• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:৫৯ অপরাহ্ন |

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প মধ্যপাড়া খনি থেকে পাথর নেবে

Parbatipur (Dinajpur) Photo ROKUNUZZAMAN BABUL-02-05-15.রুকুনুজ্জামান বাবুল, পার্বতীপুর: দেশের একমাত্র উৎপাদনশীল পাথর খনি দিনাজপুরের পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্প থেকে পাথর নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে পদ্মা সেতুসহ দেশের মেগা প্রকল্পের প্রতিনিধি দল। আগামী ৩ মাসে মধ্যপাড়া থেকে ৬০ হাজার টন বোল্ডার পাথর কিনবে পদ্মা বহুমুখী সেতুর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ (মূল সেতু) ও সিনো হাইড্রো (নদী শাসন) কর্তৃপক্ষ। পার্বতীপুর মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্প উদ্বোধনের পর সরকারি-বেসরকারী পর্যায়ে এ ধরনের উচ্চ পর্যায়ের কোন প্রতিনিধি দল এই প্রথম খনিটি পরিদর্শনে এলেন।
গত ৩০ এপ্রিল সরকারের সেতু বিভাগের সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম নেতৃত্বে মধ্যপড়া পাথর খনি পরিদর্শনে আসেন এসময় তার সাথে ছিলেন পদ্মা বহুমুখী সেতুর প্রকল্প পরিচালক (পিডি) শফিকুল ইসলাম, চিফ ইঞ্জিনিয়ার কবির আহমেদ, সুপারেন্টেডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার কামরুজ্জামান, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ও সিনো হাইড্রোর চীনা কর্মকর্তা, ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেস ওয়ে পিপিপি প্রকল্প এবং কর্ণফুলী নদীর তলদেশে বহু লেন টানেল নির্মাণ প্রকল্পের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান ইসতিয়াক আহমদ, পেট্রোবাংলার পরিচালক (অপারেশন এন্ড মাইন্স) জামিল-এ-আলিম, মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবুল বাশার, মহাব্যবস্থাপক (অপারেশন) মীর আবদুুল হান্নান, মহাব্যবস্থাপক (মার্কেটিং) ফজলুর রহমান, মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) নেয়াজুর রহমান, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিনুজ্জামান, দিনাজপুর জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেল শামীম আল রাজী, পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাহেনুল ইসলাম ও খনির ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিটিসির কর্মকর্তারা। এ সময় খনির এমডি প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবুল বাশার মধ্যপাড়া খনির ওপর এবং পাথরের কোয়ালিটির বিষয়ে বিভিন্ন ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করেন। বিকেলে খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের নেতৃত্বে প্রতিনিধিদল খনির খনির ভ-ুগর্ভ পরিদর্শন করেন।
মধ্যপাড়া পাথর খনি থেকে বর্তমানে ঠিকাদানী প্রতিষ্ঠান জার্মাানিয়া-ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) প্রতিদিন তিন শিফটে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করছে। পদ্মা সেতু প্রকল্পের নদীশাসন ও মূল সেতু নির্মাণে প্রয়োজন হবে প্রায় ৫০ থেকে ৭০ লাখ টন পাথর। ৪ বছরে এ পাথর লাগবে। মধ্যপাড়া খনি ইয়ার্ডে বর্তমানে প্রায় ৬ লাখ টন পাথর মজুদ রয়েছে। এর সঙ্গে প্রতিদিন যোগ হচ্ছে সাড়ে ৪ হাজার মেট্রিক টন। বছরে এ খনি থেকে উৎপাদিত হচ্ছে প্রায় ১৩ লাখ টন পাথর। ৪ বছরে এ খনি থেকে উৎপাদিত হবে প্রায় ৫২ লাখ টন পাথর।
পাথর খনি কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং সরকারের আন্তরিকতার ফলে উচ্চ পদস্থ এই প্রতিনিধি দল মধ্যপাড়া পাথর খনি পরিদর্শনে আসেন। পরিদর্শনকারী দল মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড (এমজিএমসিএল) এর উর্দ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে মত বিনিময় সভায় পদ্মা বহুমুখী সেতুর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ (মূল সেতু) ও সিনো হাইড্রোর (নদীশাসন) প্রতিনিধিরা এ প্রতিশ্রুতি দেন।
এ ব্যাপারে গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবুল বাশার বলেন, মধ্যপাড়া খনির পাথর বিক্রি নিয়ে যে সমস্যা ছিল এই প্রতিনিধি দলের সফরে তা অনেকাংশেই কেটে যাবে। পদ্মা সেতু নির্মাণে মধ্যপাড়া খনির ৩০ শতাংশ পাথর ব্যবহারের আশ্বাস দিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষসহ চায়না ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের পরিদর্শনকারী প্রতিনিধি দল। তবে তিনি আশা প্রকাশ করেন, ৫০ শতাংশ পাথর পদ্মা সেতুতে ব্যবহার হতে পারে। এছাড়া ঢাকা এলিভেটেড এলিভেটেড ওয়ে পিপিপি, কর্ণফুলি নদীর তলদেশে বহুলেন টানেল প্রকল্পের প্রতিনিধি সহ আবুল মোনায়েম কোম্পানী মধ্যপাড়া খনির পাথর ব্যবহারের আশ্বাস দিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ