• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০২:৫৯ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে সন্ত্রাসীর ভূমিকায় বড় বোন!

Dinajpur Map-1মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুর শহরে সন্ত্রাসী কায়দায় সহোদর ভাই-বোনদের প্রাপ্য জমি জবর দখলের অপচেষ্টা ব্যর্থ হবার পর বড় বোন কানিজ ফাতেমা তার অপর দুই ভাই-বোনকে সাথে নিয়ে হুমকি প্রদান অব্যাহত রেখেছেন মর্মে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে সিআরপিসি আদালত (ক-অঞ্চল) সদর দিনাজপুরে মোকাদ্দমা দায়েরের পর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট যাতে শান্তিভঙ্গ না ঘটে সে জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ প্রদান করেছেন।
এ ব্যাপারে দিনাজপুর শহরের পাহাড়পুর এলাকার মো. মজিবর রহমানের স্ত্রী কানিজ ফারহানা বেগম সিআরপিসি আদালত (ক-অঞ্চল) সদর, দিনাজপুরে মামলা দায়ের করা মামলা করেছেন। মামলা নং-১২০ পি আর। মামলার বিবরণে বলা হয়, প্রার্থিনী এবং প্রতিপক্ষদের পিতা মরহুম আলহাজ্ব শাহ আবু বক্কর খতিয়ান নং-সিএস ১৭৪৭, এসএ ১৮৭৮ এবং বিএস ৩০৩ এর এসএ ৬৭০৭ ও বিএস ৮৪৫২ দাগের .৪২০০ একর জমির মধ্যে প্রাীর্থনীর নামে .১০০৮ একর জমি এবং তৎসংলগ্ন .১০০৭ একর জমি প্রতিপক্ষ শহরের ঈদগাহ এলাকার মো. আশরাফুল ইসলামের নামে রেজিস্ট্রি দলিলমূলে দান করে দেন। প্রার্থিনী কানিজ ফারহানা বেগম প্রাপ্ত জমিতে পাঁচটি গোডাউন ঘর নির্মাণ করে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন।
গত ১৩-০৪-২০১৫ তারিখ সকালে প্রতিপক্ষ কানিজ ফৌজিয়া বেগম, তার স্বামী আশরাফুল ইসলাম এবং শহরের দক্ষিণ মুন্সিপাড়া এলাকার মৃত আলহাজ্ব শাহ আবু বক্করের পুত্র শাহ আব্দুল বাতেন প্রার্থিনীর সম্পত্তির উপর ইট ফেলেন। প্রার্থিনী তার ভাড়াটিয়াদের মাধ্যমে খবর পেয়ে পরদিন ১৪-০৪-২০১৫ তারিখ সন্ধ্যা ৭টায় ঘটনাস্থলে যান। তিনি সেখানে পৌঁছে উপস্থিত প্রতিপক্ষদের এর কারণ জানতে চাইলে প্রতিপক্ষ কানিজ ফৌজিয়া বেগম তাকে জানান, তিনি তাকে দেয়া পৈতৃক সম্পত্তি চোখ আন্দাজ আলাদা করে নেবেন। প্রার্থিনী তাকে সরকারী আমিন দ্বারা প্রাপ্য জমি চিহিœত করে প্রাচীর দেয়ার পরামর্শ দেন। এতে রাগান্বিত হয়ে প্রতিপক্ষ আশরাফুল ইসলাম প্রার্থিনী কানিজ ফারহানা বেগমকে হুমকি দেন। এ সময় প্রার্থিনী ও ঘটনার স্বাক্ষী সানজিদা বকরের স্বামীর বিরুদ্ধে খারাপ মেয়ে দিয়ে মোকাদ্দমা দায়ের, গোডাউন জবর দখল, প্রার্থিনী বা তার স্বাক্ষী সানজিদা বকরকে প্রয়োজনে হত্যা করারও হুমকি দেন।
প্রার্থিনী এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষ কানিজ ফৌজিয়া বেগম, তার স্বামী স্বামী আশরাফুল ইসলাম এবং শাহ আব্দুল বাতেনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন জানিয়ে মামলা দায়েরের পর দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট গত ১৫-০৪-২০১৫ তারিখে প্রতিপক্ষকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন এবং নির্মাণ কাজ স্থগিত রাখার নির্দেশ প্রদান করেন।
কিন্তু প্রতিপক্ষ আদালতের নির্দেশকে অমান্য করে নির্মাণ কাজ অব্যাহত রাখে। এ অবস্থার পেক্ষিতে সিআরপিসি আদালত (ক-অঞ্চল) সদর, দিনাজপুরে প্রার্থিনী কানিজ ফারহানা বেগম গত ৩০-০৪-২০১৫ তারিখে আবেদন করেন। এই আবেদনের প্রেক্ষিতে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট যাতে শান্তিভঙ্গ না ঘটে সে জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা দিতে দিনাজপুর কোতয়ালী থানা কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন।
এদিকে প্রার্থিনী কানিজ ফারহানা বেগম গত ১৬-০৪-২০১৫ তারিখে কোতয়ালী থানায় একটি জিডি করেন। যার নং-৮২১। জিডিতে বলা হয়, তার পিতা (মরহুম আলহাজ্ব শাহ আবু বক্কর) ২০০৮ সালে ৬০ (ষাট) লাখ টাকা দিনাজপুর প্রধান ডাকঘরে জমা রাখেন। পরবর্তীতে তা ন্যাশনাল ব্যাংক দিনাজপুর শাখায় জমা রাখা হয়। ২০১২ সালে তার পিতা তার নামীয় জমি বিক্রি বাবদ ইউসিবিএল মালদহপট্টি শাখায় জমা করেন। ইতোপূর্বে ২০০৭ সালে তিনি একই ব্যাংকে ১৮ লাখ টাকা তার ৭ সন্তানেরর নামে জমা করেন। প্রার্থিনীর মাতা জয়বুন নেহার ১৯৯০ সালের জানুয়ারী মাসে মারা যান। মৃত্যুর পর তিনি তার ১০০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার তার ৫ মেয়ের মধ্যে সমানভাগে ভাগ করে দেয়ার শর্তে ন্যাশনাল ব্যাংকে জমা রাখতে বলেন।
এ সকল সহায় সম্পত্তির সমান অংশীদার ৭ ভাই-বোন। সকল সহায় সম্পত্তির দলিলপত্র বড় সন্তান হিসেবে সংরক্ষণ করতেন কানিজ ফাতেমা বেগম। কিন্তু প্রতারনার লক্ষ্যে উক্ত সম্পত্তির কোন হিসাব কানিজ ফাতেমা বাদী ও তার অন্য বোনদের প্রদান করছেন না। তা’ছাড়া কানিজ ফাতেমা তার স্বামী ডা. মোসাদ্দেকুল ইয়াজদানী এবং বড় ভাই আব্দুল বাতেনের পরামর্শে তার পৈতৃক সম্পত্তি ফুলবাড়ী উপজেলার এলুবাড়ী মৌজার এবং চিরিরবন্দর উপজেলার দৌলতপুর মৌজার ২০ বিঘা জমির ফসল গত ৩০-০৪-২০১৪ তারিখের পর হতে আত্মসাৎ করে চলেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ