব জেলেদের অপহরণ করা হয়। অপহরণকারী দস্যু বাহিনীর নাম ‘সাহেব নামের গোলাম’ বলে অপহৃত জেলেদের মহাজনরা জানিয়েছেন। এই বাহিনীর নাম তারা আগে কখনো শোনেননি বলে জানিয়েছেন জেলে ও মহাজনরা।

গত ৫ এপ্রিল সুন্দরবনের ত্রাস দুর্ধর্ষ বনদস্যু বেল্লাল বাহিনীর প্রধান বেল্লাল ফরাজী যৌথ বাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার পরে তারই সহযোগীরা নতুন এই বাহিনীর গঠন করে দস্যুবৃত্তি শুরু করেছে বলে স্থানীয় জেলে, মহাজন ও মৎস্য ব্যবসায়ীরা ধারণা করছেন।

অপরহৃত জেলেদের মধ্যে রাজিব, মহিদুল, ইয়াকুব, শামীম, মান্নান, ইসমাইল, শাহিন গাজী, রাজ্জাক ফকির, ইলিয়াস, বাদশা, মুজাহার আলীসহ ১১ জেনর নাম জানা গেছে। এদের সবার বাড়ি বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে।

শরণখোলা উপজেলার বনসংলগ্ন উত্তর রাজাপুর এলাকার মৎস্য ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, উপজেলার উত্তর রাজাপুর, পশ্চিম রাজাপুর, ধানসাগর, রতিয়া রাজাপুরসহ বিভিন্ন এলাকার ৩০-৩৫টি নৌকা নিয়ে জেলেরা শ্যালা নদীর আড়য়াবয়া খালে মাছ ধরতে যান। প্রতিটি নৌকায় ৩-৪ জন করে প্রায় শতাধিক জেলে ছিলেন।

রোববার ভোর ৫টার দিকে নবগঠিত ‘সাহেব নামের গোলাম’ ওই দস্যু বাহিনীর ১৫-১৬ জন সশস্ত্র দস্যু জেলে বহরে হানা দেয়। পরে এসব নৌকা থেকে আনুমানিক ৩৫-৪০ জেলেকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। দস্যুরা মুক্তিপণ আদায়ের জন্য জেলেদের মাধ্যমে মহাজনদের কাছে তাদের মোবাইল নম্বর পাঠিয়ে দেয়।

ধানসাগর ফরেস্ট স্টেশনের কর্মকর্তা (এসও) সুলতান মাহমুদ হাওলাদার জানান, অপহরণের খবর তারা শুনেছেন। পরে তারা বন বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ও কোস্ট গার্ডকে বিষয়টি অবহিত করেছেন।

শরণখোলার ধানসাগর নৌপুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (এসআই) জিয়াউর রহমান জানান, অপহৃতদের পরিবার ও মহাজনদের মাধ্যমে তারা জেলে অপহরণের খবর জেনেছেন। ওইসব জেলেদের অবস্থান শনাক্তের চেষ্টা চলছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ