• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৪৯ পূর্বাহ্ন |

রাজনীতি ছাড়ার সিদ্ধান্তে অটল মনজুর

Monjurসিসি ডেস্ক: আমৃত্যু সমাজসেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখবেন সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম। তবে রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তে অটল বিএনপি চেয়ারপারসনের এই উপদেষ্টা।
তিনি বলেন, ‘আমি সমাজসেবায় ছিলাম। সেখান থেকে রাজনীতিতে জড়িত হয়েছিলাম। কিন্তু এখন সিদ্ধান্ত নিয়েছি রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকবো না। রাজনৈতিক কোন অনুষ্ঠানেও যাবো না।’
রাজনীতি ত্যাগ করায় দলের সঙ্গে এখন তার কোন সম্পৃক্ততা নেই বলেও মন্তব্য করেছেন মনজুর।
ধনাঢ্য ব্যবসায়ী হলেও মানবসেবা ছিল তাঁর জীবনের বড় পুঁজি।পারিবারিকভাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। নিজ এলাকা থেকে তিনবার ওয়ার্ড কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন। টানা ৩২বার ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছেন। রাজনীতির ম্যারপ্যাঁচে পড়ে গাটছড়া বাঁধেন বিএনপির সঙ্গে।২০১০ সালে বিএনপি সমর্থন নিয়ে চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন। এরপর তাকে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা করা হয়।
সদ্য সমাপ্ত চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনেও দলের সমর্থন নিয়ে ভোটের লড়াইয়ে নামেন মনজুর আলম। একজন মানবসেবী ও ভালো মানুষ হিসেবে আবারো মেয়র নির্বাচিত হবেন এমনটাই ধারণা ছিল নগরবাসীর। কিন্তু মঙ্গলবার ভোট শুরুর তিনঘণ্টা পর কেন্দ্র দখল, এজেন্ট বের করে দেওয়ার অভিযোগ তুলে নির্বাচন বর্জন করেন। একই সঙ্গে রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা দেন তিনি।
বয়স এবং শারীরিক সমস্যার কারণে দলে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকতে পারেননি বলে স্বীকার করেছেন নিজেই। তবে পরোক্ষভাবে দলের জন্য করেছেন অনেক। বিগত পাঁচ বছরে দলের বিভিন্ন কার্যক্রমে তার অবদান কী তা দলের লোকজনই সবচেয়ে বেশি জানেন। ফলে মনজুর আলমের হঠাৎ করে রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণায় বিভিন্ন মহলে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
বিএনপি নের্তৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের মেয়র প্রার্থী হলেও নির্বাচনে জোটের সক্রিয় ভূমিকা কী? সামনে এসেছে সেই প্রশ্নটি।মনজুর আলমের ঘনিষ্টজনদের অভিযোগ, জোটের নেতা-কর্মীরা সক্রিয় ভূমিকা রাখেনি।
তবে বিএনপি নেতাদের দাবি ‘নির্বাচনের কয়েকদিন আগে থেকেই সক্রিয় নেতা-কর্মীদের আটক করছে পুলিশ।পুলিশের সহযোগিতায় ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের বাড়িতে গিয়ে হুমকি-ধমকি দিয়েছে। ’
এমন অজুহাত মানতে নারাজ মনজুর আলমের ঘনিষ্টজনেরা।তারা বলছেন, ভোট কেন্দ্রে যাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তারা যথাযথভাবে পালন করেনি। এমনকি বিএনপি নেতারাও সঠিক দায়িত্ব পালন করেনি।
দলের উপর কোন ধরণের ক্ষোভ থেকে রাজনীতি ছাড়ছেন না জানিয়ে মনজুর আলম বলছেন, দল বা অন্য কারো উপর আমার ক্ষোভ নেই। বয়স ও শারীরিক কারণেই মূলত রাজনীতি থেকে সরে আসার সিদ্ধান্ত।
তিনি বলেন,‘আমার বয়স এখন ৬৩ বছর। মানুষের এলপিআরের বয়স ৫৯। যে কোন কিছু করার জন্য মানুষের একটা বয়স থাকে। আমিতো একটা পর্যায়ে পৌঁছেছি।’
রাজনীতিতে এখন তরুণরা এগিয়ে আসবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তরুণরা রাজনীতি করবেন, দেশ গড়ার মধ্যে থাকবেন। আমি সমাজ সেবায় থাকবো। সেবার পরিধি আরো বাড়াবো।
সমাজকর্মী ছিলাম, থাকবো: 
নিজেকে একজন সমাজকর্মী আখ্যায়িত করে মনজুর আলম বলেন, সমাজ সেবায় নিয়োজিত ছিলাম। সেখান থেকে রাজনীতিতে জড়িত হয়েছি। প্রত্যক্ষভাবে রাজনীতিতে ছিলাম না। কর্মসূচিতে অংশ গ্রহণও করতে পারিনি। তবে রাজনীতির সঙ্গে আর জড়িত থাকবো না।
তিনি বলেন,‘সমাজ সেবা ছিলাম, থাকবো। সমাজে যে সম্পৃক্তা আছে তা অব্যাহত রাখবো। যতোদিন বেঁচে আছি মানুষের সেবা করবো। সেজন্য আমাদের ৪০টি সংগঠন আছে্।যেখান থেকে ডাক আসবে সেখানে যাব।’
তবে রাজনৈতিক কোন অনুষ্ঠানে ডাকলেও আর যাবেন না বলে সাফ জানিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, রাজনীতি করার অনেক লোক আছে। আমি চলে যাচ্ছি বলে এ পদ খালি থাকবে না। সেখানে অন্য কেউ আসবে। কিন্তু সমাজ সেবার লোকের অভাব আছে।
‘রাজনীতি ত্যাগ করেছি তাই দলের সঙ্গে আমার কোন সম্পৃক্ততা নেই।’

উত্তরসুরিদের ট্রেনিং দিচ্ছি:
তরুণ রাজনীতিক হিসেবে উত্তরসুরি কেউ রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হবে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে মনজুর আলম বলেন, আমার উত্তরসুরি এখনো উপযুক্ত হয়ে উঠেনি। তাদের রাজনীতি করার বয়স হয়নি।
তিনি বলেন, রাজনীতিতে জড়িত হওয়ার আগে সমাজ সেবায় ট্রেনিং দিচ্ছি। রাজনীতি করতে হলে সামাজিক কর্মকাণ্ড লাগবে। তাই আমার উত্তরসুরি যারা আছে তাদের আমি সামাজিক কর্মকাণ্ডে যুক্ত করছি।
‘সমাজ সেবায় অবদান রেখে যোগ্য হতে পারলে তখন আল্লাহ নির্ধারণ করে দেবেন। এখন আমি তাদের কিছু করতেও চাই না বলতেও চাই না। আগে তারা সামাজিক কর্মকান্ড করুক।তাদের রাজনীতির সময় এখনো আসেনি।’
সমাজ সেবায় যারা নিয়োজিত থাকে তাদের উৎসাহ দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে থাকাটাই বড় কথা।
ভূমিকম্পে নেপালের দুর্যোগের বিষয় তুলে ধরে মনজুর আলম বলেন, সামর্থ থাকলে আমি সেখানে ত্রাণ সামগ্রি নিয়ে যেতাম। সামর্থবানদের তাদের পাশে দাঁড়ানো উচিত। উৎস: বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ