• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৪৭ পূর্বাহ্ন |

ডোমারে সাংবাদিকদের কলম বিরতী

Nilphamari Picডোমার প্রতিনিধি: গত বছরের ৫জানুয়ারীর সংসদ নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে সহিংসতার মামলায় নীলফামারীর ডোমার উপজেলার দুই সাংবাদিকের নাম অন্তর্ভূক্তির প্রতিবাদে কলম বিরতী কর্মসূচি পালন করেছে উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা।
শনিবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত ডোমার বাজার রেলঘুন্টি মোড়ে ডোমার উপজেলার সাংবাদিকবৃন্দের ব্যানারে তিন ঘন্ট্যাবাপী ওই কর্মসূচি পালিত হয়।
মামলা থেকে দুই সাংবাদিকের নাম প্রত্যাহার ও ডোমার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেন এবং মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মিজানুর রহমানের অবিলম্বে অপসারণ দাবি করা হয় ওই কর্মসূচি থেকে। এর আগে গত ২৯ এপ্রিল সকালে একই দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।
সাংবাদিকদের অভিযোগ, ডোমার থানা পুলিশের বিভিন্ন অনিয়ম-দূর্ণীতির সংবাদ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এতে পুলিশ ক্ষুদ্ধ হয়ে ডোমার থানা পুলিশ প্রেসক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক ইত্তেফাকর ডোমার প্রতিনিধি এবং বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) নীলফামারী প্রতিনিধি মোজাফ্ফর আলী এবং  তাঁর চেলে  ডোমার প্রেসক্লবের দপ্তর  সম্পাদক ও অনলাইন পত্রিকা রাইজিং বিডির প্রতিনিধি ইয়াসিন মোহাম্মদ সিথুনের নামে গত বছরের ৫ জানুয়ারীর সংসদ নির্বাচনে উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের বড়গাছা দরগাপাড়া মাদ্রাসা ভোট কেন্দ্রে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের মামলায় জড়িয়ে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেছে। সেদিনের ওই সহিংসতার ঘটনার সঙ্গে ওই দুই সাংবাদিকের কোন সংশ্লিষ্টা নেই। শুধুমাত্র  ডোমার  পুলিশের অনিয়ম-দূর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় ওই দুই সাংবাদিকসহ ডোমারে কর্মরত সাংবাদিকদের কণ্ঠ রোধের অপচেষ্টায় ওই দুই সাংবাদিকে মামলায় জড়ানো হয়েছে দাবি করেন সাংবাদিকরা।
কলম বিরতি শেষে ডোমার প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক রাজার সভাপতিত্বে সেখানে সংক্ষিপ্ত এক সমাবেশে বক্তৃতা দেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান চয়ন, সহ-সম্পাদক রওশন রশীদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল-মামুন সোহাগ, ডোমার রিপোটার্স ইউনিটির সভাপতি জুলফিকার আলী ভুট্টু, সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান হিল্লোল, ডোমার সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আবু ফাত্তাহ কামাল পাখি, সাংবাদিক ময়নুল হক, গোলাম রাব্বানী প্রমুখ।
বক্তরা, হয়রানীমূলক ওই মামলা থেকে দুই সাংবাদিকের নাম প্রত্যাহারসহ ডোমার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেন ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মিজানুর রহমানের অপসারণ দাবি করেন। অন্যথায় কঠোর আন্দোল কর্মসূচির ঘোষণা দেয়া হয়।
উলে¬খ্য, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ডোমার উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের বড়গাছা দরগাপাড়া মাদ্রাসা ভোট কেন্দ্রে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় ৭ জানুয়ারী ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা একেএম হুমায়ুন করীর অজ্ঞাতনামা ৩৫ থেকে ৪০ জনের নামে ডোমার থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ঘটনার ১৫ মাস পর গত ২৩ এপ্রিল দুই সাংবাদিকসহ বিএনপি-জামায়াতের ৪০ নেতাকর্মীর নামে আদালতে অভিযোগ দাখিল করেন।
এব্যাপারে ডোমার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, তারা দুজনেই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এদের মধ্যে মোজাফ্ফর আলী উপজেলা বিএনপির বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও তার ছেলে ইয়াসিন মোহাম্মদ সিথুন ডোমার সরকারি কলেজ ছাত্রদলের আহবায়ক। পুলিশের সাক্ষ্য  প্রমানে ওই মামলায় তাদের নামে আদালতে অভিযোগ প্রদান করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ