• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১০:২০ অপরাহ্ন |

পরতে পরতে কবির ছোঁয়া

Thakorbariসিসি ডেস্ক: কলকাতার মানুষের সঙ্গে কথা হলেই তারা বলেন- আমাদের থেকে আপনারা (বাংলাদেশিরা) রবীন্দ্রনাথকে অধিক ধারণ করেন। কথাটা কলকাতা শহরে নামার পর থেকেই প্রমাণ পেলাম। কলকাতায় রবীন্দ্রনাথ বলতে বিভিন্ন স্থাপনা আর স্বরণীর নাম। এরই মাঝে ৬ নম্বর দ্বারকানাথ ঠাকুর লেনে গেলাম। ঠিক চিনতে পারলেন না তো? অবাক হওয়ার কিছুই নেই- কলকাতার মানুষই এ ঠিকানাটা ঠিকমতো চেনে না। এই বাড়িটিই কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বাড়ি। তার জন্ম ও মৃত্যুস্থান।

কলকাতা পুরসভায় দলিলে জায়গাটির নাম দ্বারকানাথ ঠাকুর লেন হলেও, সেখানে তার কোনো চিহ্নই নেই। এমনকি ঠাকুরবাড়ীর আশপাশেও দ্বারকানাথ লেনের নাম লেখা নেই। স্থানীয় বাজারের এক্কেরে সমাপ্তি রেখায় জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ী। এর চারপশেই ব্যবসাকেন্দ্র। বেশির ভাগই অবাঙালিদের দোকান। তারা রবীন্দ্রনাথ পাঠ করেনি। ঠাকুরবাড়ী ঘুরে দেখেনি। এমন বাস্তবতায় অনেক কবিপ্রেমিক বড় বাজারের ভিড় ঠেলে ঠাকুরবাড়ীর বিরাট গেটের সামনে এসে দাঁড়ায়। কবিকে প্রণাম করে। দেবদারুগাছে ঘেরা লাল রঙের এ তিনতলা ঠাকুরবাড়ীতে রবীন্দ্রনাথ বাংলা ১২৬৮ সনের ২৫ বৈশাখ জন্মগ্রহণ করেন। কবির শৈশবকাল, বেড়ে ওঠা, পরিণয়, প্রয়াণ- সব এ বাড়ির আলোকময় স্মৃতি। জন্মের আশি বছর পর, ২২ শ্রাবণ, ১৩৪৮ বঙ্গাব্দে (৭ আগস্ট, ১৯৪১) তার প্রয়াণও হয় সেই বাড়িতেই।

ঠাকুরবাড়ীর মূল ফটক দিয়ে ভেতরে ঢোকার রাস্তার ঠিক বাম দিকে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়। রবীন্দ্রভারতীর সামনেই একপায়ে ঠাঁই দাঁড়িয়ে আছে বড় চালতা গাছ। চালতা গাছের ছায়াবিথীতলে কামিনীসহ আরো নাম না জানা অনেক ফুলের সমারোহ। ঘন বনানীর মাঝেই লাল দালান।

জানা যায়, এ বাড়িতেই মৃণালিনী দেবীর সঙ্গে ঘর বেঁধেছিলেন রবীন্দ্রনাথ। ডানপাশে বাগান পেরিয়ে সারি সারি ঘর। এখানে রবীন্দ্রভারতীর ক্লাস বসে। প্রিন্স দ্বারকানাথের বিলাসবহুল বাড়ির গেটের দুই পাশে দাঁড়িয়ে আছে দু’টি ভাস্কর্য। একপাশে রবীন্দ্রনাথের, অন্যপাশে প্রিন্স মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথের। সিঁড়ি বেয়ে উপরে ওঠতে কানে ভেসে আসবে ক্ষীণ শব্দের রবীন্দ্রসঙ্গীত। এ বাড়িতে ঢোকার পর কেবলই মনে হতে থাকে এ বাড়ির মাটিতে এক সময় রবীন্দ্রনাথ হেঁটেছেন-খেলেছেন।

ডান পাশের লাল বাড়িটির দোতলার চৌকাঠ পেরিয়ে ঢুকতেই রবীন্দ্রনাথের বসার ঘর। একটি টি-টেবিল ঘিরে তিনটি আরাম কেদারা বিছানো রয়েছে। এ ঘর ছেড়ে বেরিয়ে এলে বিরাট একঘর। এখানেই আলমারি দিয়ে ভাগ করে তিনটি ঘর করা হয়েছিল। মৃণালিনী দেবীর শেষশয্যা এখানেই পাতা ছিল। এ ঘরটির পেছনের সাদামাটা কক্ষটির উত্তর পাশজুড়ে খোলা জানালা। পশ্চিমে একটি বেলজিয়াম, আয়নার ড্রেসিং টেবিল। একটি সেলফে এখনো সাজানো আছে রূপার বাক্স। রবীন্দ্রনাথের রূপার গ্লাস এবং কয়েকটি বিলেতি শো-পিস। রুমটির এক দেয়ালে মৃণালিনীর একটি বড় ছবি বাঁধানো। তার নিচে মৃণালিনীর নিজের হাতে রবীন্দ্রনাথকে লেখা একটি পত্রও রয়েছে। অন্য দেয়ালে রয়েছে- কবির নিজ হাতে লেখা বিয়ের নিমন্ত্রণপত্র।

এসব পেরিয়ে সামনে যেতেই চোখে পড়লো বড় বারান্দা। জানা যায়, এ বারান্দাতেই মৃণালিনী দেবী ভাসুরপো বলেন্দ্রনাথের কাছে সাহিত্য পড়া শুনতেন। সিঁড়ি দিয়ে নেমে একটু ঘুরে অপর পাশ দিয়ে অন্য সিঁড়ি বেয়ে যেতে হয় অন্য দালানে। এখানে প্রথম ঘরটিতে রয়েছে কবির ব্যবহৃত পোশাক। সঙ্গে বড় আয়না।

এরপরের কক্ষটি বাঙালি সাহিত্যপ্রেমীদের দীর্ঘশ্বাসের কক্ষ। কারণ, এখানেই কবি ত্যাগ করেছিলেন শেষ নিঃশ্বাস। রুমের দেয়ালে টাঙানো রয়েছে কয়েকটি ছবি প্রমাণ করে তার রোগশয্যার চিহ্নমাত্র। এর পেছনের ঘরটিতে পর্দা টেনে কবির শেষ অপারেশন করানো হয়েছিল। আরও সামনের ঘরটি কবির লেখার ঘর। প্রতিটি ঘরে রয়েছে ঠাকুরবাড়ীর ব্যবহৃত সে সময়কার অনেক স্মৃতি।
কলকাতা মিউনিসিপ্যালিটির দেয়া একটি বিরাটাকার ব্রাভিয়া টেলিভিশন রাখা আছে। এখানে দেখানো হয় ঠাকুর পরিবারের ঐতিহ্য ও কয়েক পুরুষের তোলা ছবি। এছাড়া একটি ঘরের দেয়ালজুড়ে বড় বড় ছবি বাঁধানো রয়েছে। এখানে পর্যায়ক্রমে প্রিন্স দ্বারকানাথ থেকে রবীন্দ্রনাথের নানা বয়সের ছবি রয়েছে। সামনের বারান্দায় একটি টেবিলে কাচে ঘেরা রয়েছে একটি ট্রেন। শান্তিনিকেতন থেকে শেষ যে ট্রেনে কবি জোড়াসাঁকো এসেছিলেন। সে ট্রেনটির একটি রেপ্লিকা তৈরি করে ইন্ডিয়ান রেলওয়ে জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ীতে উপহার দিয়েছেন।

এ বাড়ি পেরিয়ে ছোট্ট সিঁড়ি ডিঙিয়ে যেতে হয় পাশের বাড়িতে। ওখানে অবশ্য শিল্পের ছায়া কম। বেশ অগোছালো। এখানকার কক্ষগুলোতে থাকতেন ঠাকুরবাড়ীর চাকর-বাকর। কোনো ঘরে গল্পের মজলিস বসতো। কোথাও রয়েছে বুদ্ধদেবের মূর্তি। রয়েছে কবির বিদেশভ্রমণের নানা স্মৃতিচিহ্ন।

সিঁড়ি বেয়ে তিনতলায় উঠলে চোখে পড়বে একটি কক্ষ। এখানে প্রিন্স দ্বারকানাথের ছবি বাঁধানো আছে। এছাড়া আছে কিছু বইপত্র ও শাস্ত্রীয় বই। এ ঘরটিতে কবিমাতা সারদা দেবী তাসের আসর জমাতেন। দেবেন্দ্রনাথের কক্ষে এখনো রয়েছে কুচকুচে কালো একটি মজবুত খাট। পাশে সেলফে রাখা আছে জমিদারির কিছু নথিপত্র ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। এছাড়া শাস্ত্রীয় বইও রাখা আছে। তিনতলা থেকে সোজা নেমে জুতা সংগ্রহ করে আবার যেতে হবে অভ্যর্থনা কক্ষে।

এখানে কোনোরকম সংরক্ষণ নেই। সোজা পথ ধরে হাঁটতে থাকলে হাতের বাম দিকে চোখে পড়বে একটি গ্যারেজ। এখানে একটি গাড়ি রাখা আছে কালো রঙয়ের। এটি মূলত রবীন্দ্রনাথের ব্যবহার করা গাড়ি।
ঐতিহ্যবাহী এই বাড়ির প্রতিটি ইট, কাঠ, পাথরের মধ্যেই ছড়িয়ে আছে শিল্প এবং ঐতিহ্য। দীর্ঘ দিনের অবহেলায় বাড়ির বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে থাকা কাঠের আসবাব, কাস্ট আয়রন, পোর্সেলিন টাইলস প্রভৃতি শিল্পবস্তুগুলো নষ্ট হতে বসে ছিল। তবে কবির সার্ধশতজন্মবার্ষিকীতে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের নেয়া একটি প্রকল্পে বাড়ির স্থাপত্যগত রক্ষণাবেক্ষণের পাশাপাশি বাড়ির বিভিন্ন দেওয়ালের কারুকার্য, স্থাপত্যিক লিপি, রেলিং, সিলিং, গার্ডেন-ফার্নিচার, সিঁড়ি ইত্যাদির সংস্কার ও সংরক্ষণও করা হয়েছে। সেই সঙ্গে ঠাকুরবাড়ীর পুরনো ঐতিহ্যের একটা দৃশ্যমান রূপ দেয়া হচ্ছে, যাতে দর্শকরা এই বাড়িতে ঢুকে সেই দ্বারকানাথ থেকে রথীন্দ্রনাথ পর্যন্ত প্রবাহিত ঠাকুরবাড়ীর পুরনো ঐতিহ্যকে অনুভব করতে পারেন। সংগৃহিত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ