• শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৮:০২ পূর্বাহ্ন |

মুক্তিপণ আদায়ে অপহরণ, মাইকিং শুনে খুন

brahmanbaria01_bramonbariaব্রাহ্মণবাড়িয়া: মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশে ৯ বছর বয়সী শিশু হিমেল শিকদারকে অপহরণ করে বিলের মাঝখানে নিয়ে যায় তারা তিনজন। পরে গ্রামের মসজিদের মাইকে নিখোঁজ সংবাদের ঘোষণা শুনে ওই শিশুটিকে হত্যা করে লাশ ধানের জমিতে ফেলে দেন তারা।

হিমেল হত্যাকাণ্ডে গ্রেফতার হওয়া দুইজন আদালতে এ ঘটনা স্বীকার করে লোমহর্ষক বর্ণনা দেন। এর আগে ১৯ এপ্রিল রাতে এ ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়।

অভিযোগে বলা হয়, সদর উপজেলার মাছিহাতা ইউনিয়নের চিনাইর গ্রামের নতুন বাড়ির বাসিন্দা লিল মিয়া শিকদারের ছেলে স্থানীয় উত্তর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র হিমেল সিকদার ওইদিন দুপুর আড়াইটার দিকে স্কুল থেকে বের হয়ে বাড়ি ফিরেনি। তাকে কেউ অপহরণ করে থাকতে পারে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

এ অভিযোগের সূত্র ধরে পুলিশ ২১ এপ্রিল তাদের দুই প্রতিবেশীসহ তিনজনকে গ্রেফতার করে এবং তাদের দেওয়া তথ্যানুযায়ী শিশুটির লাশ উদ্ধার করে।

এরা হলেন- চিনাইর গ্রামের নতুন বাড়ির মন্না মিয়ার ছেলে আব্বাস উদ্দিন (১৮), হুমায়ূন চৌধুরীর ছেলে জয়নাল চৌধুরী (২০) ও একই উপজলোর রামরাইল ইউনিয়নের বিজেশ্বর গ্রামের আছমত আলীর ছেলে মহসীন মিয়া (৩৫)।

এদের মধ্যে আব্বাস ও জয়নাল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেষ্ঠ্য বিচারিক হাকিম সিরাজাম মুনীরা’র আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

জবানবন্দিতে জয়নাল ও আব্বাস বলেন, ১৯ এপ্রিল দুপুর আড়াইটার দিকে স্কুল থেকে ফেরার পথে তারা মুক্তিপণের উদ্দেশে শিশুটিকে অপহরণ করে পার্শ্ববর্তী চাঁন্দপুর গ্রামের বিলের মাঝখানে নিয়ে যায়। সেখানে প্রায় চার/পাঁচ ঘণ্টা বসে থেকে তারা হিমেলের সঙ্গে খেলাধুলা করেন। রাত ৮টার পর হিমেল বাড়ি যেতে চায়।

তখন জয়নাল তাকে বাড়ি দিয়ে আসতে চাইলে আব্বাস বিরোধীতা করে বলেন, ‘বাড়ি দিয়ে আসলে হিমেল আমাদের নাম বলে দিবে’। এদিকে গ্রামের মাইকে হিমেলের নিখোঁজ হওয়ার সংবাদ শুনে আব্বাস শিশুটিকে মেরে ফেলার কথা বলেন।

এরপর আব্বাস শিশুটির হাত-পা ধরে আর জয়নাল তার মুখ চেপে ধরে। এসময় সালমান নামে তাদের আরেক সহযোগী কেউ আসে কিনা সেটি পাহারা দেয়। প্রায় পাঁচ মিনিট পর হিমেল মারা গেলে তাকে টেনে জমির মাঝখানে ফেলে পালিয়ে যায় তারা।

লোমহর্ষক এই মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা সদর থানার উপপরিদর্শক ইশতিয়াক আহমেদ বলেন, মুক্তিপণ আদায় করতেই যে হিমেলকে অপহরণ শেষে হত্যা করা হয়। এই বিষয়টি আসামিদের জবানবন্দি থেকেই স্পষ্ট হয়েছে। আসামিদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই শিশুটির লাশ উদ্ধার করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ