• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ন |

‘স্থানীয় সরকার পদ্ধতির পরিবর্তন প্রয়োজন’

Sujon1429791086সিসিনিউজ: এ মুহুর্তে নগর সরকারই একমাত্র সমাধান। একই সঙ্গে স্থানীয় সরকার পদ্ধতির আইনের আমূল পরিবর্তন দরকার। মেয়রের ক্ষমতা প্রয়োগ করতে গেলে এ পরিবর্তন প্রয়োজন। কাজ না করতে পারলে মেয়রকে দোষ দেওয়া যায় না।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘নগর সরকারই সমাধান’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় বক্তারা এ কথা বলেন। সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন লেখক ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন, স্থপতি ইকবাল হাবিব, এনাম আহমেদ চৌধুরীসহ একাধিক মেয়র প্রার্থী।

সভায় আলোচনার ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর। ধারণাপত্রে নগর সরকারের রূপরেখা তুলে ধরে বলা হয়, মহানগরগুলোতে আইনের শাসন নিশ্চিত করতে হলে নগর ব্যবস্থার দিকে যেতে হবে। এক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকার ক্রমবর্ধমান নগরগুলোর জন্য একই আইন করতে পারে।

যে নগরে জনসংখ্যা ৫০ লাখ অতিক্রম করেছে, সেই নগরে নগর সরকার গঠন করা হবে। নগর সরকার হবে একটি পৃথক প্রশাসনিক কাঠামো। নগর সংসদ, নগর প্রশাসন ও নগর আদালত মিলে নগর সরকার গঠিত হবে।

মেয়র হবেন স্ব স্ব নগর সরকারের প্রধান। নগরীর সব সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান নগর সরকারের অধীনস্থ হবে। নগরীর ছোটখাটো অপরাধ নিষ্পত্তির জন্য একটি নগর আদালত রাখা যেতে পারে বলে এতে উল্লেখ করা হয়।

মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর বলেন, বর্তমানে সিটি কর্পোরেশনগুলোতে যে নির্বাচন হয় তা ত্রুটিপূর্ণ। ঢাকা মহানগরীতে দুই অংশে আটজন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। দুইজন মেয়র নির্বাচিত আটজন সংসদ সদস্যের নির্বাচনী এলাকার। যে কারণে একজন মেয়র প্রার্থীর পক্ষে এটা ব্যয়বহুল ও শ্রমসাপেক্ষ।

ধারণাপত্রে আরো বলা হয়, নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী যদি সারা দেশের প্রশাসনের প্রধান হতে পারেন, তাহলে নির্বাচিত মেয়র একটি নগরীর প্রধান হতে পারবেন না কেন? নগর সরকার ছাড়া মেয়র নির্বাচন করলে ভোটারদের প্রতি সুবিচার করা হয় না। কারণ, এখানকার মেয়র একজন ‘নিধিরাম সর্দার’।

আবুল মুকসুদ তার বক্তব্যে বলেন, বর্তমান ব্যবস্থানায় সিটি করপোরেশনের একজন মেয়র ‘নিধিরাম সর্দার’। নগরীর কোনো উন্নয়রমূলক কাজ না হলে তাকে দোষ দেওয়া যাবে না। কারণ, তার ক্ষমতা নেই।

স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন বলেন, বহু সংসদ সদস্যের সমপর্যায়ের মেয়রকে স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর কাছে জবাবাদিহি করতে হয়। এটা এক দুর্ভাগ্য। সমানভাবে উন্নয়ন করতে হলে ঢাকা শহরকে একটি ছাতার নিচে আনতে হবে।

স্থপতি ইকবাল হাবীব বলেন, নগর সরকারকে সাংবিধানিকভাবে স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তা কার্যকর হচ্ছে না। কেন্দ্রীভূত মানসিকতার কারণে নগর সরকার প্রকৃত অর্থে হচ্ছে না। মেয়র প্রার্থীদের বড় বড় প্রতিশ্রুতি আইনগতভাবে প্রবঞ্চনা ও প্রতারণা বলেও মনে করেন তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ