• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন |

ছিটমহলে বিরাজ করছে আনন্দ-উল্লাসের পাশাপাশি আতংক!

Dimla photo 9-5-15সরদার ফজলুল হক: ভারতের লোক সভায় স্থল সীমান্ত বিল পাশের খবরে ছিটমহলে বিরাজ করছে আনন্দ-উল্লাসের পাশাপাশি আতংক। নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় অভ্যন্তরে ভারতীয় ছিট মহলে বসবাসকারী ১৮ বছরের উর্দ্ধের সবাই বাংলাদেশের ভোটার। সরকারী-বেসকারী চাকুরীর সুবিধাভোগ করে আসছে ছিটমহলের বাসিন্দা।

প্রাপ্ত তথ্যে জানাগেছে, ডিমলা উপজেলার অভ্যন্তরে ভারতের ৪টি ছিট মহল অবস্থিত। ছিটমহল গুলো হলো, ২৮ নং বড় খানকী বাড়ী, ২৯ নং বড় খানকী খারিজা, ৩০ নং গিদালদহ ও ৩১ নং নগর জিগাবাড়ী। এ ছিট মহল গুলোতে জমির পরিমান প্রায় ১৭৫ বিঘা। এখানে ১০১টি পরিবারে বসবাস করেন ৪২৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ-২১৮ এবং মহিলা-২০৬জন। ভূমিহীন পরিবার রয়েছে-৩৭টি। ছিট মহলে বসবাসকারী ১৮ বছরে উর্দ্ধের সবার ভোট রয়েছে বাংলাদেশে।

গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ-ভারতের বহুল আলোচিত ও দীর্ঘ প্রতিক্ষিত স্থল সীমান্ত বিল ভারতের লোকসভায় পাশ হয়েছে। ছিট মহল বিনিময়ে স্থল সীমান্ত বিল পাশের খবরে ছিটমহলবাসীদের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। এ জন্য তারা নিজেদের মধ্যে মিষ্টিও বিতরণ করেছেন। এতে করে ছিটমহলবাসীরা ভৌগলিক স্বাধীনতা পাশাপাশি বিদ্যুৎ, রাস্তাসহ পেতে যাচ্ছে রাষ্ট্রিয় নানা প্রকার সুযোগ-সুবিধা।সর্বপরি বর্তমানে তাদের মাঝে আনন্দ-উল্লাসের পাশাপাশি বিরাজ করছে আতংক। বিশেষ করে ছিট মহলের অধিবাসী হওয়ার পরেও ভুয়া পরিচয়ে এতদিন যারা বাংলাদেশের ভোটার হয়ে রাষ্ট্রিয় সুযোগ-সুবিধা গ্রহন করে আসছে তারাই বেশী আতংকিত। এ ছাড়া ছিট মহলে বসবাসকারী মানুষ খোঁজা-খুঁিজ শুরু করে দিয়েছেন তাদের জায়গা-জমির কাগজপত্র। কিছু মানুষ আছেন যারা ছিটমহলের জমি ভোগ দখল করে চাষাবাদ করে আসলেও তাদের কাছে জমির কোন কাগজপত্র নেই । আবার কারো কাগজপত্র আছে কিন্তু কাগজের লেখা মিশে গেছে এমন মানুষরা দিশাহারা হয়ে পড়েছেন।

সরজমিনে গিয়ে জানাগেলো, ছিট মহলে বসবাসকারীদের মধ্যে অনেকেই সরকারী চাকুরী থেকে শুরু করে বাংলাদেশী ভোটার লিষ্টে নাম তুলে নানা সুযোগ সুবিধা গ্রহন করে আসছেন। এদের মধ্যে একজন হলো, বাংলাদেশ-ভারত যৌথ ছিটমহল বিনিময় সম্বনয় কমিটির সাধারণ সম্পাদ ও মৃত হামিদুর রহমানের পুত্র মিজানুর রহমান। তিনি সহকারী শিক্ষক হিসেবে চাকুরী করছেন ডিমলা উপজেলার ডিমলা তিতপাড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং তার স্ত্রী মাজেদা বেগম শিক্ষিকার চাকুরী করছেন পশ্চিম খড়িবাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এছাড়া তার বাড়ীতে রয়েছে পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ। ছিট মহলে বসবাস করার পরেও এত সুযোগ-সুবিধা গ্রহন প্রসংগে মিজানুর রহমান বলেন, বাংলাদেশে আমার জায়গা-জমি রয়েছে বলেইতো ভোটার তালিকায় আমার ভোট উঠেছে। এছাড়া সরকারী কর্মসৃজন প্রকল্পের শ্রমিক হিসেবে সুবিধাভোগ করছেন ২৯ নং ছিটে বসবাসকারী মৃত খেজরু মামুদের পুত্র মশিয়ার রহমান(৫৫)। ২৮ নং ছিট মহল বিনিময় সম্বনয় কমিটির সদস্য মোফাজ্জল হোসেন(৬০) জানান, ভারতীয় দলিল মূলে বড় খানকী বাড়ী ছিটের ৩০ বিঘা জমি মালিক হয়েও বর্তমানে তিনি ভোগ করছেন ১৫ বিঘা। বাকী জমি জমির ভুয়া কাগজ তৈরী করে ভোগদখল করে খাচ্ছে এলাকার অনেকেই। ২৯ নং ছিটের বাসিন্দা সফিকুল ইসলাম(৬৫) বলেন, এখানে বাড়ী ভিটা ছাড়া আমার আর কোন জমি নাই। অপরদিকে ভুয়া কাগজপত্র তৈরী করে ছিট মহলের প্রায় ৭০ ভাগ জমি ভোগ করছে ছিটের বাইরের প্রভাবশালী লোকজন। এরাও হয়তো ছিটের জমি রক্ষার দাবিতে যে কোন সময় ছিট মহলের ভিতরে ঘর-বাড়ী তুলে ফেলতে পারেন। এই যদি হয় তাহলে ছিটের অভ্যন্তরে দেখাদিতে পারে নানাবিদ জটিলতা। এমন আশংকা কথা জানালেন, ২৯ নং ছিটের বাসিন্দা সফিকুল ইসলাম(৫৫)। একই ছিটের বাসিন্দা আবদার রহমান(৬০) জানালেন, ছিটের জমি দখল করাকে কেন্দ্র করে এর আগেও এনতাজ আলী নামে একজন খুনও হয়েছে।

ছিটমহলে বসবাসকারীরা রাষ্ট্রিয় সুযোগ-সুবিধা গ্রহনের বিষয়ে ডিমলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার রেজাউল করিম বলেন, ছিটের মানুষ কে কিভাবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রিয় সুযোগ-সুবিধা নিচ্ছে তা আমার জানানেই।

ছিটমহল বিনিময় নিয়ে কথা বলেন, নীলফামারী-১ আসনের সাংসদ আফতাব উদ্দিন সরকার। তিনি বলেন, দীর্ঘ দিন পরে হলেও ইন্দিয়া-মুজিব সরকারের চুক্তির বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে এটা অত্যন্ত আনন্দে বিষয়। এতে করে ছিট মহল এবং ছিটমহলে বসবাসকারী মানুষের একটা স্থায়ি সমাধান হবে। তবে এখানে আতংকিত হওয়ার কিছু নেই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ