• শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৫৩ পূর্বাহ্ন |

আজ বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৪ জন্মজয়ন্তী

Robiসিসি ডেস্ক: সময়ের পথপরিক্রমায় বছর শেষে আজ আবারো এলো পঁচিশে বৈশাখ। আজ, উদার বিশ্ববোধের কবি, বাঙ্গালির আত্মার মুক্তি ও সার্বিক স্বনির্ভরতার প্রতীক কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মদিন। আজ থেকে ১৫৩ বছর আগে ১৮৬১ খ্রিস্টাব্দের ৬ মে (বাংলা বর্ষপঞ্জি পরিবর্তনে এখন বাংলাদেশে ৮ মে) কলকাতার জোড়াসাঁকোর বিখ্যাত ঠাকুর পরিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং মাতা সারদা দেবী।

তার এই জন্মবার্ষিকীতে শুধু দুই বাংলার বাঙালিই নয়, পুরো ভারতবাসী এমনকি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলা ভাষাভাষী কবির জন্মবার্ষিকীর দিবসটি পালন করবে হৃদয় উৎসারিত আবেগ ও শ্রদ্ধায়।

মানবজীবনের এমন কোনো দিক নেই, যেখানে রবীন্দ্রনাথের উপস্থিতি নেই। বিশেষ করে বাঙালির চেতনায়, মেধা ও মননে রবীন্দ্রনাথ সর্বব্যাপী। তিনি শুধু একজন কবি, সাহিত্যিক, দার্শনিক, গীতিকার ও নাট্যকার-ই নন তিনি বিশ্বেও ভাতৃত্ববোধের অপার আধারও। কেননা তিনি সবসময় মেলাতে চেয়েছেন বৈশ্বিকসব জাতিতত্ত্বকে, স্বদেশের কল্যাণ চেয়েছেন সামপ্রদায়িক ঐক্য ও মানবিক সাম্যের পথে। তিনি ‘মনুষ্যত্বের প্রতিকারহীন পরাভবকে চরম বলে বিশ্বাস করাকে’- অপরাধ হিসেবে উল্লেখ করে মানুষকে ডাক দিয়েছেন বিশ্বভ্রাতৃত্ত্বের প্রাণময় বিস্তৃত উঠানে। তার রাজনৈতিক দর্শন, সমাজ চিন্তা, সমকাল-ভাবনা, স্বদেশ-অন্বেষা এসব কিছুর অনুঘটক তার এসব মানবিক প্রত্যয়। আর তাই কালান্তরেও আজও আমরা আমাদের শংকায়-সংকটে, সম্পদে-বিপদে বারবার কবিগুরু কাছে ফিরে যায়।

আমাদের বারবার কাছে ডাকা এই মহামনীসী- কবি হিসেবে বিশ্বব্যাপী খ্যাত হলেও রবীন্দ্রনাথ ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। তিনি ছিলেন একাধারে একজন সঙ্গীতজ্ঞ, কথাসাহিত্যিক, নাট্যকার, চিত্রশিল্পী, দার্শনিক, প্রাবন্ধিক, শিক্ষাবিদ ও সমাজ সংস্কারক। পৃথিবীর সাহিত্য, সংস্কৃতি, সভ্যতা ও জ্ঞান-বিজ্ঞানের পরিবর্তনকে তিনি আত্মস্থ করেছিলেন। তিনি তার প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে গেছেন ৫৬টি কাব্যগ্রন্থ, ১১৯টি ছোটগল্প, ১২টি উপন্যাস, ২৯টি নাটক, ৯টি ভ্রমণ কাহিনী, ২২৩২টি গান ও দেশ-বিদেশে দেয়া নানা বক্তৃতার মাধ্যমে।

রবীন্দ্রনাথের কাব্যসাহিত্যের বৈশিষ্ট্য ভাবগভীরতা, গীতিধর্মিতা চিত্ররূপময়তা, অধ্যাত্মচেতনা, ঐতিহ্যপ্রীতি, প্রকৃতিপ্রেম, মানবপ্রেম, স্বদেশপ্রেম, বিশ্বপ্রেম, রোমান্টিক সৌন্দর্যচেতনা, ভাব, ভাষা, ছন্দ ও আঙ্গিকের বৈচিত্র্য, বাস্তবচেতনা ও প্রগতিচেতনা। রবীন্দ্রনাথের গদ্যভাষাও কাব্যিক। ভারতের ধ্রুপদি ও লৌকিক সংস্কৃতি এবং পাশ্চাত্য বিজ্ঞানচেতনা ও শিল্পদর্শন তার রচনায় গভীর প্রভাব বিস্তার করেছিল। কথাসাহিত্য ও প্রবন্ধের মাধ্যমে তিনি সমাজ, রাজনীতি ও রাষ্ট্রনীতি সম্পর্কে নিজ মতামত প্রকাশ করেছিলেন। সমাজকল্যাণের উপায় হিসেবে তিনি গ্রামোন্নয়ন ও গ্রামের দরিদ্র জনসাধারণকে শিক্ষিত করে তোলার পক্ষে মতপ্রকাশ করেন। এর পাশাপাশি সামাজিক ভেদাভেদ, অস্পৃশ্যতা, ধর্মীয় গোঁড়ামি ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধেও তিনি তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন। রবীন্দ্রনাথের দর্শনচেতনায় ঈশ্বরের মূল হিসেবে মানব সংসারকেই নির্দিষ্ট করা হয়েছে। রবীন্দ্রনাথ দেববিগ্রহের পরিবর্তে কর্মী অর্থাৎ মানুষ ঈশ্বরের পূজার কথা বলেছিলেন। সঙ্গীত ও নৃত্যকে তিনি শিক্ষার অপরিহার্য অঙ্গ মনে করতেন। রবীন্দ্রনাথের গান তার অন্যতম শ্রেষ্ঠ কীর্তি। তার রচিত ‘আমার সোনার বাংলা’ ও ‘জনগণমন-অধিনায়ক জয় হে’ গান দুইটি যথাক্রমে বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় সঙ্গীত।

কবি জীবনী : রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কলকাতার এক ধনাঢ্য ও সংস্কৃতিবান ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। কিন্তু, তিনি বাল্যকালে প্রথাগত বিদ্যালয় শিক্ষা গ্রহণ করেননি। এইজন্য গৃহশিক্ষক রেখে বাড়িতেই তার শিক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এরপর বেশ কয়েক বছর তিনি ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর প্রতিষ্ঠিত নর্মাল স্কুলে পড়াশোনা করেন। সেখানেই তার বাংলা শিক্ষার ভিত্তি রচিত হয়। পরে তিনি সেন্ট জেভিয়ার্সে ভর্তি হলেও নিয়মিত স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেন এবং বাড়িতেই গৃহশিক্ষকের কাছে সংস্কৃত, ইংরেজি, সাহিত্য, পদার্থবিদ্যা, গণিত, ইতিহাস, ভূগোল, প্রাকৃতবিজ্ঞান প্রভৃতি বিষয়ে তালিম নিতে থাকেন। আট বছর বয়সে তিনি কবিতা লেখা শুরু করেন। ১৮৭৪ সালে তত্ত্ববোধিনী পত্রিকায় তার প্রথম কবিতা ‘অভিলাষ’ প্রকাশিত হয়। এটি ছিল কবিগুরুর প্রথম প্রকাশিত রচনা।

দেশের শিক্ষার প্রতি অনাগ্রহ দেখে রবীন্দ্রনাথকে ব্যারিস্টারি পড়ার জন্য ১৮৭৮ সালে ইংল্যান্ডে পাঠায়। সেখানে কিছুদিন ব্রাইটনের একটি পাবলিক স্কুলে এবং পরে লন্ডনের একটি ইউনিভার্সিটি কলেজে তিনি কিছুদিন পড়াশোনা করেন। তবে এ পড়াও সম্পূর্ণ হয়নি। এ সময় তিনি ইংল্যান্ডের বিভিন্ন বিষয়ের ওপর জ্ঞানার্জন করেন। ১৮৮০ সালে কোনো ডিগ্রি না নিয়েই রবীন্দ্রনাথ দেশে ফিরে আসেন। ১৮৮৩ সালে তিনি বিয়ে করেন খুলনার মেয়ে ভবানী দেবীকে। বিয়ের পর তিনি যার নাম দেন মৃণালিনী দেবী। ১৮৯০ সাল থেকে তিনি কুষ্টিয়ার শিলাইদহের জমিদারি এস্টেটে বসবাস শুরু করেন। ১৯০১ সালে তিনি পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনে ব্রহ্মচর্যাশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন এবং সেখানেই স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। ১৯০২ সালে তার স্ত্রী মৃণালিনী দেবী মৃত্যুবরন করেন। ১৯০৫ সালে তিনি বঙ্গভঙ্গ-বিরোধী আন্দোলনের সাথে জড়িয়ে পড়েন। ১৯১৩ সালে তিনি ‘গীতাঞ্জলি’ কাব্যগ্রন্থের জন্য প্রথম অ-ইউরোপিয় হিসেবে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পান। ১৯১৫ সালে ব্রিটিশ সরকার তাকে নাইট উপাধিতে ভূষিত করেন। কিন্তু ১৯১৯ সালে জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকা-ের প্রতিবাদে তিনি সেই উপাধি ত্যাগ করেন। ১৯২১ সালে গ্রামোন্নয়নের জন্য প্রতিষ্ঠা করেন শ্রীনিকেতন নামে একটি সংস্থ। ১৯২৩ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়। দীর্ঘজীবনে তিনি বহুবার বিদেশ ভ্রমণ করেন এবং সমগ্র বিশ্বে বিশ্বভ্রাতৃত্বের বাণী প্রচার করেন। ১৯৪১ সালে দীর্ঘ রোগভোগের পর কলকাতার পৈত্রিক বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

কবিগুরু আমাদের দিয়েছেন কথা, সুন্দর দেখার দৃষ্টি ও জন্মভূমিকে ভালোবাসার বোধ। আপন মহিমায় আমাদের শিক্ষা দিয়েছেন কেমন করে বাসনা করতে হয় লালন, আশায় বাঁধতে হয় বুক এবং মানুষ ও প্রকৃতিকে করতে হয় আপন। কল্পনার প্রজ্ঞা দিয়েছেন, দিয়েছেন সৃষ্টির প্রেরণা। আর এসবের সঙ্গে রয়েছে সত্য, সুন্দর ও কল্যাণের বন্দনা বাণী। বস্তুত এজন্যই তিনি চিরদিন আমাদের লোক। যাকে আমরা খুঁজে পাই আনন্দের বারতায়, দুঃখের যাতনায়। খুঁজে পাই প্রেম-ভালোবাসায়, প্রতিবাদের ভাষায় আর দেশমাতৃকার জন্য আপনাকে উৎসর্গ করার ব্রত বোধে। আর তার সঙ্গে একাত্ম হয়ে আমরা আজ বলতে পারি ‘ও আমার দেশের মাটি, তোমায় পরে ঠেকায় মাথা’।

তার লেখা ‘আমার সোনার বাংলা / আমি তোমায় ভালোবাসি,..’ বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত। মুক্তিযুদ্ধের সময়ও প্রেরণা যুগিয়েছিল তার অনেক গান। তার লেখা গান ভারত ও শ্রীলংকারও জাতীয় সংগীত।

বানী
কবিগুরু রবীন্দ্র ঠাকুরের জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন।
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তার বানীতে বলেন,

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বানীতে বলেন,

বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম রওশন এরশাদ তার বাণীতে বলেন,
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া তার বানীতে বলেন,

এবারের রবীন্দ্র জন্মজয়ন্তীর নানা কর্মসূচি
কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মদিন উদযাপন আমাদের বাঙালির আত্মপরিচয়ে প্রত্যয়দীপ্ত হওয়া, আগামীর পথে চলার পাথেয় অর্জন করা। কৃতজ্ঞ জাতি তাই আজ গভীর অবিনত শ্রদ্ধা-উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালন করবে প্রিয় কবির জন্ম জয়ন্তী। জাতীয় পর্যায়ে কবিগুরুর জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার।

জাতীয় পর্যায়ে কবির স্মৃতিধন্য কুষ্টিয়ার শিলাইদহ, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর, নওগাঁর পতিসর ও খুলনার দক্ষিণডিহিতে পালিত হবে স্থানীয় প্রশাসনের আয়োজনে নানা অনুষ্ঠান। এছাড়া ঢাকাসহ দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দিবসটি যথাযোগ্যভাবে উদযাপন করা হবে। বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসসমূহ এ উপলক্ষে কর্মসূচি গ্রহণ করবে। রাজধানীতে সরকারি পর্যায় ছাড়াও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠন রবীন্দ্রজয়ন্তী পালন করবে। দেশের দৈনিক পত্রিকাগুলো প্রকাশ করেবে বিশেষ ক্রোড়পত্র। সরকারি-বেসরকারি চ্যানেলগুলো প্রচার করবে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা। এবার বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপনের থিম নির্ধারণ করা হয়েছে ‘বাংলাদেশ ও রবীন্দ্রনাথ’।

প্রতিবারের মতো এ বছরও সরকারী আয়োজনে কবিগুরুর জন্মবার্ষিকীর মূল অনুষ্ঠান হবে ঢাকার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে। অনুষ্ঠানটি শুরু হবে সকাল ১১টায়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন। স্বাগত ভাষণ দেবেন সংস্কৃতি সচিব ড. রণজিৎ কুমার বিশ্বাস। রবীন্দ্র স্মারক বক্তা অধ্যাপক জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী উপস্থিত থাকবেন।

মূল অনুষ্ঠানের সাথে সঙ্গতি রেখে কবিগুরুর স্মৃতি বিজড়িত কুষ্টিয়ার শিলাইদহ, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর, নওগাঁর পতিসর ও খুলনার দক্ষিণডিহিতে স্থানীয় প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় যথাযোগ্য মর্যাদায় তার ১৫৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন করা হবে। এ উপলক্ষে রবীন্দ্রমেলা, রবীন্দ্রবিষয়ক আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করবে স্থানীয় প্রশাসন।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলা একাডেমি কবিগুরুর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণিকা ও পোস্টার মুদ্রণ করবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যথাযোগ্য মার্যাদায় কবির জন্মবার্ষিকী উদযাপন করবে। জাতীয় পর্যায়ের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ও অন্যান্য অনুষ্ঠানমালা বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ বেসরকারি চ্যানেলসমূহ ব্যাপকভাবে সম্প্রচার করবে।

এদিন সন্ধ্যা ৭টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর জাতীয় নাট্যশালার প্রধান মিলনায়তনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সাংস্কৃতিক পর্ব ছাড়াও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর উদ্যোগে শিল্পকলা একাডেমীতে তিন দিনব্যাপী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও কবির চিত্রশিল্প প্রদর্শনীর আয়োজন করা হবে।

শুধু দুই বাংলার বাঙালিই নয়, পুরো ভারতবাসী এমনকি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলা ভাষাভাষী কবির জন্মবার্ষিকীর দিবসটি পালন করবে হৃদয় উৎসারিত আবেগ ও শ্রদ্ধায়। বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসসমূহ এ উপলক্ষে কর্মসূচি গ্রহণ করবে।

রবীন্দ্রনাথ ১৯১৩ সালে তার গীতাঞ্জলী গ্রন্থের জন্য সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হন। কবির গান-কবিতা, বাণী এই অঞ্চলের মানুষের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তির ক্ষেত্রে প্রভূত সাহস যোগায়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধে শুধু নয়, চিরকালই কবির রচনাসমূহ প্রাণের সঞ্চার করে। আমাদের প্রতিটি সংগ্রামেই কবির চিরায়ত রচনাসমগ্র আজীবন স্মরণের শীর্ষতায় আবিষ্ট হয়ে আছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ