• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন |

জলঢাকায় দুই মিনিটের ঝড়ে লন্ডভন্ড গোলনা গ্রাম: আহত ৫০ (ভিডিও)

Nilphamari Photo-1সিসি নিউজ: মাত্র দুই মিনিটের প্রবল ঘুর্নী ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার গোলনা ইউনিয়নের তালুক গোলনা গ্রাম। রোববার রাত ১১টার দিকে আঘাত হানা ওই ঝড়ে গ্রামটির সাড়ে তিন শত পবিারের অন্তত দুই হাজার ঘর বিধ্বস্ত হয়।
এছাড়াও উপড়ে পড়েছে সহস্রাধিক গাছপালা, নষ্ট হয়ে গেছে দুই শতাধিকেরও বেশি বিঘা জমিতে থাকা উঠতি বোরো ধান, ভুট্টাসহ অন্যান্য ফসল।
ঝড় চলাকালে ঘর চাপা আর গাছপালার চাপায় আহত হয়েছেন ৫০জন মানুষ। আহতদের মধ্যে ২৫জনকে উদ্ধার করে জলঢাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলেও বাকীরা স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়। এদিকে ক্ষতিগ্রস্তরা ঝড়ের পর রাত থেকেই অনাহারে পরিবার পরিজন নিয়ে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান জানান, রোববার রাত ১১টার দিকে প্রচণ্ড শব্দ নিয়ে আকষ্মিভাবে ঘুর্নী ঝড় আঘাত হানে তালুক গোলনা গ্রামটিতে। এতে লন্ডভন্ড হয়ে যায় গ্রামটি। আঘাত হানা ওই ঝড়ে গ্রামের অন্তত চার শত পরিবারের ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়। উৎড়ে পরে কয়েক হাজার গাছপালা । নস্ট হয়ে যায় গ্রামের শত শত বিঘা জমিতে থাকা ধান, ভুট্টাসহ অন্যান্য ফসল। এসময় গাছচাপা ও ঘর চাপা পড়ে ৫০জন মানুষ আহত হন।  রোববার রাত থেকেই ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার গুলো  খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। সোমবার বেলা ১২টা পর্যন্ত সরকারি কিংবা বেসরকারি ভাবে কোন ত্রাণ সামগ্রী পৌছায়নি গ্রামটিতে।
ওই গ্রামের বৃদ্ধ এছার উদ্দিন জানান, আমার জ্ঞান হওয়ার পর অনেক ঝড় দেখেছি। কিন্তু রোববার রাতের ঝড়ের মতো কোন ঝড় আমি আজও দেখিনি। মাত্র দুই মিনিটের এই ঝড়ে গ্রামটির সব কিছু নিমিষেই শেষ করে দিয়েছে। মসজিদ, মাদ্রাসা কিছুই বাদ যায়নি এর হাত থেকে। আল্লাহর অশেষ কৃপায় মানুষ গুলো শুধু প্রাণে বেচে গেলেও ঘরবাড়ি-গাছপালা উপড়ে পড়েছে। নস্ট হয়ে গেছে শত শত বিঘা জমির উঠতি ধান, ভূট্টাসহ অন্যান্য ফসল।
ঘুড়র্নী ঝড়ের আঘাতে তচনছ হয়ে যাওয়া ওই গ্রামের পরিবার গুলোর মধ্যে  সুজানা বেগম নামরে এক গৃহবধু জানান, কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই হঠ্যাৎ করে  পচন্ড শব্দ নিয়ে গ্রামের ওপড় আছড়ে পড়া ঘুর্নী ঝড়। ছেলে-মেয়ে কে নিয়ে প্রাণ বাছাতে ঘরের চৌকির নিছে ঠাই নিয়ে প্রাণে রক্ষা পেলেও আমার ঘরের ছাদসহ অন্যান্য আসবাবপত্র উঠেয়ে নিয়ে ফেলে পাশের একটি ভুট্টা ক্ষেতে। কোন কিছুই বাঁচানো সম্ভব হয়নি। এমন ঘটনা শুধু তার নয় গ্রামে বসবাসরত অন্যান্য পরিবার গুলোর একই অবস্থা। এছাড়াও গাছপালা উৎড়ে পরে অনেক বাড়িঘরের ওপড়। এতে গ্রামের অন্তত ৪০/৫০জন মানুষ আহত হন।
মনোয়ার হোসেন বলেন, তিনটি কাঁচা ঘর উড়ে গেলেও কোন কিছু বাচাঁনো যায়। উপড়ে গেছে বাড়ির টিউবওয়েলসহ গাছপালা।
গোলনা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুল আলম( পান কবির) জানান,  রোববার রাত ১১টার দিকে ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে যায় ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড তালুক গোলনা গ্রাম। চার’শ পরিবারের প্রায় দেড় হাজার ঘর বাড়ি উৎড়ে পড়ে। আহত হন অর্ধশতাধিক মানুষ। এছাড়াও অসংখ্য গাছপালা উপড়ে পড়ে ঝড়ের তান্ডবে। ৩শ একর ভুট্টা ও ২শ একর জমির বোরো ধান ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে।
তিনি আরো জানান, দুপুরে  আমার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে প্রথমিকভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে চার শত কেজি চিড়া,চার শত কেজি মুড়ি ও এক শক কেজি গুড় দেওয়া হয়েছে খাবর জন্য।
সোমবার দুপুরে নীলফামারী-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট লিয়াকত আলী খান,  উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সহিদ হোসেন রুবেল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  হাসান হাবিব ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন। এসময় জেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় জেলা ত্রাণ কার্যালয় থেকে ৫ মেট্রিক টন চাল, নগদ ৫০ হাজার টাকা ও ৭৫টি কম্বল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। যা তালিকা প্রনয়ন করে বিতরণ করা হয়েছে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে বলে জানান তিনি।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) এস.এ.এম রফিকুন্নবী জানান, ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের জন্য ৫টন চাল ও নগদ ৫০হাজার টাকা এবং ৭৫টি কম্বল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের মধ্যে।

[vsw id=”n8U5jlLoS6g” source=”youtube” width=”425″ height=”344″ autoplay=”no”]


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ