• শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৭:২৯ অপরাহ্ন |

বালুর ট্রাক

item2-1420761226আহসান হাবীব || দেশের রাজনীতিতে নতুন একটা বিষয় ঢুকেছে। সেটা হচ্ছে বালুর ট্রাক। বিরোধী দলের প্রধানকে বালুর ট্রাক দিয়ে  অবরুদ্ধ করে রাখা। এই ট্রাক কেন এসেছে, কারা এনেছে কেউ জানে না। পুলিশের মুখ বন্ধ। ট্রাকের ড্রাইভার, হেল্পার তাদের  মুখও বন্ধ! সাংবাদিকরা বার বার প্রশ্ন করছে কিন্তু কেউ জানে না কীভাবে কেন এই বালুর ট্রাক এখানে এলো? কেনই বা এলো? বালুর ট্রাক সরানোও যাচ্ছে না। কি জ্বালা!  দেশে এতো আইন কিন্তু বালুর ট্রাক সরানোর কোনো আইন নেই যেন!

সেন্ট মার্টিন গিয়েছিলাম বেড়াতে। কক্সবাজার, টেকনাফ, সেন্টমার্টিন সব বিচে বালি- সেটাই স্বাভাবিক। সমুদ্রে গোসল করে এসে হোটেলে ফিরেও দেখি বালি। সি বিচের বালি কি এতো সহজে যায়? প্যান্টে বালি, স্যান্ডেলে বালি, মানি ব্যাগেও দেখি বালি! ঢাকায় ফিরে এসেছি, তাও দেখি বালি; তবে ট্রাকে। টিভি খুলে দেখি  খবরেও বালি… মানে বালু … বালুর ট্রাক।
কক্সবাজার বেড়াতে গিয়ে এক ভদ্রলোকের স্ত্রীর চোখে বালি ঢুকেছে। বালি আর বের হয় না। শেষ পর্যন্ত চোখের ডাক্তারের কাছে ছুটতে হলো। অনেক কষ্টে বালি মুক্ত হলো চোখ কিন্তু হাজার টাকা বের হয়ে গেল স্বামীর। এই গল্প ঢাকায় ফিরে স্বামী তার এক বন্ধুকে বলল। সেই বন্ধুও কিছুদিন আগে বিয়ে করেছে অর্থাৎ সেও আরেক স্ত্রীর স্বামী। সেই আসামি মানে স্বামী
(শিবরামের ভাষায় সব স্বামীই নাকি আসামি) সব শুনে বলল, তোর বউয়ের চোখে বালি পড়ল বলেই হাজার টাকায় উদ্ধার পেলি, আমার যে দশ হাজার টাকা বেড়িয়ে গেল!
: মানে! কীভাবে?
: ওই যে, তোর বউয়ের চোখে যেদিন বালি পড়ল, আমার বউয়ের চোখে সেদিন পড়ল একটা জামদানি শাড়ি!

আবার বালুর ট্রাকে ফিরে আসি।
না বালুর ট্রাক না, বরং পাথরের ট্রাকে ফেরা যাক। এক লোক (সত্যি ঘটনা)  বন্ধু বান্ধবের পরামর্শে পাথরের ব্যবসায় নেমেছে। সিলেট থেকে প্রথম ট্রাক ভর্তি পাথরের চালান বুকিং দিয়েছে। ট্রাক ঢাকা পৌঁছলেই সেই পাথর বিক্রি করবে… লাভে লাভ! কিন্তু  তিন বছর হলো সেই ট্রাক এখনো ঢাকায় পৌঁছায়নি। সেই লোকের সন্দেহ হলো তবে কী সেই পাথরের ট্রাক এই তিন বছরে বালুর ট্রাক হয়ে বিরোধী দলের প্রধানের কার্যালয়ের সামনে উপস্থিত হয়েছে? কে জানে? সেই নব্য পাথরের ব্যবসায়ী এ বিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়েছিল কিনা জানা যায় নি! উট পাখি নাকি বালিতে মাথা গুঁজে রাখে। তারপর ভাবে তাকে কেউ  দেখছে না। আমাদেরও হয়েছে একই হাল। বালিতে মাথা গুঁজে ভাবি কেউ কিছু বুঝতে পারছে না!

বরং একটা গল্প ভাবা যাক।
এক দেশের রাজা মারা গেছে। রাজার পুত্র নেই। এখন কে রাজা হবে?  রাজার প্রবীণ উপদেষ্টারা  জরুরি বৈঠক ডেকে একটা সিদ্ধান্তে আসল, সেটা হচ্ছে রাজার রাজকীয় হাতিকে ছেড়ে দেয়া হবে। তারপর হাতি নিজে থেকে তার পিঠে যাকে উঠিয়ে নিয়ে আসবে সেই হবে দেশের রাজা। তাই করা হলো। ভোর বেলা রাজার হাতিশাল থেকে হাতি গলায় সোনার ঘণ্টা বাজিয়ে বের হয়ে গেল।

ওদিকে পাশের রাজ্যে ‘গজক্ষয় আর মুষিক বৃদ্ধি’ ঘটছিল। মানে এক হাতির ক্ষয় হচ্ছিল অর্থাৎ হাতি ছোট হচ্ছিল আর এক মুষিকের বৃদ্ধি ঘটছিল মানে ইঁদুর বড় হচ্ছিল। ফলে শূকরের মতো দেখতে অদ্ভুত দর্শন এক প্রাণীর সৃষ্টি হলো। ওদিকে হাতি এদিক ওদিক ঘুরে হয়রান হয়ে শেষ বেলায় সেই  ‘গজক্ষয় আর মুষিক বৃদ্ধি’  প্রকল্পের শূকরের মতো অদ্ভুত প্রাণীটাকে পিঠে করে নিয়ে  রাজ্যে ফিরে এলো। রাজ্যের লোকজন হায় হায় করে উঠল- এ কাকে পিঠে করে ফিরে এসেছে রাজকীয় হাতি?
এ হবে তাদের রাজা?
কী আর করা, শেষ পর্যন্ত তাকেই সিংহাসনে বসানো হলো।
ইতিহাস থেকে যেমন কেউ শিক্ষা গ্রহণ করে না। সেরকম গল্প থেকেও নয়।

এবার বরং গল্প, ইতিহাস থেকে বালুতে আসি।
কার্ল সেগান বলেছিলেন, পৃথিবীতে যত বালুকণা আছে মহাবিশ্বে তার চেয়েও বেশি নক্ষত্র রয়েছে। তাই যদি সত্যি হয়ে থাকে তাহলে মহাবিশ্বটা যে কত বিশাল তা কি আমরা কল্পনা করতে পারি?
আগেই বলেছি সেন্ট মার্টিনে বেড়াতে গিয়েছিলাম। সেখানে দেখেছি রাতের আকাশে কত বিলিয়ন ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন তারা। … আর সে তুলনায় এই ছায়াপথের এই সৌরজগতে দ্বিতীয় শ্রেণির ছোট্ট একটা গ্রহে আমরা মানুষেরা সত্যিই কতটা অকিঞ্চিতকর! তারপরও লোভ, লালসা ঘিরে আমাদের কত না আয়োজন!

এক ছোট্ট বাচ্চা তার বাবাকে প্রশ্ন করল, বাবা এই পৃথিবীতে সবচেয়ে শক্তি বেশি কার?
বাবা বলল, তুমিই ভেবে বের কর।
: আমার মনে হয় হাতির। কত বড় দেখতে!
: কিন্তু ওরকম চারটা হাতিকে পিঠে নিয়ে সমুদ্রে দিব্যি সাঁতরাতে পারে একটা নীল তিমি।
: তাহলে নীল তিমিরই সবচেয়ে বেশি শক্তি?
: কিন্তু ঐ রকম একটা নীল তিমিকে ডকের ক্রেন দিব্যি টেনে তুলতে পারে উপরে।
: তাহলে তো ক্রেনের শক্তিই বেশি!
: একটু ভাবো, ঐ ক্রেনটা চালায় কে?
: কে?
: কেন মানুষ, একটা মাত্র মানুষ!
সত্যি একটা মানুষের কত শক্তি। অবশ্য মানুষটা যদি সত্যিই ‘মানুষ’ হয়ে থাকে!

সংগৃহিত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ