• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০১:৩১ পূর্বাহ্ন |

মুক্ত জীবনের আশায় উচ্ছ্বসিত ছিটমহলবাসী

Kurigram1430978022কুড়িগ্রাম : বহুল আলোচিত ও দীর্ঘ দিনের প্রতিক্ষিত স্থল সীমান্ত বিলটি ভারতীয় মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পর বুধবার রাজ্যসভায় পাস হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিলটি লোকসভায় পাস হলে বন্দিজীবনের অবসান ঘটবে দু’দেশের ১৬২টি ছিটমহলের ৫১ হাজার ৫শ ৮০ জন মানুষের। এরই মধ্যে মুক্তি জীবনের আশায় আনন্দে উদ্বেলিত হয়েছে ছিটমহলবাসী।

ভারতের মন্ত্রিসভায় স্থল সীমান্ত চুক্তি অনুমোদন ও রাজ্যসভায় পাস হওয়ায় মুক্ত জীবনের আশায় আনন্দের জোয়ারে ভাসছে ছিটমহলবাসী। ছিটমহলগুলোতে চলছে মিষ্টি বিতরণ, আনন্দ মিছিলসহ নানা আয়োজন। লোকসভায় বিলটি পাস হলেই বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতের ১১১টি ছিটমহলের ৩৭ হাজার ৩শ ৬৯ জন মানুষ বাংলাদেশের নাগরিকত্ব এবং ভারতের অভ্যন্তরে বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহলের ১৪ হাজার ২শ ১১ জন মানুষ ভারতীয় নাগরিকত্বের সুবিধা পাবে। বিলটি পাস ও বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশ পাবে ১১১টি ছিটমহলের ১৭ হাজার ২শ ৫৮ একর জমি এবং ভারত পাবে ৫১টি ছিটমহলের ৭ হাজার ১১০ একর জমি।

১৯৭৪ সালে ছিটমহল বিনিময়ে ইন্দিরা-মুজিব চুক্তি বাস্তবায়নের দাবিতে উভয় দেশের ছিটবাসী দীর্ঘ দিন ধরে অভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। এর ধারবাহিকতায় ২০১১ সালে ঢাকায় হাসিনা-মনমোহন প্রটোকল স্বাক্ষরিত হয়। ২০১৩ সালে ভারতের কংগ্রেস সরকার ল্যান্ড বাউন্ডারি চুক্তির বিলটি পার্লামেন্টে উত্থাপনের চেষ্টা করলে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির আপত্তির মুখে বিলটি আলোর মুখ দেখেনি। নরেন্দ্র মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর দু’দেশের সম্পর্ক উন্নয়নে ছিটমহল বিনিময়ের বিষয়টি প্রাধান্য পায়। তখন নমনীয় হয় মমতা ব্যানার্জি।

৪ ডিসেম্বর পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের এক জনসভায় ছিটমহলবাসীর দুঃখ দুর্দশা লাঘবে ছিট বিনিময়ে তার সম্মতির কথা জানায়।

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার দাসিয়ার ছড়া ছিটমহলের বাসিন্দা আমেনা জানান, ভারতে ছিটমহলের বিল পাস হওয়ায় নিজেদেরকে মুক্ত পাখির মতো মনে করছি। আমরা আর বন্দি নই। আমাদের এখানে স্কুল কলেজ হলে আমাদের ছেলে-মেয়েরা পড়া-লেখা করাতে পারব।

ফুলবাড়ী উপজেলার অভ্যন্তরে ভারতীয় ছিটমহল দাসিয়ার ছড়ার নবম শ্রেণির ছাত্রী শামছুর নাহার জানান, ভুয়া নাম ঠিকানা দিয়ে হেটে ১০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে লেখাপড়া করতে হচ্ছে। ছিট বাংলাদেশ হলে আমাদের আর কষ্ট করতে হবে না।

ফুলবাড়ী উপজেলার কালিরহাট ছিটের বাসিন্দা মোজাফফর হোসেন জানান, দীর্ঘ বঞ্চনার পর মৌলিক অধিকারসহ নাগরিকত্বের পরিচয় নিয়ে বেঁচে থাকার আশায় আমরা ছিটবাসী উচ্ছ্বসিত হয়ে আছি। আমরা আশা করি দ্রুত ছিটমহল বিনিময় করে ছিটবাসীর অবরুদ্ধ জীবনের অবসান ঘটানো হোক।

বাংলাদেশ-ভারত ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা জানান, ভারতের মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পর রাজ্যসভায় স্থল সীমান্ত বিলটি পাস হয়েছে। এতে করে আমাদের ছিটবাসীর দীর্ঘ দিনের আন্দোলনের ফল পেয়েছি। আশা করি লোকসভায় বিলটি পাস হওয়ার পর যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তা বাস্তবায়ন করা হবে। ছিটবাসী নাগরিকত্ব পেয়ে মুক্ত বিহঙ্গের মতো ঘুরতে-ফিরতে পারবে। শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ সকল নাগরিক অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে।

বিলটি আজ ভারতীয় লোকসভায় পাস করে দ্রুত ছিট বিনিময়ে এগিয়ে আসবে দু’দেশের সরকার। এমনটাই দাবি এখন ছিটমহলবাসীর।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ