• শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:০১ অপরাহ্ন |

সেই তালগাছটি আর নেই

Naogaon-talgas-pic-BM011নওগাঁ: পতিসরে বসে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছিলেন অনেক কবিতা। এর মধ্যে নাগর নদী নিয়ে লেখা ‘আমাদের ছোট নদী’ কবিতাটি অনেক বিখ্যাত। ঠিক এমনি আরেকটি বিখ্যাত কবিতা তালগাছ। এটিও কবি লিখেছিলেন পতিসরে বসেই।

রবীন্দ্র গবেষকদের মতে, ‘তালগাছ এক পায়ে দাঁড়িয়ে/ সব গাছ ছাড়িয়ে/ উঁকি মারে আকাশে…. তালগাছ শিরোনামে এ কবিতাটিও কবিগুরু লিখেছিলেন ১৩২৮ বঙ্গাব্দের ২ কার্তিকে। সেই নাগরী নদীতে বোটে বসে।

পতিসরের মনিতলা মন্দির সংলগ্ন সেই তালগাছটি আজ আর নেই।
সূত্রমতে, ১৯৬২ সালে প্রবল এক ঝড়ে ভেঙে পড়ে তাল গাছটি। তবে গাছটির স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে সেখানে এখনও রয়ে গেছে মাটির উঁচুভিটে। তবে মন্দির ভবনটিও এখন আর নেই।

উল্লেখ করা প্রয়োজন, স্থানীয়দের উদ্যোগে সেখানে স্থাপন করা হয়েছে তালগাছ স্মৃতি স্মারক। তবে সেখানে রয়ে গেছে ভুল। কবির জন্ম ২৫ বৈশাখ ১২৬৮ বঙ্গাব্দ ও মৃত্যু ২২ শ্রাবণ ১৩৪৮ বঙ্গাব্দ। কিন্তু কবিতাটি রচনার তারিখ লেখা হয়েছে ২ কার্তিক ১০২৮ বঙ্গাব্দ।

তবে বিতর্ক আছে, কবিগুরুর তালগাছ কবিতাটির প্রেক্ষাপট পতিসর নয়, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর। সেখানেও রয়েছে এমনি এক তালগাছ। যেটি এখনও রয়েছে। স্থানীয়দের দাবি, এখানকার কাছারিবাড়িতে বসে এই তালগাছ নিয়েই কবি তালগাছ কবিতাটি লিখেছিলেন। তবে এ বিষয়টি নিয়ে এখনও বিতর্ক রয়ে গেছে।

পূর্ণাঙ্গ কবিতাটি:

তালগাছ
তাল গাছ এক পায়ে দাঁড়িয়ে
সব গাছ ছাড়িয়ে
উঁকি মারে আকাশে।
মনে সাধ কালো মেঘ ফুঁড়ে যায়,
একেবারে উড়ে যায় –
কোথা পাবে পাখা সে ।।
তাই তো সে ঠিক তার মাথাতে
গোল গোল পাতাতে
ইচ্ছাটি মেলে তার
মনে মনে ভাবে বুঝি ডানা এই,
উড়ে যেতে মানা নেই
বাসা খানি ফেলে তার ।।
সারাদিন ঝরঝর থত্থর
কাঁপে পাতাপত্তর,
ওড়ে যেন ভাবে ও –
মনে মনে আকাশেতে বেড়িয়ে
তারাদের এড়িয়ে
যেন কোথা যাবে ও ।।
তারপরে হাওয়া যেই নেমে যায়
পাতা কাঁপা থেমে যায়,
ফেরে তার মনটি –
যেই ভাবে মা যে হয় মাটি তার
ভালো লাগে আরবার
পৃথিবীর কোণটি ।।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ