• শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩৪ অপরাহ্ন |

তিন সিটির দায়িত্বভার আ.লীগের হাতেই

1430242576সিসি নিউজ: দেশের প্রধান দুই বড় রাজনৈতিক দলের গ্রহণ-বর্জন ও সমালোচনার মধ্য দিয়ে ঢাকা দক্ষিণ, উত্তর ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন শেষ হয়েছে। তিন সিটির দায়িত্বভার এখন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদের হাতে। মঙ্গলবার এ সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত তিন প্রার্থী সাঈদ খোকন (ঢাকা দক্ষিণ), আনিসুল হক ( ঢাকা উত্তর) ও চট্টগ্রামে আ জ ম নাছির জয়লাভ করেন।

মূল প্রতিদ্বন্দ্বি তাবিথ আউয়ালের নির্বাচন বর্জন, দিনভর জালভোটের মহোৎসব আর বিলম্বিত ফলাফল ঘোষণা-সবকিছুকে পাশ কাটিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রথম নগরপিতা নির্বাচিত হয়েছেন আনিসুল হক।

বুধবার ভোর পৌনে ৭টার সময় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অবস্থিত রিটার্নিং অফিসার মো. শাহ আলম ফলাফল ঘোষণা কেন্দ্র থেকে বেসরকারিভাবে আনিসুল হককে উত্তরের মেয়র হিসেবে ঘোষণা করেন।

টেবিল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা আনিসুল হক উত্তর সিটির ১ হাজার ৯৩ কেন্দ্র থেকে মোট ভোট পেয়েছেন ৪ লাখ ৬০ হাজার ১১৭টি। তার নিকটতম প্রতিন্দ্বন্দ্বি ছিলেন বাস প্রতীকের বিএনপি সমর্থিত তাবিথ আউয়াল। মঙ্গলবার দুপুরে ভোট বর্জন ও রাতে পুনঃনির্বাচনের দাবি জানানো তাবিথ পেয়েছেন ৩ লাখ ২৫ হাজার ৮০টি ভোট।

আর ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছেন ইসলামি শাসনতন্ত্র আন্দোলনের শেখ মো. ফজলে বারী মাসউদ; তার প্রাপ্ত ভোট ১৮ হাজার ৫০ ভোট। এরপর ভোটের হিসেব অনুযায়ি পর্যায়ক্রমে রয়েছেন, বিকল্পধারার মাহী বদরুদ্দোজা চৌধুরী; তার প্রাপ্ত ভোট ১৩ হাজার ৪০৭, গণসংহতির জোনায়েদ আব্দুর রহিম সাকির (জোনায়েদ সাকি) প্রাপ্ত ভোট সাত হাজার ৩৭০, জাতীয় পার্টির বাহাউদ্দিন আহমেদ বাবুল পেয়েছেন দুই হাজার ৯৫০ ভোট।

উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে নির্বাচন করছেন ১৬ জন। অপরাপর প্রার্থীদের প্রাপ্ত ভোট – সিপিবি-বাসদ সমর্থিত আব্দুলাহ আল ক্বাফি (কাফী রতন) হাতি প্রতীকে পেয়েছেন দুই হাজার ৪৭৫, কে ওয়াই এম কামরুল ইসলাম ক্রিকেট ব্যাট প্রতীকে পেয়েছেন এক হাজার ২১৬, কাজী মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ ইলিশ মাছ প্রতীকে দুই হাজার ৯৬৮, চৌধুরী ইরাজ আহমেদ সিদ্দিকী লাউ প্রতীকে ৯১৫, নাদের চৌধুরী ময়ুর প্রতীকে এক হাজার ৪১২, মোয়াজ্জেম হোসেন খান মজলিস ফ্লাক্স প্রতীকে এক হাজার ৯৫, আনিসুজ্জামান খোকন ডিস এন্টেনা প্রতীকে নয়শ’, মো. জামাল ভূঁইয়া টেবিল প্রতীকে এক হাজার ১৪০, শামসুল আলম চৌধুরী চিতা বাঘ প্রতীকে ৯৮২ এবং শেখ শহীদুজ্জামান দিয়াশলাই প্রতীক ৯২৩ ভোট।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন ৩৬টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ১২টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ২৩ লাখ ৪৫ হাজার ৩৭৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১২ লাখ ২৪ হাজার ৭০১ জন ও নারী ভোটার ১১ লাখ ২০ হাজার ৬৭৩ জন। উত্তরে ১ হাজার ৯৩টি ভোটকেন্দ্রে ৫ হাজার ৮৯২টি ভোটকক্ষে মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়।

প্রিসাইডিং অফিসার জানিয়েছেন, মোট বৈধ ভোট পড়েছে আট লাখ ৪১ হাজার। অন্যদিকে ভোট বাতিল হয়েছে ৩৩ হাজার ৫৮১টি ভোট। উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে নির্বাচন করছেন ১৬ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৮১ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৮৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

মনোনয়নপত্র কেনার আগ থেকেই আনিসুল হক ছিলেন সংবাদের শিরোনামে। ঢাকা উত্তরের প্রায় ৭৬ হাজার নাগরিকের সমস্যা চিহ্নিত করতে জরিপও করেন তিনি। সেই জরিপের ভিত্তিতে তিনি তার নির্বাচনী স্লোগান নির্ধারণ করেন ‘সমস্যা চিহ্নিত-এবার সমাধানযাত্রা’। একই সঙ্গে তিনি ঢাকাকে আধুনিক ও মানবিক নগরী হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

আনিসুল হকের ছয় প্রতিশ্রুতির মধ্যে আছে ১.পরিচ্ছন্ন সবুজ পরিবেশবান্ধব ঢাকা। ২. নিরাপদ স্বাস্থ্যকর ঢাকা। ৩. সচল ঢাকা। ৪. মানবিক ঢাকা। ৫. স্মার্ট ঢাকা ও ৬. অংশগ্রহণমূলক সুশাসিত ঢাকা।

এছাড়া দীর্ঘ প্রায় দুই যুগ পরে পিতার চেয়ারে বসতে যাচ্ছেন অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের প্রয়াত মেয়র মোহাম্মদ হানিফের ছেলে সাঈদ খোকন।

মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত নানা অনিয়ম অভিযোগ ও বর্জনের মধ্যে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। গণনা শেষে বুধবার ভোর ৫টা ২০ মিনিটের দিকে সাঈদ খোকনকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে বিজয়ী ঘোষণা করেন রিটার্নিং অফিসার মিহির সরোয়ার।

আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী সাঈদ খোকন ইলিশ মাছ প্রতীকে ৫ লাখ ৩৫ হাজার ২৯৬ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হয়েছেন বিএনপি সমর্থিত মির্জা আব্বাস। তিনি পেয়েছেন ২ লাখ ৯৪ হাজার ২৯১ ভোট। অবশ্য তার পক্ষে স্ত্রী আফরোজা আব্বাস মঙ্গলবার দুপুরের দিকে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

তবে যাই হোক, ২ লাখ ৪৫ হাজার ৫ ভোটের ব্যবধানে আব্বাসকে হারিয়ে জয়ের মুকুট পরলেন সাঈদ খোকনই। যে মুকুট মাথায় নিয়ে ১৯৯৪ সালে অবিভক্ত সিটি করপোরেশনের প্রথম মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেন তার বাবা মো. হানিফ। মেয়র হিসেবে তার সুনামও রয়েছে।

ফল ঘোষণার পর সাঈদ খোকন বাংলামেইলকে বলেন, ‘আমি যেভাবে ছিলাম, সেই সাঈদ খোকনই থাকবো। সিটি করপোরেশনের দরজা সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। এ প্রতিষ্ঠান সব সময় ঢাকাবাসীর সেবায় নিয়োজিত থাকবে।’

তিনি বলেন, ‘সুষ্ঠু, অবাধ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হয়েছে। এখন থেকে আমার প্রয়াত পিতা মোহাম্মদ হানিফ যেভাবে মানুষের জন্য সুখে-দুঃখে জীবন উৎসর্গ করে গেছেন, আমিও বাবার মতো মানুষের সুখে দুঃখে নিজেকে উৎসর্গ করবো।’

এদিকে সাঈদ খোকন ও মির্জা আব্বাস ছাড়া অন্য ১৮ মেয়রপ্রার্থীদের মধ্যে- আবু নাছের মোহাম্মদ মাসুদ হোসাইন (চরকা) ২ হাজার ১৯৭, এ এস এম আকরাম (ক্রিকেট ব্যাট) ৬৮২, আয়ুব হোসেন (ঈগল) ৩৫৪, আসাদুজ্জামান রিপন (কমলা লেবু) ৯২৮, দিলীপ ভদ্র (হাতি) ৬৫৯, বাসদের বজলুর রশীদ ফিরোজ (টেবিল) ১ হাজার ২৯, মশিউর রহমান (চিতা বাঘ) ৫০৮, শফিউল্লাহ চৌধুরী (ময়ূর) ৫১২, জাতীয় পার্টির সাইফুদ্দিন মিলন (সোফা) ৪ হাজার ৫১৯ ভোট, সাংবাদিক মো. আকতারুজ্জামান ওরফে আয়াতুল্লাহ (লাউ) ৩৬২, আব্দুর রহমান (ফ্লাস্ক) ১৪ হাজার ৭৮৪, সাংবাদিক গোলাম মওলা রনি (আংটি) ১ হাজার ৮৮৭,   রেজাউল করিম চৌধুরী (টেবিল ঘড়ি) ২ হাজার ১৭৩, আব্দুল খালেক (কেক) ৫৫০, জাহিদুর রহমান (ল্যাপটপ) ৯৮৮ ও বাহরানে সুলতান বাহার (শার্ট) ৩১২, শাহীন খান (জাহাজ) ২ হাজার ৭৪ ও শহীদুল ইসলাম (বাস) ১ হাজার ২৩৯ ভোট পেয়েছেন।

৯৩টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। এর মধ্যে ৫৭টি ওয়ার্ড রয়েছে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে। এতে মোট ভোটার সংখ্যা ১৮ লাখ ৭০ হাজার ৭৫৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১০ লাখ ৯ হাজার ২৮৬ জন এবং নারী ভোটার রয়েছেন ৮ লাখ ৬১ হাজার ৪৬৭।

অন্যদিকে, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের পঞ্চম মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দীন। বেসরকারি ফলাফলে প্রায় ২ লাখ ভোটের ব্যাবধানে সাবেক মেয়র বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এম মনজুর আলমকে হারিয়ে হাতি প্রতীকে তিনি মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে স্থাপিত অস্থায়ী ১৪টি কেন্দ্র থেকে চূড়ান্তভাবে ঘোষিত ফলাফলে মোট ৭১৯টি কেন্দ্রের সবকটিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আ জ ম নাছির উদ্দীন পেয়েছেন ৪,৭৫,৩৬১ ভোট এবং তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত মনজুর আলম কমলালেবু প্রতীকে পেয়েছেন ৩,০৪,৮৩৭ ভোট।

রাত ৩টা ২০ মিনিটে নাছির উদ্দীনকে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করেন চট্টগ্রামের রিটার্নিং অফিসার আব্দুল বাতেন।

আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগে আব্দুল বাতেন বলেন, ‘এ নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী সকল প্রার্থী, নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সহযোগিতাকারী সরকারি-বেসরকারি সংস্থা, আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী, সাংবাদিকসহ সবাইকে ধন্যবাদ। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। এতে বিশৃঙ্খলা কিংবা রক্তপাতের মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি।’

নতুন মেয়র সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘নগরবাসী তাদের প্রত্যাশা পূরণে যোগ্য নগরপিতা নির্বাচিত করেছেন। আমরা আশা করি তিনি নগরবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করবেন। সেই সঙ্গে চট্টগ্রাম মেগাসিটিকে বাংলাদেশ তথা বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরবেন।’

তিনি জানান, চট্টগ্রাম সিটিতে মোট ভোটার ছিল ১৮ লাখ ১৩ হাজার ৪৪৯। এর মধ্যে ৪১টি ওয়ার্ডে ভোট পড়েছে ৮ লাখ ৬৮ হাজার ৬৬৩টি। যেখানে বৈধ ভোট পড়েছে ৮ লাখ ২১ হাজার ৩৭১টি, আর ত্রুটিপূর্ণ ভোট ছিল ৪৭ হাজার ২৯২টি। ভোটগ্রহণের হার ছিল ৪৭ দশমিক ৯০।

মনজুর আলমের নির্বাচন বয়কটের ব্যাপারে নাছির বলেন, ‘বিএনপির প্রার্থী মনজুর পরাজয় বুঝতে পেরে নির্বাচন বর্জন করেছেন ও জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন।’

এর আগে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ, ভোট কারচুপি, নানা অনিয়ম ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মনজুর আলমসহ বেশ কয়েক মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থীর নির্বাচন বর্জনের মধ্য দিয়ে মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ চলে বিরতিহীনভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এবার মেয়র পদে লড়েন ১২ প্রার্থী। তবে কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচন বয়কট করেন বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মনজুর আলম, ইসলামিক ফ্রন্ট সমর্থিত প্রার্থী এম এ মতিন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ওয়ায়েজ হোসেন ভূঁইয়া।

এর মধ্যে সরকার দলীয় প্রার্থীর সমর্থকদের বিরুদ্ধে সকাল থেকে বারবার কেন্দ্র দখল ও ভোট চুরির অভিযোগ এনে প্রতিকার না পেয়ে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চূড়ান্তভাবে নির্বাচন বর্জন করার ঘোষণা দেন সাবেক মেয়র মনজুর আলম। একই সঙ্গে রাজনীতি থেকেও অবসরে যাওয়ার ঘোষণা দেন বিএনপি চেয়ারপারসনের এই উপদেষ্টা।

বেলা সাড়ে ১১টায় নগরীর দেওয়ানহাটে চট্টগ্রাম উন্নয়ন আন্দোলনের প্রধান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে মনজুর এ ঘোষণা দেন।

সংবাদ সম্মেলনে মনজুর আলম বলেন, ‘চট্টগ্রামের ৮০ শতাংশ কেন্দ্র আওয়ামী লীগ ক্যাডাররা দখল করে নিয়েছে। এখানে নির্বাচনের কোনো পরিবেশ নেই। ভোট কেন্দ্রে আমাদের কোনো এজেন্টকে ঢুকতে দেয়া হয়নি। আমাদের কর্মী সমর্থকদের ওপর হামলা করা হয়েছে। তাই বাধ্য হয়ে এই নির্বাচন বর্জন করছি।’

আওয়ামী লীগ পরিবার থেকে উঠে আসা শিল্পপতি মনজুর হঠাৎ করেই রাজনীতি থেকে অবসর নেয়ার ঘোষণা দিয়ে বলেন, ‘আমি আর রাজনীতি করবো না। তবে সমাজ সেবা চালিয়ে যাবো। যারা এতোদিন আমার পাশে ছিলেন তাদের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা।’

এদিকে, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অন্য প্রার্থীদের মধ্যে জাতীয় পার্টি সমর্থিত মো. সোলায়মান আলম শেঠ ডিশ এন্টিনা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৬ হাজার ১৩১ ভোট, এম. এ. মতিন চরকা প্রতীকে ১১ হাজার ৬৫৫ ভোট, আরিফ মইনুদ্দীন বাস প্রতীকে ১ হাজার ৭৭৪ ভোট, মোহা. শফিউল আলম ইলিশ মাছ প্রতীকে ৬৮০ ভোট, মো. আবুল কালাম আজাদ দিয়াশলাই ১ হাজার ৩৮৫ ভোট, মো. আলাউদ্দিন চৌধুরী টেলিস্কোপে ২ হাজার ১৫৯, মো. ওয়ায়েজ হোসেন ভুইয়া টেবিল ঘড়ি নিয়ে ৯ হাজার ৬৬৮, সাইফুদ্দিন আহমেদ (রবি) ফ্লাক্স প্রতীকে ২ হাজার ৬৬১, সৈয়দ সাজ্জাদ জোহা ৮৪৫ ভোট পেয়েছেন ক্রিকেট ব্যাট নিয়ে, হোসাইন মুহাম্মদ মুজিবুল হক ময়ূর প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ২১৫ ভোট।

বিতর্কিত এ তিন সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কথিত জয়ের পর এখন দেখার বিষয় নির্বাচিত প্রার্থীরা তাদের প্রতিশ্রুতি কতটুকু রক্ষা করে সেটাই দেখার বিষয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ