• শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:১১ অপরাহ্ন |

যমুনা রিসোর্টের চুক্তি বাতিল নোটিশের কার্যকারিতা স্থগিত

Jamuna_Resourt_531074161ঢাকা: বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব পাড়ে গড়ে তোলা অবকাশ যাপন কেন্দ্র যমুনা রিসোর্ট লিমিটেডের (জেআরএল) সঙ্গে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের সম্পাদিত চুক্তি বাতিল সংক্রান্ত নোটিশের কার্যকারিতা ৩ মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট।

একই সঙ্গে যমুনা রিসোর্টের ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনায় বাধা প্রদান থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

যমুনা কর্তৃপক্ষের করে এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিত বৃহস্পতিবার(২৩ এপ্রিল’২০১৫) বিচারপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি আমির হোসেনের সমন্বয় গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এছাড়া চুক্তি বাতিল সংক্রান্ত খারিজাদেশ কেন বাতিল ঘোষণা করা হবে তা জানতে চেয়ে ‍রুল জারি করেন আদালত।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক।তাকে সহায়তা করেন ব্যারিস্টার মারগুব কবির। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আব্দুস সালাম মন্ডল।

মামলার বিবরণে জানা যায়, বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব পাড়ে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর ও কালিহাতী উপজেলার প্রায় এক হাজার ২০০ একর জমির ওপর আন্তর্জাতিক মানের অবকাশ যাপন কেন্দ্র গড়ে তোলার জন্য ১৯৯৯ সালের ২১ নভেম্বর বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ৩০ বছর মেয়াদী জমি ও স্থাপনার লিজ নেয় যমুনা রিসোর্ট লিমিটেড।

চুক্তি অনুযায়ী সেতু কর্তৃপক্ষকে ভাড়া বাবদ প্রতি মাসে যে পরিমাণ টাকা দেয়ার কথা ছিল তা পরিশোধ না করায় বকেয়া পড়ে। বকেয়া টাকা পরিশোধের জন্য বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ ও যমুনা রিসোর্ট লিমিটেডের মধ্যে একাধিকবার বৈঠক হলেও কোনো সমাধান হয়নি।

বকেয়া টাকা পরিশোধ না করা এবং চুক্তির শর্ত অনুযায়ী সার্টিফিকেট অব সেটিসফেকশন (সিএস) স্বাক্ষর না করায় জেআরএল ও সেতু কর্তৃপক্ষের মধ্যে মতানৈক্য চরম আকার ধারণ করে। সর্বশেষ সেতু কর্তৃপক্ষের ১০৪ তম বোর্ড সভায় জেআরএল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সম্পাদিত ৩০ বছর মেয়াদী চুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সে অনুযায়ী ১ এপ্রিল চুক্তি বাতিলের চিঠি দেওয়া হয় জেআরএল কর্তৃপক্ষকে।

এ চিঠি পাওয়ার পর চুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত ও স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তরের বিরুদ্ধে ঢাকা জেলা জজ আদালতে দায়ের করা আরবিট্রেশন মিস কেস করে যমুনা রিসোর্ট লিমিটেড। আদালত ওই সিদ্ধান্তের ওপর স্থিতাবস্থা প্রদান করে। কিন্তু পরে গত ২ এপ্রিল বিচারিক আদালত এ আবেদনটি খারিজ করে দেন।

মিস কেসটি খারিজাদেশের সাথে সাথে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের অনুরোধে টাঙ্গাইল কালেক্টরেটরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট  ফাহমি মো. সায়েফ জেআরএল এর লিজকৃত স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি সিলগালা ও সিজার লিস্ট করে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপেক্ষর গঠিত কমিটির নিকট বুঝিয়ে দেন্।

এদিকে যমুনা কর্তৃপক্ষ বিচারিক আদালতের আদেশের পর হাইকোর্টে রিভিশন আবেদন করে। ওই আবেদনের শুনানি নিয়ে আদালত বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ