• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৩:০০ পূর্বাহ্ন |

পদোন্নতি নিয়ে দুদকে তোলপাড়!

Dudok_Office1431152994সিসি ডেস্ক: পরিচালক ও উপপরিচালকসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদের পদোন্নতি নিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) চলছে তোলপাড়।

গত বেশ কিছুদিন ধরে পরিচালক ও উপপরিচালকসহ চার ক্যাটাগরির ৪৭ জন কর্মকর্তার পদোন্নতি নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন। পদোন্নতিপ্রত্যাশী কর্মকর্তারা তদবির নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

দীর্ঘ ১০ থেকে ১২ বছর ধরে একই পদে কাজ করে পদোন্নতি না পেয়ে অনেক কর্মকর্তাই চরম হতাশায় ভুগছেন। সে হিসেবে জ্যেষ্ঠতা সবার আগে বিবেচনায় আসার কথা। তবে যোগ্যতা ও জ্যেষ্ঠতা বিবেচনায় না নিয়ে ভিন্ন পথে অনেক পদেই পদোন্নতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন অনেকে।  এ ক্ষেত্রে উচ্চপর্যায়ের তদবির সবচেয়ে বেশি বিবেচনায় আসছে বলেও সংশ্লিষ্ট অনেকে মনে করছেন।

সবচেয়ে বেশি আলোচিত হচ্ছে পাঁচ পরিচালক পদের পদোন্নতি নিয়ে। এই পদে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে শুরু করে বেশ উচ্চপর্যায় থেকে সবচেয়ে বেশি তদবির আসছে বলেও দুদকের বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

উপপরিচালক থেকে পরিচালক পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হচ্ছে যাদের নাম তারা হলেন উপপরিচালক মো. আক্তার হোসেন, মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলী, সৈয়দ ইকবাল হোসেন, বেগম শিরীন পারভীন ও মোহাম্মদ ইব্রাহিমসহ কয়েকজনের নাম।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দুদেকর এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা রাইজিংবিডিকে বলেন, পরিচালক কিংবা অন্যান্য পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রে জ্যেষ্ঠতা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পেলেও একমাত্র মাপকাঠি নয়। এ ক্ষেত্রে কর্মকর্তার যোগ্যতা, বিগত দিনের কর্মক্ষমতা, সততা ও কর্মনিষ্ঠাও বিবেচনায় আসবে।

তিনি আরো বলেন, পদোন্নতির ক্ষেত্রে তদবির নতুন কোনো বিষয় নয়। আগেও ছিল। তবে কমিশন সবকিছু বিবেচনা করে যাকে যোগ্য মনে করবে সেই পদোন্নতি পাবেন।

পরিচালকসহ চারটি পদে ৪৭ জন কর্মকর্তার পদোন্নতির কাজ করছে ডিপার্টমেন্টাল প্রমোশন কমিটি (ডিপিসি)। এর মধ্যে উপপরিচালক থেকে পরিচালক পদে পাঁচজন, সহকারী পরিচালক থেকে উপপরিচালক পদে সাতজন, উপসহকারী পরিচালক থেকে সহকারী পরিচালক পদে ২৩ জন ও সহকারী পরিদর্শক থেকে সহকারী পরিচালক পদে ১২ জন পদোন্নতি পাবেন।

পরিচালক, উপপরিচালক, সহকারী পরিচালক, উপসহকারী পরিচালক, সহকারী পরিদর্শক এই চারটি পদে ওই ৪৭ কর্মকর্তার পদোন্নতি বিষয়ে এরই মধ্যে দুদক সচিব মো. মাকসুদুল হাসান খানের সভাপতিত্বে গত ২৭ এপ্রিল ও ৫ মে ডিপিসির সভা হলেও এখন পর্যন্ত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। এ বিষয়ে ১০ মে কমিশনের সভায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

এ বিষয়ে দুদক চেয়ারম্যান মো. বদিউজ্জামান রাইজিংবিডিকে বলেন, কর্মকর্তাদের কাজের দক্ষতা বিবেচনা করেই পদোন্নতি দেওয়া হবে। এ ক্ষেত্রে অন্য কিছু ভাবার সুযোগ নেই।

পদোন্নতির বিষয়ে কর্মকর্তাদের তদবিরের বিষয়ে তিনি বলেন, তদবির একেবারে আসে না, তা নয়। যারা কাজে অদক্ষ তারা বেশি তদবির করছে। কিন্তু তাদের তদবির রক্ষা করা সম্ভব নয়। যারা কাজে দক্ষতার প্রমাণ রাখছেন, তারা তদবির না করলেও পদোন্নতি পাবেন। পদোন্নতির ক্ষেত্রে যোগ্যতা ও দক্ষতাই মুখ্য বিষয়।

২০১৪ সালের ২১ অক্টোবর কমিশনের সভার অনুমোদনক্রমে দুদকে কর্মরত ৭৮ জন উপপরিচালকের চূড়ান্ত জ্যেষ্ঠতার তালিকা ওই বছরের ৬ নভেম্বর প্রজ্ঞাপন আকারে প্রকাশিত হয়।

প্রজ্ঞাপনে জ্যেষ্ঠতা অনুসারে উপপরিচালকগণ হলেন : (১) যতন কুমার রায় (অবসরপ্রাপ্ত পরিচালক), (২) ঢালী আব্দুস সামাদ, (৩) মো. সফিকুর রহমান ভূইয়া, (৪) এ কে এম ফজলুল হক, (৫) মো. মতিউর রহমান, (৬) আবু মোহাম্মদ আরিফ সিদ্দিকী, (৭) মনজুর আহম্মদ, (৮) মো. আবু নাছির, (৯) নিরাপদ স্বর্ণকার, (১০) সৈয়দ মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, (১১) রাম মোহন নাথ, (১২) মোহাম্মদ আবদুস সোবহান, (১৩) মো. গোলাম মোস্তফা, (১৪) মো. আবদুস সাত্তার সরকার, (১৫) মো. মনিরুল হক, (১৬) মো. আব্দুল হাই, (১৭) হামিদুল হাসান, (১৮) এস, এম, গোলাম মওলা সিদ্দিকী, (১৯) মো. আব্দুল গাফফার, (২০) মো. আক্তার হোসেন,  (২১) মো. গোলাম ফারুক, (২২) মো. আব্দুল করিম, (২৩) আব্দুল্লাহ-আল-জাহিদ, (২৪) মোহাম্মদ মোরশেদ আলম, (২৫) মোহাম্মদ জহিরুল হুদা, (২৬) এম এম শাব্বির হাসান (সাময়িক বরখাস্ত), (২৭) শেখ মো. ফানাফিল্লা, (২৮) মো. কামরুল আহসান, (২৯) মো. নাছির উদ্দিন, (৩০) মো. আবু সাঈদ, (৩১) খান মো. মীজানুল ইসলাম, (৩২) মো. বেনজীর আহম্মদ, (৩৩) মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলী, (৩৪) গোলাম শাহরিয়ার চৌধুরী, (৩৫) মো. জুলফিকার আলী, (৩৬) মো. মনিরুজ্জামান খান, (৩৭) মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ, (৩৮) মো. মাহমুদ হাসান, (৩৯) বেগম শিরীন পারভীন, (৪০) মো. মঞ্জুর মোর্শেদ, (৪১) এস এম মফিদুল ইসলাম, (৪২) সৈয়দ ইকবাল হোসেন, (৪৩) শেখ ফাইয়াজ আলম, (৪৪) শেখ মেসবাহ উদ্দিন, (৪৫) বেগম রাহিলা খাতুন, (৪৬) কে এম মিছবাহ উদ্দিন, (৪৭) এস এম সাহিদুর রহমান, (৪৮) মো. লুৎফর রহমান, (৪৯) মির্জা জাহিদুল আলম, (৫০) মো. ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী, (৫১) ঋত্বিক সাহা, (৫২) মো. মোশাররফ হোসেইন মৃধা, (৫৩) বেগম নূরজাহান আহমেদ, (৫৪) মো. জাকির হোসেন, (৫৫) হারুনুর রশীদ, (৫৬) খোন্দকার খলিলুর রহমান, (৫৭) নূর হোসেন খান, (৫৮) জাহাঙ্গীর আলম (ভোলা), (৫৯) মো. খায়রুল হুদা, (৬০) মো. জাহিদ হোসেন, (৬১) মো. রফিকুজ্জামান, (৬২) মোহাম্মদ ইব্রাহিম, (৬৩) সুভাষ চন্দ্র দত্ত, (৬৪) মো. মোনায়েম হোসেন, (৬৫) মলয় কুমার সাহা, (৬৬) মো. তালেবুর রহমান, (৬৭) মো. আব্দুল মাজেদ, (৬৮) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, (৬৯) মোহা. আবুল হোসেন, (৭০) সৈয়দ তাহসিনুল হক, (৭১) এস এম আখতার হামিদ ভূঞা, (৭২) মো. মোজাহার আলী সরদার, (৭৩) মো. জাহাঙ্গীর আলম, (৭৪) জালাল উদ্দিন আহমদ,(৭৫) বেগম শাহীন আরা মমতাজ, (৭৬) মো. আনোয়ারুল হক, (৭৭) বেগম সেলিনা আখতার, (৭৮) মিসেস রেভা হালদার।

প্রসঙ্গত, দুদকের বর্তমান জনবল ৯৭১। বছরে বেতন-ভাতাসহ অন্যান্য খাতে দুদকের মোট ৫৯ কোটি টাকা খরচ হচ্ছে।

রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ