• শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৪৪ অপরাহ্ন |

সিটি নির্বাচনের মাঠে তারকারা

downloadসিসি ডেস্ক: মেয়র নির্বাচনের জোর প্রচারণা চলছে। ভোটারদের আকৃষ্ট করার শেষ মুহূর্তের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। আর এ জন্য প্রার্থীরা তারকাদেরও সঙ্গে রাখছেন। প্রিয় তারকারা যার যার পছন্দের প্রার্থীর সঙ্গে নির্বাচনী প্রচারণায় যোগ দিচ্ছেন। রাস্তা-পাড়া-মহল্লায় শুধু ঘুরছেন তাই নয়, ফেসবুকেও তারা প্রচারণা চালাচ্ছেন। তবে প্রচারণায় ঢাকা দক্ষিণের প্রার্থীদের থেকে ঢাকা উত্তরের প্রার্থীদের সঙ্গে তারকাদের অংশগ্রহণ বেশি। আনিসুল হক, তাবিথ আউয়াল এবং জোনায়েদ সাকির নির্বাচনী প্রচারণায় তারকাদের বেশি দেখা যাচ্ছে। আনিসুল হকের প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন এ টি এম শামসুজ্জামান, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, মাসুম আজীজ, আফরোজা বানু, ঝুনা চৌধুরী, তারানা হালিম, শহিদুল আলম সাচ্চু, আহসানুল হক মিনু, শাহরিয়ার নাজিম জয়, তমালিকা কর্মকার, মমতাজ, বাঁধনসহ আরও অনেকে। মেয়র প্রার্থীর প্রচারণায় ঝাড়ুু হাতে সবাই রাস্তায় নেমেছিলেন। ‘স্বচ্ছ ঢাকা’ স্লোগান নিয়ে তারা ভোটারদের কাছে ভোট চেয়েছেন। পাশাপাশি তাকে জোরালো সমর্থন দিয়েছেন নায়করাজ রাজ্জাক। তিনি বলেন, ‘আনিসুল হক একজন ভালো মানুষ। তার মধ্যে শিল্পী সত্তা আছে। তাই তিনি বিজয়ী হলে ঢাকা অনেক সুন্দর হবে’। নির্বাচনী প্রচারণা প্রসঙ্গে অভিনেতা জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘আমি একজন শিল্পী। আনিসুল হকেরও শিল্পী সত্তা আছে, টিভি ব্যক্তিdownload (1)ত্ব ছিলেন তিনি। আমাদের কিছু চাওয়া ছিল মেয়র পদপ্রার্থীর কাছে। পরিচ্ছন্ন ঢাকা, যানজট মুক্ত ঢাকা, মুক্ত ফুটপাত- প্রভৃতি নিয়ে আমাদের কাছে ওয়াদা করেছেন তিনি।’ একই প্রসঙ্গে তমালিকা কর্মকার বলেন, ‘আনিসুল হক তো আমাদেরই একজন। তার চিন্তা আমার ভালো লেগেছে। তাই তার সঙ্গে আছি।’ এ টি এম শামসুজ্জামান বলেন, ‘আনিসুল হক প্রার্থী হিসেবে আমার পছন্দের। আমার মনে হয়েছে তিনি নির্বাচিত হলে ঢাকার উন্নয়ন হবে। আমরা আধুনিক শহর পাব। তাই তার প্রচারণায় অংশ নিয়েছি’। মমতাজ শুধু ভোটই চাননি। তিনি ভোটারদের গান গেয়েও শুনিয়েছেন। তবে তার প্রচারণা শুধু আনিসুল হকে পক্ষেই নয়, সাঈদ খোকনের পক্ষেও। মমতাজ বলেন, ‘নির্বাচন নিয়ে দুটি গান তৈরি করেছি। এ গান দিয়েই প্রচারণা চালাচ্ছি। ভোটারদের আকৃষ্ট করছি।’

এদিকে তাবিথ আউয়ালের প্রচারণায় আনিসুল হকের মতো বেশি তারকার অংশগ্রহণ দেখা যায়নি। হাতেগোনা দু’একজন তার সঙ্গে ছিলেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেন কণ্ঠশিল্পী শাফিন আহমেদ, মনির খান এবং গীতিকার মাজহারুল আনোয়ার। তারা নিয়মিত তাবিথ আউয়াKISU-GOLPO-KISU-GAAN-7ল ও মির্জা আব্বাসের পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছেন। তবে শাফিন আহমেদের ভাবনায় শুধু তাবিথ আউয়াল। তিনি বলেন, ‘তাবিথ নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধি। উন্নয়নের জন্য তাকে ভোট দিলে ভালো হবে। আমি নির্বাচন উপলক্ষে দুটি গানও তৈরি করেছি’। এদিকে মনির খান বলেন, ‘আমি রাজনৈতিকভাবে বিএনপির সমর্থক। আর তাই মির্জা আব্বাস এবং তাবিথ আউয়ালের সঙ্গে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছি। সচেতন নাগরিক হিসেবে সবারই উচিত তাদের সমর্থন জানানো। সাংস্কৃতিকভাবেই আমরা প্রচারণা চালাচ্ছি। গান তৈরি করে পিকআপে করে নানা জায়গায় যাওয়া হচ্ছে। কালচারাল মুভমেন্টের মাধ্যমেই জনগণের কাছাকাছি আছি।’

তাবিথ আউয়াল আরেক মেয়র প্রার্থী আনিসুল হকের মতো তারকা সমাবেশ ঘটাতে না পারলেও এদিক থেকে এগিয়ে আছেন জোনায়েদ সাকি। তিনি বেশ ভালোভাবেই তারকা সমাবেশ ঘটিয়েছেন। তার সঙ্গে নির্বাচনী প্রচারণায় নিয়মিত অংশ নিচ্ছেন কৃষ্ণকলি ইসলাম, বন্যা মির্জা, মাকসুদ, অমিতাভ রেজা, অরূপ রাহী, সামিনা লুৎফা নিত্রাসহ বিভিন্ন মঞ্চকর্মী। নির্বাচনী প্রচারণা উপলক্ষে বন্যা মির্জা বলেন, ‘আমাদের রাজনীতির উন্নয়ন প্রয়োজন। আর এ জন্য তরুণ কাউকে বেছে নিতে হবে, যিনি রাজনীতি বোঝেন।’ কৃষ্ণকলি 52262e5f440fd-Untitled-14বলেন, ‘আমি জোনায়েদ সাকিকে চিনি। তার মধ্যে কোনো ভাওতাবাজি নেই। সব খোলা বইয়ের মতো উন্মুক্ত। আর প্রার্থী হিসেবে সে যথেষ্ট যোগ্য। তাই আমার পূর্ণ সমর্থন রয়েছে তার প্রতি। রাজনীতির গুণগত মান পরিবর্তনেও তাকে জরুরি।’ মাকসুদ বলেন, ‘আমাদের চাই নতুন নেতৃত্ব, চাই নেতৃত্বে তারুণ্য। যেমন জোনায়েদ সাকি। এত বছর ধরে রাজনীতিবিদরা আমাদের হতাশ করেছে শুধু। আর হতাশা চাই না। জোনায়েদ সাকিকে আমি খুব কাছ থেকে জানি। তিনি একজন খেটে খাওয়া মানুষ। সব শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্যই তার অকৃত্রিম মমতা। আর এই মমত্বই সঠিক নেতৃত্ব দেবে।’ উৎস: বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ