• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৫৪ অপরাহ্ন |

লোকসান কাটিয়ে উন্নয়নের পথে মধ্যপাড়া পাথর খনি

Pathorরুকুনুজ্জামান বাবুল, পার্বতীপুর (দিনাজপুর): দেশের একমাত্র এবং বৃহৎ দিনাজপুরের পার্বতীপুরস্থ মধ্যপাড়া পাথর খনি প্রায় ৮ বছর পর লোকসান কাটিয়ে এখন লাভের পথে। এ খনিজ সম্পদ জেলার অর্থনীতি সহ দেশের অর্থনীতিতে এখন আর্শীবাদ হিসাবে দেখা দিয়েছে জেলার দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনি।
মধ্যপাড়া পাথর খনি সুত্রে জানা যায়, দেশের একমাত্র পাথর খনি এই মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইন। ১৯৭৩-১৯৭৫ সালে বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তর (জিএসবি) দিনাজপুর জেলার মধ্যপাড়া এলাকায় ১.২ বর্গ কিলোমিটার (ভু-গর্ভস্থ) এলাকায় ১২৮ মিটার গভীরতায় কঠিন শিলা আবিস্কার করে। ১৯৭৬-৭৭ সালে কানাডার পরামর্শক প্রতিষ্টান মেসার্স এন,এস,সি কর্তৃক কারিগরী সম্ভাব্যতা সমীক্ষা পরিচালনা পুর্বক মধ্যপাড়ায় একটি ভু-গর্ভস্থ খনি বাস্তবায়ন কারিগরী দিক দিয়ে সম্ভব ও অর্থনৈতিক দিক দিয়ে লাভজনক বলে সুপারিশ করে। দেশে বছরে প্রায় ৬০-৬৫ লাখ মে, টন পাথরের চাহিদাকে সামনে রেখে প্রতিদিন ৫ হাজার ৫শ’ মেট্রিক টন হারে বছরে সাড়ে ১৬ লাখ মেট্রিক টন পাথর উত্তোলনের লক্ষ্যে গত ১৯৯৪ ইং সালে উত্তর কোরিয়ার মেসার্স কোরিয়া সাউথ কো-অপারেশন কর্পোরেশন (নাম নাম) এর সাথে খনি উন্নয়নের চুক্তি করে সরকারের জ্বালানী মন্ত্রনালয়ের অধীন তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ কর্পোরেশন (পেট্রোবাংলা)। এতে ৩ দফা প্রজেক্ট প্রফাইল (পিপি) সংশোধন করার পর সংশোধিত পিপি অনুয়ায়ী মোট প্রকল্প ব্যায় ধরা হয় ১৯৭.৮৯৯ মিলিয়ন ডলার। এখানে শিলা রয়েছে গ্রানাইট, গ্রানোডায়োরাইট, নাইস, ইত্যাদি। অধিকাংশ পাথর কালো, কিছু গোলাপী, সাদা ও অন্যান্য। খনির আয়ুস্কাল ধরা হয় ৭০ বছর। ডেকোরেটেডফ্লোর টাইলস এবং নির্মান কাজে ব্যবহার যোগ্য এই শিলার compressive strength ২৪০০০ পি,এস,আই।
খনি উন্নয়ন চুক্তির প্রায় এক যুগ পর গত ২০০৭ সালের ২৫ মে মধ্যপাড়া পাথর খনি বাণিজ্যিকভাবে পাথর উত্তোলন শুরু করে। কিন্তু দেশীয় খনি শ্রমিক দিয়ে প্রতিদিন মাত্র এক শিফটে গড়ে প্রায় ৭-৮ শত মেট্রিক টন পাথর উত্তোলনের মধ্যে কার্যক্রম সীমাবদ্ধ ছিল। ফলে খনিটি লোকসানের মুখে প্রায় বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। সরকার খনিটি কে লাভজনক করতে ২০১৩ ইং সালের ২ সেপ্টেম্বর দেশীয় প্রতিষ্ঠান Germania Corporation Limited Dhaka Bangladesh এবং বেলারুশ সরকারের JSC Trest Shakhtospetsstroy, Republic of Belarus মিলে গঠিত Germania Trest Consortium (GTC) সাথে সাড়ে ৬ বছর মেয়াদে প্রায় ১ হাজার ৪ শত কোটি টাকার মধ্যপাড়ার পাথর খনির ম্যানেজমেন্ট অব অপারেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট, পোডাক্টশন, মেইনটেনেন্স এবং প্রোভিশনিং সার্ভিসেস চুক্তি করে। জিটিসি খনি শ্রমিক অসন্তোষ এবং স্থানীয় বিভিন্ন প্রতিকুলতা মোকাবিলা করে খনির দায়িত্বভার গ্রহন করে ২০১৪ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারী উৎপাদন শুরু করে। বর্তমানে জিটিসি তিন শিফটে প্রতিদিন প্রায় ৪ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করছে এবং তারা খনির উন্নয়ন করে চুক্তির লক্ষ্যমাত্রা অনুয়ায়ী পাথর উত্তোলনের সক্ষম হবে বলে জিটিসির একটি সুত্র জানায়।
পাথর উত্তোলন, মজুদ এবং বিক্রি নিয়ে মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী আবুল বাসার বলেন, মধ্যপাড়া পাথর খনিতে গত দুই মাসে জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান এবং জ্বালানী সচিবের আগমনে খনি কর্তৃপক্ষ পাথর খনির উন্নয়নে আশার আলো দেখছেন। বর্তমানে খনিতে তিন শিফটে প্রতিদিন পাথর উত্তোলন হচ্ছে প্রায় ৪ হাজার মে,টন। সড়ক ও রেলপথে বিক্রি হচ্ছে প্রতিদিন প্রায় দুই থেকে আড়াই হাজার মে,টন। বিভিন্ন সাইজের বিক্রিযোগ্য পাথরের বর্তমান মজুদ রয়েছে প্রায় ৪ লাখ মেট্রিক টন। উত্তোলনের তুলনায় বিক্রি হচ্ছে কম, ফলে খনিতে পাথরের মজুদ বাড়ছে। পদ্মাসেতু সহ সরকারী প্রতিষ্টানগুলোতে মধ্যপাড়ার পাথরের ব্যবহার বাড়ানো গেলে খনিটি লাভজনক হয়ে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ব্যাপক ভুমিকা রাখবে এবং বিপুল পরিমানে বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হবে বলে তিনি মনে করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ