• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৯:০৪ অপরাহ্ন |

৮ মাস অনশনে প্রেমিকা !

chilmari photo-20-4-15হাবিবুর রহমান, চিলমারী (কুড়িগ্রাম): কুড়িগ্রামের চিলমারীতে বধূ হওয়ার দাবি নিয়ে প্রায় ৮ মাস পূর্বে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন শুরু করে হিন্দু সম্পদায়ের এক প্রেমিকা। প্রায় ৮ মাস অনশনের পর প্রশাসনের নিকট সাহায্যের আবেদন করে। প্রেমিক প্রায় ৮ মাস ও প্রেমিকের বাবা মা ৩ মাস থেকে লাপাত্তা। শেষ পর্যন্ত কি ঘটবে প্রেমিকার ভাগ্যে এটাই দেখার অপেক্ষায় এলাকাবাসী।
জানা গেছে, উপজেলার সবুজ পাড়া এলাকার অমল চন্দ্রের ছেলে কমল চন্দ্রের সাথে বাসন্তী গ্রামের নারায়ন চন্দ্রের মেয়ে বিথী রানীর পরিচয়ের সূত্র ধরে একপর্যায়ে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে। কেটে যায় কয়েকমাস। পরে প্রেমিকের প্রতারনা বুঝতে পেরে বিয়ের জন্য চাপ দেয় এসময় প্রেমিকের কথা মতো গত ১ সেন্টেম্বর প্রেমিকা বিয়ের দাবি নিয়ে চলে আসে প্রেমিকের বাড়িতে। তার উপস্থিতি টের পেয়ে প্রেমিক কমল চন্দ্র কৈশলে পালিয়ে যায়। প্রেমিকা তার অবস্থান থেকে না সরে অনশন শুরু করে। সংবাদটি দৈনিক মানব জমিনসহ কয়েকটি পত্রিকায় প্রকাশের পর স্থানীয় লোকজনকে স্বাক্ষি রেখে কমলের পরিবারের লোকজন বিথীকে বিয়ের আশ্বাস দেয় এবং র্নিভয়ে বাড়িতে থাকতে বলে। চলে দফায় দফায় বৈঠক। প্রেমিকের পরিবারের পক্ষ থেকে যৌতুক হিসাবে দাবি করা হয় ৬০হাজার টাকা রাজিও হয়ে যায় প্রেমিকার পরিবার। সুদের উপর টাকা নিয়ে নগত ১০হাজার টাকাও বুঝিয়ে দেয় প্রেমিকার পরিবার। এবং অনশনের ৭০ দিন পর স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে সবুজপাড়া মন্দিরে প্রেমিকের বাবা পানপত্র ও শাখা পড়িয়ে বিথীরানীকে পুত্রবধূ হিসাবে স্বীকৃতি দেয়। এবং বিয়ে দেয়াসহ ছেলেকে ফিরে আনতে ৩ মাসের সময় চেয়ে নেয় এলাকাবাসীর নিকট। কিন্তু ৩ মাস যেতে না যেতেই প্রেমিকের পিতা মাতা গা ঢাকা দেন। প্রেমিকা বিথি পড়েন মহাবিপাকে। সাথে নেমে আসে প্রেমিকের আত্মীয় স্বজনের হুমকি। কিন্তু অনর ছিল প্রেমিকা সরবেননা তার অবস্থান থেকে তা জানিয়েন দেন সবাইকে। বিথি আরো জানায় প্রথম থেকেই কমলের পরিবার ও তার আত্মীয়স্বজন আমাকে মেরে গুম করার হুমকি দিয়ে আসছে। হুমকিদাতাদের বারবার হুমকি ও প্রেমিকের কোন খোজ না পাওয়ায় অবশেষে শনিবার ১৮ এপ্রিল/১৫ বিকালে প্রশাসনের নিকট সাহায্যে চেয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন প্রেমিকা। পরে পুলিশ অভিযান চালালে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে প্রেমিকের আত্মীয়স্বজন ও পাশ্ববর্তী বাড়ির হুমকিদাতারা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় প্রশাসন ও এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিরা সমাধানের আশ্বাস দেয় এবং প্রেমিকা বিথিরানীকে তার মামা জয়হরীর জিম্মায় সফর্দ করেন। এব্যাপারে চিলমারী থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম জানান বিষয়টি আমরা শুনেছি তদন্ত পূর্বক ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে। এদিকে ঘটনাটিকে ঘিরে এলাকায় বইছে আলোচনার ঝড়। এবং সর্বশেষ কি ঘটবে প্রেমিকার ভাগ্যে সেটাই দেখার অপেক্ষায় এলাকাবাসী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ