চিলমারীতে ভিজিডি কর্মসূচিতে চলছে হরিলুট

 
 

Oniহাবিবুর রহমান চিলমারী (কুড়িগ্রাম) : কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলার থানাহাট ইউনিয়ন সহ প্রায় সব ইউনিয়নে দুস্থ মহিলা উন্নয়ন (ভিজিডি) কর্মসূচিতে হরিলুটের অভিযোগ উঠছে। ২ থেকে ৩ হাজার টাকা ছাড়া মিলছে না ভিজিডি কার্ডের দেখা। সংশ্লিষ্টদের অবহেলা ও দূর্নীতির কারনে রমনা মডেল ইউনিয়নের সুবিধাভূগিরা প্রায় ৪ মাস থেকে চাল পাচ্ছেনা। শুধু তাই নয় উপজেলার সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য, সংশিষ্ট প্রতিনিধিদের অনিয়ম দুর্নীতির কারণে সরকারের গৃহীত গ্রামের দুস্থ মহিলা উন্নয়ন (ভিজিডি) প্রকল্প ভেস্তে যেতে বসেছে। অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ৬ ইউনিয়ন রানীগঞ্জে ৫২৩, নয়ারহাটে ৩৪০, রমনায় ৬৪০, চিলমারী ২৯০, অষ্টমীর চর ৪৮০ এবং থানাহাট ইউনিয়নে ৭০০জন ভিজিডি কার্ডধারী রয়েছে। এর মধ্যে রানীগঞ্জ, চিলমারী ও নয়ারহাট ইউনিয়নে সময় মতো বিতরন হলেও অজ্ঞাত কারনে থানহাট ও রমনা ইউনিয়নে ভিজিডি চাল/গম বিতরন বন্ধ থাকে। পরে কৌশল অবলম্বন করে থানাহাট ইউনিয়নে চলতি এপ্রিল মাসে তিন ধামে তিন মাসের চাল বিতরন করলেও রমনা মডেল ইউনিয়নে এখন পর্যন্ত অথ্যাৎ ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত চাল বিতরন করা হয়নি। এদিকে থানাহাট ইউনিয়নের একাধিক কার্ডধারী ব্যাক্তি নাম না জানা সর্তে জানান বাহে তোমরা বোঝেননা ট্যাকা ছাড়া কার্ড (ভিজিডি) পাওয়া যায়। তারা আরো বলেন সবাই ভায়ে ট্যাকার কথা শিকার করে না যদি কার্ড বাতিল হয়। কার্ড প্রাপ্ত দুস্থ মহিলারা জনপ্রতি প্রতিমাসে ৩০ কেজি চাল/গম বিতরন করার কথা কিন্তু এলএসডি’র বিধান অনুযায়ী ২৫ কেজি ৭শত গ্রাম বিতরন করার কথা থাকলেও এর স্থলে ২২/২৩ কেজি এমনকি তদারকি কর্মকর্তার অনুপস্থিতিতেই কৌশলে ২০ কেজি করে চাল বিতরন করা হয়েছে বলে জানান ভুক্তভূগীরা। ৩ নং ওয়াডের সুবিধাভোগী পাহিলা, জয়নব, ৮ নং ওয়ার্ডের সবুরা, নাছিমা, নুরনাহারসহ অনেকে বলেন বইয়ে লেখা অনুযায়ী ২৫কেজি ৭শত গ্রাম করে চাল দেওয়ার কথা থাকলেও ২জন মিলে আমাদেরকে দেওয়া হয় এক বস্তা (পঞ্চাশ কেজি) কিন্তু তা ওজন করলে দেখা যায় ওজনে গড়ে ৪৩ থেকে ৪৬ কেজি হচ্ছে। থানাহাট ইউপি চেয়ারম্যান হালিমুজ্জামান বাবলু চাল কম দেয়ার কথা অশিকার করে বলেন আমরা দুজন মিলে ৫০ কেজির এক বস্তা দিচ্ছি। আর চাল কমের ব্যাপারে বলেন এলএসডি থেকে চাল কম দিলে আমরা কি করবো আমরা যে ভাবে চাল নিয়ে আসি ঐ ভাবে বিতরন করি। এসময় উপস্থিত অনেকে মন্তব্য করেন চেয়ারম্যানের কথা মতো ২৫ কেজি বিতরন করলেও উপরে বাকি ৭শত গ্রাম চাল করে ৩ মাসের প্রায় ১৫শত কেজি চাল গেল কার পেটে। অপর দিকে সকল ইউনিয়নের ভিজিডি কার্ডধারীরা চাল পেলেও প্রায় ৪ মাস অতিবাহিত হলেও অজ্ঞাত কারনে রমনা ইউনিয়নের সুবিধাভূগীরা চাল ও কার্ড না পেয়ে হতাশায় ভূগছেন। বিষয়টি নিয়ে রমনা ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে একাধিক বার যোগাযোগ এবং তার মুঠোফোন ০১৯৮৬৯৫৯২৪৮, ০১৯৪৪৩৬৬৬০৮ নাম্বারে চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।
মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মোছাঃ সখিনা বেগম বলেন, অতিসত্তর রমনা ইউনিয়নের সমস্যা সমাধান করা হবে। আর চাল কম দেয়ার বিষয়টি আমার নজরে নেই, কেউ অভিযোগ করলে তদন্ত স্বাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আসলাম মোল্লার সাথে মুটোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। উপজেলা খাদ্যে নিয়ন্ত্রক বলেন গোডাউন থেকে সঠিকভাবে চাল দেয়া হয়। ওজন দেখে চেয়ারম্যানরা ডিওতে স্বাক্ষর করে থাকেন।

Print Friendly, PDF & Email