• শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২৪ পূর্বাহ্ন |

থাইল্যান্ডের জঙ্গলে অর্ধশত গণকবর!

Thailand11430662600আন্তর্জাতিক ডেস্ক : থাইল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলের গভীর জঙ্গলে বেশ কয়েকটি গণকবর থেকে অভিবাসীদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সেখানে অন্তত ১০ বাংলাদেশির লাশ থাকতে পারে বলে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। তবে ওই অঞ্চলেই এ রকম আরো কিছু কবর থাকতে পারে বলে স্থানীয়রা উদ্ধারকর্মীদেরকে জানিয়েছেন।
বিশ্বস্ত একটি সূত্র স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ফুকেটওয়ান টুডেকে জানায়, ‘জঙ্গলে দ্বিতীয় অভিবাসী ক্যাম্পে ৫০টির বেশি কবর পাওয়া যেতে পারে। এছাড়া সীমান্তসংলগ্ন অন্যান্য ক্যাম্পগুলোতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বেশ কিছু কবর রয়েছে।’
স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, থাইল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলীয় শঙ্খলা প্রদেশের সাদাও জেলায় গত শুক্রবার সন্ধানকৃত গণকবরগুলো থেকে এখন পর্যন্ত ২৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বাকি কবরগুলোর খনন কাজ চলছে। মরদেহগুলো মিয়ানমার ও বাংলাদেশ থেকে আসা অভিবাসী নাগরিকদের হতে পারে বলে ধারণা করছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।
মালয়েশিয়ায় নিয়ে যাওয়ার জন্য মানব পাচারকারীরা থাইল্যান্ডের সীমান্তবর্তী ওই এলাকা ব্যবহার করে থাকে। স্বজনদের কাছ থেকে ‘মুক্তিপণ’ আদায়ের জন্য নৌকায় করে নিয়ে আসা এসব অভিবাসীদের এখানে আটকে রেখে নির্যাতন চালাত মানব পাচারকারীরা। রোগ ও খাবারের অভাবেও অনেকেও মারা যান। সেখানে পরিত্যক্ত বেশ কিছু ক্যাম্পও রয়েছে। মানব পাচারের জন্য স্থানটি কুখ্যাত হিসেবে পরিচিত।
স্থানীয়রা জানান, গভীর জঙ্গল ছাড়াও পবর্তঘেঁষা এলাকাতেও অনেক অবৈধ অভিবাসী ক্যাম্প রয়েছে। সেগুলো চিহ্নিত করার কাজ শুরু করেছে স্থানীয় প্রশাসন।
থাইল্যান্ডের অভিবাসী বিভাগ-৬ এর কমান্ডার মেজর জেনারেল থিচাই পিটানেলয়াবুত বলেন, ‘অবৈধ অভিবাসী ক্যাম্প সন্ধান ও সেগুলো উচ্ছেদ করতে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। একই সঙ্গে মানবপাচারের সঙ্গে যুক্তদের ধরতেও তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।’
আনোয়ার নামের এক পাচারকারীকে গ্রেফতারের পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে ওই গণকবরের কথা জানতে পারে থাই পুলিশ। এরপর মানব চোরাচালানোর সঙ্গে জড়িত অন্যদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রেখেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ