• শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন |

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত চুক্তি বিল রাজ্যসভায় পাস

Rajjo Sovaসিসি ডেস্ক: বহুল আলোচিত বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত চুক্তি বিল ভারতের আইনসভার উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় পাস হয়েছে। বাংলাদেশ সময় বুধবার দুপুর আড়াইটায় দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বিলটি উত্থাপন করেন। প্রায় তিনঘণ্টা আলোচনার পর সর্বসম্মতভাবে সেটি পাস হয়।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার বিলটি আইনসভার নিম্নকক্ষ লোকসভায় চূড়ান্তভাবে পাসের লক্ষ্যে উত্থাপন করা হবে।

ভারতীয় রাজ্যসভার কার্য উপদেষ্টা কমিটি সীমান্ত চুক্তি বিলের ওপর আলোচনার জন্য তিনঘণ্টা সময় বেঁধে দেন। রাজ্যসভায় বিলটি অনুমোদন হওয়ায় আজ রাতেই রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির স্বাক্ষর নেওয়া হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামীকাল লোকসভায় চূড়ান্ত অনুমোদন করা হবে।

সীমান্ত চুক্তি বিলটি রাজ্যসভায় পাস হওয়ার কথা শুনে ছিটমহলে আনন্দের বন্যা বইছে। সেখানে মিষ্টি বিতরণও করেন ছিটমহলবাসী। চুক্তি বাস্তবায়ন হলে প্রায় ৬০ হাজার ছিটমহলবাসী তাদের স্থায়ী ঠিকানা পাবেন। দীর্ঘদিনের মানবেতর জীবন থেকে মুক্তি পাবেন।

পঞ্চগড়ে ছিটমহল বাসীর আনন্দ-উল্লাস

পঞ্চগড়: ভারতের মন্ত্রিসভায় সীমান্ত বিল অনুমোদন হওয়া পঞ্চগড়ে ছিটমহলের অধিবাসীরা আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেছে। নাগরিক জীবনের সুযোগ-সুবিধা পেতে যাচ্ছেন বলে আশা করছেন তারা। মঙ্গলবার দুপুরে সীমান্ত বিল অনুমোদনের খবর পেয়ে তারা এই উল্লাস প্রকাশ করেন। একে অপরকে মিষ্টি মুখ করান, অনেকে আবেগে কান্নাও করেন ।

পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ, বোদা এবং সদর উপজেলায় রয়েছে ছোটবড় ৩৬টি ভারতীয় ছিটমহল। এ সব ছিটমহলের অধিবাসিরা নাগরিক জীবনের সুবিধা থেকে বঞ্চিত ছিল। এসব ছিটমহলের অধিবাসিরা নাগরিক-জীবন-যাপনের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছিল।ভারতের মন্ত্রিসভায় সীমান্ত বিল অনুমোদন হওয়ায় এসব ছিটমহলে এখন খুশির বন্যা বয়ে যাচ্ছে। সীমান্ত বিল ভারতের মন্ত্রিসভায় অনুমোদন হওয়ায় তারা নতুন আশায় বুক বেঁধেছে। তাদের স্বপ্ন এখন তারা মানুষের মতো মানুষ হিসাবে বাঁচতে পারবে। তাদের শিশুরাও স্কুল-কলেজে যেতে পারবে। এলাকায় বিদ্যুৎ, সড়ক উন্নয়নসহ দেশের অন্য নাগরিকদের মতো নাগরিক সুবিধা ভোগ করতে পারবে।

গাড়াতি ছিট মহলের চেয়ারম্যান আব্দুর লতিফ বলেন, ভারতের মন্ত্রিসভায় সীমান্ত বিল অনুমোদন হওয়ায় আমাদের দীর্ঘদিনের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন সফল হয়েছে। আজ অথবা কাল হয়তো রাজ্যসভা এবং লোকসভায় বিলটি পাশ হবে।

বোদা উপজেলার ৬৯ নং ভারতীয় পুঠিমারি ছিটমহলের চেয়ারম্যান তছলিম উদ্দিন বলেন, ‘এতোদিন আমরা মানুষ ছিলাম না। ছিলাম নিজ ভূমে পরবাস। এখন একজন নাগরিক হয়ে জীবন-যাপন করতে পারবো। আমাদের এলাকায় স্কুল, কলেজ,চিকিৎসার ব্যবস্থার জন্য হাসপাতার প্রতিষ্ঠা হবে। আমাদের শিশুরাও লেখাপড়া করার সুযোগ পাবে। আমি উভয় দেশের সরকারকে ছিটমহলের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ