• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন |

ঘিওরে মিষ্টি কুমড়ায় কৃষকের হাসি

mistikumraমানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জের ঘিওরে দিন দিন বাড়ছে মিষ্টি কুমড়ার চাষ। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার চাষিরা অন্যান্য ফসলের সাথে মিষ্টি কুমড়া চাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। ভাল ফলন আর আশানুরুপ দাম পেয়ে ওই অঞ্চলের কৃষকরা সত্যিই অনেক খুশি।

 জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে ঘিওরে প্রায় ৪০০ হেক্টর জমিতে মিষ্টি কুমড়ার চাষ হয়েছে। কার্তিক-অগ্রাহায়ণ মাসে যে জমিতে কৃষক ফুলকপির আবাদ করে সেই জমিতেই মাসের মাঝামাঝি সময়ে তারা মিষ্টি কুমড়ার বীজ বপন করে। মূলত ফুলকপির আবাদ শেষ হয়ে যাওয়ার পরেই তারা কুমড়ার ফলন পেতে থাকে। এতে করে কুড়চা চাষে জমিতে আলাদা কোন খরচ নেই।

 দেখা গেছে, জেলার প্রতিটি উপজেলাতেই কমবেশি মিষ্টি কুমড়ার চাষ হয়ে থাকে। তবে ঘিওর উপজেলার চঙ্গশিমুলিয়া, মাইলাগি, বড়বিলা, নীলা, বাঙ্গালা, বালিয়াখোড়া, বরুরিয়া, পয়লা, কুইষ্টা গ্রামে উল্লেখযোগ্য হারে কুমড়ার আবাদ হয়। রাজধানীর কাওরান বাজারই হচ্ছে এই কুমড়ার সবচেয়ে বড় বাজার।

 এ বছর প্রায় ৬০ শতাংশ জমিতে মিষ্টি কুমড়ার আবাদ করেছেন উপজেলার বাঙ্গালা গ্রামের চাষি কবির আহমেদ। তিনি জানান, কুমড়া চাষে জমিতে বিঘাপ্রতি খরচ প্রায় ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা। আর প্রতি বিঘাতে কুমড়া বিক্রি করে লাভ হয় ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা।

 একই গ্রামের কৃষক হামিদ উদ্দিন জানান, এক বিঘা জমিতে সর্বোচ্চ ১২-১৩ শ কুমড়া পাওয়া যায়। প্রতিটি কুমড়ার দাম আকার ভেদে ১০ টাকা থেকে ২৫ টাকা পর্যন্ত। ক্ষেত থেকে পাইকাররা কুমড়া কিনে নেওয়ায় কৃষকের কোন বাড়তি ঝামেলা হয়না।

 জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো: আলীমুজ্জামান মিয়া জানান, ঘিওরে দিন দিন কুমড়া চাষ জনপ্রিয় হচ্ছে। কম পরিশ্রমে ভাল লাভ পাওয়াতে কৃষকরা এই চাষে ঝুঁকছেন। কৃষকরা ফুলকপি, আলু ও আখ চাষের সাথে সাথে মিষ্টি কুমড়ার চাষ করছে। এতে করে তাদের খরচ কম হচ্ছে পাশাপাশি আর্থিকভাবেও লাভবান হচ্ছে। তবে, এ ব্যাপারে কৃষকের নিয়মিত পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।

{রাাইজিংবিডি}


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ