• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৫৯ পূর্বাহ্ন |

মা’কে মনে পড়ে

i-am-prayiing-for-you-my-friends।। মুহম্মদ তোবারক আলী ।। ‘মা’ ছোট্ট একটি শব্দ। অথচ এর আকর্ষণ এত বেশি যা ভাবা যায় না। মাকে নিয়ে অনেক কথা, অনেক গল্প আমাদের মাঝে চালু আছে। আমরা জন্মেই দেখি মাকে। দেখি মায়ের মুখ, দেখি তার আদর ভরো রূপ। অনুভব করি মায়ের যত্ন ভালোবাসা। ইংরেজ মনীষী হাওয়ার্ড জনসন সেই কবে বলে গেছেন, ‘যে গৃহে মা নেই সে গৃহের আকর্ষণ নেই।’ তাহলে দেখা যাচ্ছে একটি গৃহের সজ্জার আকর্ষণও মা। জন অষ্টিনের মতে, যে গৃহে মা নেই স্নেহের শীতল হাতের স্পর্শ সে গৃহে নেই। প্রায় সমার্থক এ সকল কথা। কবি ক্রিস্টিনা রসেটির মতে, যে ঘরে মা আছে সে ঘরে শৃঙ্খলা আছে। মাকে নিয়ে এ সকল কথা মনে পড়াইল মে মাসের দ্বিতীয় রোববার আন্তর্জাতিক ‘মা দিবস’ উপলক্ষে মা দিবস ধারণাটির সাথে আমরা খুব বেশি পরিচিত নই। বাংলাদেশের সমাজে মা একজন গৃহিণী এবং সংসারের দেখভালের প্রধান। আমরা সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষ সংসারের তাড়নায় মাকে চোখ মেলে দেখার সুযোগ তেমন পাইনা। নিত্য কাজের মাঝে আমরা সংগ্রামে লিপ্ত প্রতিদিন। সন্তান জন্মের পর যে ভালোবাসা স্নেহ মায়ের থাকে তা কখনও কখনও অভাবের তাড়নায় উবে যায়। যখন দেখি অভাবী মা তার আদরের সন্তানের মুখে দুমুঠো অন্ন তুলে দিতে অপারগ তখন মা আর সন্তানের মধ্যে এক প্রকার হাহাকার ধ্বনিত হয়ে ওঠে। এক পর্যায়ে অভাবী মা তার ক্ষিধের জ্বালা সইতে না পেরে সামান্য কটা অর্থের বিনিময়ে তার স্নেহের নাড়ি ছেঁড়া ধনকে তুলে দেন অন্যের হাতে। এখানে মায়ের ভালোবাসা আদর সোহাগ পরাজিত হয়েছে এমনটি ভাবার অবকাশ নেই। পরিবেশ পরিস্থিতি বাধ্য করেছে তাকে এমন আচরণ করতে। মায়ের আদর স্নেহের কোনো তুলনা নেই। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সদ্য সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সাবেক ফার্স্ট লেডী হিলারী ক্লিনটন এবং ফার্স্ট লেডী মিশেল ওবামা থেকে শুরু করে আমাদের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমান বিরোধী দলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কিংবা বিশ্বের সেরা ধনী বিল গেটস তাদের সন্তানকে যেমন ভালোবাসেন ঠিক তেমনি ভালোবাসেন লঞ্চঘাট কিংবা শহরের পুরাতন কোর্টের বারান্দায় রাত যাপনকারী একজন অসহায় মা তার সন্তানকে। আধুনিক নগর সভ্যতার যুগে সন্তানেরা উচ্চ শিক্ষা লাভ বা উন্নত পেশা গ্রহণের জন্য অনেক অনেক দূরে অবস্থান করেন। স্বভাবতই মা থাকেন ঘরের কোণে। কর্মে প্রতিষ্ঠা পেয়ে সন্তানেরা আজকাল গ্রাম ছেড়ে শহরে কিংবা দেশ ছেড়ে অন্য দেশে গিয়ে বসবাস করছে। মায়ের সাথে তাদের দেখা হয় কালে ভদ্রে। আজকাল মোবাইল ফোনের বদৌলতে প্রতিদিন প্রতি মুহুর্তেই হয়তো কথা হয় মায়ের সাথে। এমন কি ভিডিও চিত্রের মাধ্যমে মাকে দেখা যায় সাত সমুদ্র তের নদীর ওপাড়ে বসবাস করেও। হয়তোবা এমনই এক ধারণার বশবর্তী হয়ে প্রাচীন গ্রিস ও রোমে মাকে নিয়ে নতুন করে ভাবনার অবকাশ তৈরি হয়ে ছিলো। তখনকার গ্রিকবাসীরা মাদার অব গড ‘রিয়া’ এর উদ্দেশ্যে একটি দিন নিবেদন করতো যা ছিলো মাকে নিয়ে। সেটি ছিলো এক প্রকার বসন্ত উৎসব। আর রোমানরা তাদের দেবীদের মা সাইবেলির উদ্দেশে পালন করতো বার্ষিক উৎসব। ইউরোপে বড়দিনের পর এখন সবচেয়ে জমকালোভাবে পালন করা হয় মা দিবস। ইউরোপের গন্ডি ছাড়িয়ে এশিয়া এবং আফ্রিকাতেও দিবসটি ব্যাপকভাবে পালিত হচ্ছে। দাবি উঠছে মা দিবসকে জাতীয় দিবস হিসেবে পালনের। বাংলাদেশে মা দিবসকে জনপ্রিয় করার ক্ষেত্রে অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন সাংবাদিক শফিক রেহমান। বসন্ত উৎসব যখন দিনে দিনে প্রসার লাভ করছিলো তখন সমাজে নতুন করে ভাবনা এলো মাকে নিয়ে। একটি দিন সবাই যেনো মাকে নিয়ে অতিবাহিত করে অন্তত বছরে একবার। এমনই এক ধারণাকে পুঁজি করে ১৬০০ শতাব্দীতে শুরু হয় ‘মা দিবস’ এর কর্মসূচি। সে সময় এপ্রিলের ৪র্থ রোববার ইংল্যান্ডে ‘মাদারিং সানডে’ নামে একটি দিন পালন করত ইংল্যান্ডবাসীরা। অনুরূপ আইরিশ ও নাইজেরিয়ানরাও তা পালন করত। যদিও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন সময়ে পালন শুরু হয় মা দিবসের কর্মসূচি, তথাপি অধিকাংশ দেশে এই দিবস পালিত হয় মে মাসের দ্বিতীয় রোববার। বিশ্বে নানা প্রকার দিবস পালিত হতে দেখা যায়। জনপ্রিয়তার দিক থেকে বড়দিন (২৫ ডিসেম্বর) শীর্ষে, দ্বিতীয় পর্যায়ে ভালোবাসা দিবস (১৪ ফেব্রুয়ারি) এবং তারপরই নাম করা যায় ‘মা দিবস’ এর। সাধারণত সাদা কারনেশন ফুলকে এই দিবসের প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। শহরের বিত্তবান মানুষেরা এ দিবসটিকে পালন করত ঘটা করে। ক্রমে তা ছড়িয়ে পড়ে গ্রাম থেকে গ্রাম দেশান্তরে। গ্রাম ছেড়ে অভাবী নিম্ন আয়ের মানুষ কাজের সন্ধানে ছুটে আসতো শহরে। একটি নির্দিষ্ট সময়ের কাজ শেষে তারা আবার ফিরে যেত নিজ নিজ গ্রামে। তখন সাথে করে নিয়ে যেত মা’র জন্য নানা ধরনের উপহার সামগ্রী। অনেকে নিয়ে যেত হাতে তৈরি মজাদার সব খাবার বিশেষ করে সুদৃশ্য কেক। ঐ সকল কেক আবার তৈরি হতো নানা আকৃতির। কেকের উপরে লেখা থাকতো ‘মা’ শব্দটি। মা দিবসের ধারণাটি তখন থেকে এভাবেই প্রসার লাভ করতে থাকে। মা দিবসের ঐতিহ্যের সাথে শ্রমজীবী মানুষের ইতিহাস ও জড়িয়ে আছে। ‘মাদারিং সানডে’ পালনের সময় অনেক গৃহকর্তা তাদের বাড়ির চাকরদের ছুটি মঞ্জুর করতেন বেশ আনন্দের সাথেই। অনেক নির্যাতিত শ্রমিকও এ সময় ছুটি পেয়ে মা ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে দেখা করতো। এ সকল বিষয় তখন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের অনেক দেশেই আলোচিত হতো এবং তা নিয়ে সংবাদপত্রের পাতায় চমৎকার সব মতামত ফিচার ইত্যাদি লিখা হতো। বিচ্ছিন্নভাবে অনেক লেখক এর সাথে জড়িত থাকলেও ধীরে ধীরে একটি নাম সবার কাছে পরিচিত হয়ে ওঠে; আর সেটি হচ্ছে মার্কিন সমাজকর্মী পেনসিলভেনিয়া অঙ্গরাজ্যের ফিলাডেলফিয়ার লেখক গবেষক জুলিয়া ওয়ার্ড হাউয়ি। তিনি যুদ্ধের বিরুদ্ধে নারীদেরকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানানোর পাশাপাশি দিবসটিকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দেওয়ার জন্য প্রচারণা চালানো ও প্রচুর লেখালেখি করেন। দিবসটিকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দিতে তখন (১৮৭২খ্রিঃ) ব্যাপক লেখালেখি এবং জনমত গঠন করেন তিনি। সরকারের সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ এনিয়ে ভাবতে শুরু করেন। জুলিয়া ওয়ার্ড হাউয়ি-এর প্রচেষ্টার সাথে শরীক হয়ে কাজ শুরু করেন আরেকজন মা ভক্ত নারী অ্যামা মেরী জার্ভিস যাকে আধুনিক মা দিবসের ধারণার প্রবর্তক বলা হয়। তার মা অ্যানা মেরি মারা যান ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দের ৯ মে। পিতা মারা যান ঠিক তার তিন বছর আগে অর্থাৎ ১৯০২ খ্রিঃ। বাবা মারা যাওয়ার পর অসহায় জার্ভিস মা অ্যানা মেরী ও বোন লিলি কে নিয়ে ফিলাডেলফিরায় চলে যান ভাই ক্লডের কাছে। ফিলডেলফিয়ায় গিয়ে কিছুদিন অবসর সময় কাটান তিনি। তারপর ১৯০৭ খ্রিঃ শুরু করেন মা দিবসের প্রচারণা। সে বছরের ৯ মে মায়ের মৃত্যু বার্ষিকীতে স্থানীয় অ্যান্ড্রুজ মথাডিঈ চার্চে ছোটখাটো স্মরণসভার আয়োজন করেন। তখন থেকে তিনি দিবসটি নিয়মিত পালন শুরু করেন। তার এই প্রচেষ্টা অনেকের মনেই দাগ কাটে এবং ১৯১১খ্রিঃ হতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সব অঙ্গরাজেই দিবসটি পালিত হতে শুরু করে। সে দেশের ২৮তম রাষ্ট্রপতি উইড্রো উইলসন (মেয়াদকাল ১৯১৩-১৯২১) রাষ্ট্রীয় ভাবে ঘোষণা দেন যে, সারা বিশ্বেই পালিত হবে মা দিবস। অ্যানা মেরী জার্ভিস-এর জন্ম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার ওরেব স্টারে ১৮৬৪ খ্রিস্টাব্দের ১ মে। সময়টা ছিল সে দেশের জন্য এক ক্রান্তিকাল অর্থাৎ ১৮৬১ খ্রিঃ শুরু হওয়া গৃহযুদ্ধের পরবর্তী সময়। গৃহযুদ্ধে মৃত মায়েদের স্মৃতির উদ্দেশে প্রুনটি টাউনের কোর্ট হাউসে জার্ভিসের মা অ্যানা মেরী ১৮৬৫ খ্রিঃ চালু করেন `Mothers Friend Ship Day’। মাকে ভালোবাসেনা এমন মানুষ পৃথিবীতে নেই। ফরাসী সেনা নায়ক বিশ্বখ্যাত নেপোলিয়ন বোনাপার্ট (১৭৬৯-১৮২১) বলেছিলেন আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও আমি তোমাদের একটি শিক্ষিত জাতি উপহার দেবো। যাদের মা পৃথিবীতে বেঁচে নেই তারাই বুঝতে পারে মা হারানোর ব্যথা। অ্যানা মেরী জার্ভিস তার মায়ের মৃত্যুবার্ষিকীর অনুষ্ঠান পালন করতে গিয়ে প্রতি বছরই বেশ সাড়া পান এবং তিনি ক্রমে ক্রমেই উৎসাহ বোধ করতে থাকেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ১৬তম রাষ্ট্রপতি আব্রাহাম লিংকন আয়ুস্কাল ১৮০৯-১৮৬৫, মেয়াদকাল ১৮৬১-১৮৬৫ বলেছেন, আমি যা কিছু হয়েছি অথবা হতে আশা করি তার জন্য আমি আমার মায়ের কাছে ঋণী।’ মা দিবস পালন নিয়ে অ্যানা জার্ভিসের প্রচেষ্টার অন্ত নেই। আরও সুন্দর আরও সার্থকভাবে এই দিবসটি পালনের জন্য তিনি যোগাযোগ করতে লাগলেন সকল পেশার মানুষ বিশেষ করে সংসদ সদস্য, মন্ত্রী ও প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীদের সাথে। তাদের প্রত্যেকের কাছে পৃথক পৃথকভাবে লিখলেন চিঠি, সে সব চিঠিতে থাকতো মা দিবসের বিশেষ বক্তব্য এবং বিস্তারিত আলোচনা। অ্যানা জার্ভিসের মতো পৃথিবীতে যাদের মা বেঁচে নেই তাদের হৃদয়ে গেঁথে গিয়েছিলো বিষয়টি। সমাজে সকল পেশার মানুষ সেদিন সোচ্চার হয়ে দাবি জানিয়েছিলো সরকারের প্রতি। সমাজের নানা প্রকার সংগঠন, সচেতন কৃষক, ব্যবসায়ী, সরকারী বেসরকারী কর্মকর্তা/ কর্মচারী সেদিন উপলব্ধি করতে পেরেছিল মাকে। রাষ্ট্রপতি উইড্রো উইলসন অবশেষে ১৯৪৪ খ্রিঃ দিবসটির রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেন। এভাবে সারা বিশ্বের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে পড়ে মা দিবসের তাৎপর্য। বিশ্বের কোটি কোটি মা হারা সন্তানেরা বিশেষ একটি দিনে স্মরণ করে তাদের হারিয়ে যাওয়া মাকে। শুধু হারিয়ে যাওয়া মাই নয়, চোখের সামনে দাড়িয়ে থাকা মাকেও জানাতে চায় সবাই তাদের মনের গভীর শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা। আজও আমাদের অগণিত মা পথ চেয়ে আছেন যাদের সন্তানেরা শহীদ হয়েছেন মহান ভাষা ও স্বাধীনতা আন্দোলনে। ১৯৭১ এ দেশমাতৃকার সম্মান রক্ষার্থে যারা শহীদ হয়েছেন তারাও মায়ের সন্তান। গ্রামের মায়েরা আজও পবিত্র ঈদ, পূজা পার্বন কিংবা অন্য কোনো দীর্ঘ পর্বের ছুটিতে পথ চেয়ে থাকেন তাদের সন্তানেরা কখন আসবে তাদের কোলে। আমি নিজে এক সময় যখন ঢাকায় বসবাস করতাম তখন আমার মা রাস্তার পাশে এসে দাঁড়িয়ে থাকতেন আমার জন্য। বাড়ি ফেরত আমার বন্ধুদের মুখোমুখি হলে তিনি আমার কথা তাদের জিজ্ঞাসা করতেন। তিনি লোকান্তরিত হয়েছেন আজ অনেকদিন। এখনও ঈদ আসে, পূজা আসে দীর্ঘ ছুটি হয়, পরবাসে স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে অনেক আনন্দে ছুটির সময় কাটাই। আজ আর পথ চেয়ে আমার জন্য দাঁড়িয়ে থাকেন না আমার মা। আজকের মা দিবসে তাকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি। মাকে নিয়ে একটি প্রচলিত গল্প সবারই জানা। ‘একবার এক কাজীর দরবারে একই সন্তানের মাতৃত্বের দাবি নিয়ে হাজির হলেন দু’জন নারী। গোটা পর্ষদ নিয়ে কাজী পড়লেন মাহবিপাকে। এক সন্তানের মা দু’জন কী করে হয়? হঠাৎ কাজী সাহেব বললেন, সমাধান পেয়ে গেছি। করাত দিয়ে কেটে দু’টুকরো করে দু’জনকে সমান ভাগ করে দেবো। এতে একজন মা বললেন, উত্তম কাজী সাহেব। আমি রাজি। অপর মা অশ্রু ঝরিয়ে কেঁদে কেঁদে বললেন, না কাজী সাহেব, আমার সন্তানকে দয়া করে কাটবেন না। আমি নিঃশর্তভাবে সন্তানের উপর দাবি প্রত্যাহার করে নিচ্ছি।’ কাজী সাহেব খুঁজে পেলেন সত্যিকার মাকে। বিশ্ব মা দিবসকে বাংলাদেশে জনপ্রিয় করতে কিংবা পরিচয় করিয়ে দিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছে ঢাকার গ্র্যান্ড আজাদ হোটেল। প্রতি বছর মা দিবসে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পুরস্কৃত করেন সেই ২৫ জন মাকে যাদের প্রত্যেকের রয়েছে অন্তত তিন জন গ্র্যাজুয়েট সন্তান এবং যাদের রয়েছে স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিভার বিকাশ। সেই মায়েদের দেওয়া হয় রত্নগর্ভা উপাধি। মাকে নিয়ে অনেক সাহিত্য রচিত হয়েছে। কবি আল মাহমুদের প্রত্যাবর্তনের লজ্জা, সামসুর রাহমানের কখনও আমার মাকে, কথা সাহিত্যিক শওকত ওসমানের ‘জননী’ সমরেশ মজুমদারের ‘গর্ভ ধারিণী’ পার্ল এস বার্কের ‘মাদার’ ‘গ্রেসিয়া’ ইত্যাদি মাকে নিয়ে অনবদ্য রচনা। দূরের কোন যাত্রায় রওয়ানা দিয়ে ট্রেন ধরতে গিয়েছিল ছেলে। ট্রেন ফেল করায় লজ্জিত হয়ে ছেলে ফিরে এসেছিল নিজ বাড়িতে তার মায়ের কাছে যিনি একটু আগে খাইয়ে পরিয়ে আদর দিয়ে বিদায় জানিয়েছিলেন ছেলেকে। চোখ বেয়ে গড়িয়ে পড়া অশ্রু তখনও না শুকাতেই ফেরত আসা ছেলেকে দেখে এগিয়ে গেলেন মা। মা তাকে জড়িয়ে ধরলেন। বাসি বাসন হাতে আম্মা আমাকে দেখে হেসে ফেললেন। ভলোই হলো তোর ফিরে আসা। তুই না থাকলে ঘরবাড়ি একবারে শূন্য হয়ে যায়। হাত মুখ ধুয়ে আয়। নাশতা পাঠাই। আর আমি মাকে জড়িয়ে ধরে আমার প্রত্যাবর্তনের লজ্জাকে ঘষে ঘষে তুলব (প্রত্যাবর্তনের লজ্জা আল মাহমুদ)। এই আল মাহমুদই কবিতায় বলেন, আমার মায়ের গয়না ছাড়া ঘরকে যাবোনা। মা ভক্ত ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগরের কথা সবাই জানি। কবি শঙ্খ ঘোষ ‘বিদ্যাসাগর’ লিখতে গিয়ে এই মা ভক্তির গল্প শোনান। কোলকাতায় কলেজে পড়াশুনা করেন বিদ্যাসাগর। ছোট ভাইয়ের বিয়ে ও মায়ের অসুস্থতার কথা জানিয়ে চিঠি লিখেছেন মা। কিন্তু কলেজ অধ্যক্ষ নাছোড়বান্দা। ছুটি দিবেন না কিছুতেই। মা ভক্ত বিদ্যাসাগর নিজের পদত্যাগপত্র জমা দিলেন কলেজে। ছুটলেন মায়ের অবস্থান বীরসিংহ গ্রামের উদ্দেশে। পথে রাত হয়ে গিয়ে সম্মুখে পড়ল নদী দামোদর। ঝড়বৃষ্টি আকাশ কালো হয়ে ডাকছে গুড়গুড়। গভীর রাত। কিন্তু যেতেই হবে মায়ের কাছে। ঝাঁপ দিলেন নদীতে। পৌঁছলেন মায়ের কাছে। মনে পড়ে বায়েজিদ বোস্তামী (রাঃ) এর কথা। পানি পানের উদ্দেশে মা ছেলেকে পাঠিয়েছিলেন পানি আনতে। বালক বায়োজিদ বোস্তামী পানি নিয়ে এসে দেখেন ঘুমিয়ে পড়ছেন মা। তাকিয়ে রইলেন মায়ের মুখের দিকে। মায়ের এমন আরামের ঘুমে ব্যাঘাত ঘটানো চলবেনা কিছুতেই। অগত্যা ঘুমন্ত মায়ের শিয়রের পাশে দাঁড়িয়ে রইলেন বায়োজিদ। রাত ভোর হল মা জাগলেন। ছেলের হাতের পানি পান করে মৃদু হাসলেন মা। মহাশ্বেতা দেবীর হাজার চুরাশির মা’ কালজয়ী এক উপন্যাস। এতে প্রধান চরিত্র মায়ের এক ছেলে নকশাল রাজনীতির সক্রিয় সদস্য। পুলিশের খাতায় লিপিবদ্ধ হওয়া মামলায় তার ক্রমিক নম্বর ১০৮৪। এক পর্যায়ে ছেলেটি মারা গেলে পুলিশি হয়রানির ভয়ে তখন বাড়িতে শোক প্রকাশ বা কান্নাকাটিও নিষিদ্ধ ছিলো। কিন্তু মা পারেননি চুপ থাকতে। ম্যাক্সিম গোর্কির মা উপন্যাসের কথাও আমরা জানি। অনেক গান আছে মাকে নিয়ে ছোটবেলায় কলের গানের চোঙার কাছে বসে শুনতাম পান্না লাল ভট্টাচার্যের বিখ্যাত সেই অতুল প্রসাদের গান মা আমার সাধ না মিটিল। আশা না পুরিল/ সকলি ফুরায়ে যায় মা। আজও সমান জনপ্রিয়তায় বাজে সেই গান। মাকে নিয়ে নির্মলা মিশ্রের গাওয়া সেই গান ও তোতা পাখিরে / শিকল কেটে উড়িয়ে দেবো আমার মাকে যদি এনে দাও / আমার মাকে যদি এনে দাও। কিংবা অখিল বন্ধু ঘোষের কন্ঠে যখন শুনি মধুর আমার মায়ের হাসি চাঁদের মুখে ঝরে / মাকে মনে পড়ে আমার মাকে মনে পড়ে’ তখন সত্যি মনে পড়ে যায় মায়ের কথা। শ্যামল মিত্রের গাওয়া মা গো তুমি এমন করে ডেকোনা আমায় / তোমার চোখের জলে পথ যে আমার পিছল হয়ে যায়। বিখ্যাত সেই নজরুল সংগীতের কথা সবাই জানেন ওমা তোর ভুবনে জ্বলে এতো আলো। আমি কেন অন্ধ হয়ে দেখি শুধুই কালো। মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায়ের কন্ঠে এই গান মনে হয় অনবদ্য। হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের কন্ঠে সেই অমর গান পথের ক্লান্তি ভুলে স্নেহভরা বুকে তব মাগো বল কবে শীতল হব। কত দূর আর কত দূর।’ অথবা মাগো ভাবনা কেনো, আমরা তোমার শান্তি প্রিয় শান্ত ছেলে / তবু শত্রু এলে অস্ত্র হাতে ধরতে জানি / তোমার ভয় নাই মা আমরা প্রতিবাদ করতে জানি।’ নচিকেতার বৃদ্ধাশ্রম এক অনবদ্য গান। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর স্বদেশ ভূমিকে তুলনা করেছেন মায়ের সাথে। তার গানে আমরা পাই ওমা ফাগুনে তোর আমের ফেলে ঘ্রাণে পাগল করে। মরি হায় হায়রে ওমা, অঘ্রাণে তোর ভরা ক্ষেতে আমি কি দেখেছি মধুর হাসি। কিংবা তারই প্রবর্তিত সৎ সঙ্গের প্রার্থনায় মাতৃ বন্দনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, ও আমার দেশের মাটি। তোমার পরে ঠেকাই মাথা। তোমাতে বিশ্ব মায়ের আচল পাতা। আমার গান পাগল এক বন্ধু উদয়ন বড়ুয়ার বাসার ড্রইং রুমে একজন মহিলার ছবি সযত্নে বাঁধিয়ে দেয়ালে ঝুলিয়ে রাখতে দেখে প্রশ্ন করে জেনেছি ছবিটি তার মায়ের। অনেক বছর হলো বন্ধুটির মা লোকান্তরিত হয়েছেন। সেই থেকে মৃত মায়ের জীবন্ত ছবিটি দেয়ালে টানানো। একই স্মৃতি বুকে ধারণ করে তিনিও তার পরিবার মা দিবসের তারিখটি মনে ধরে রেখেছেন। মা এক স্বর্গীয় সুধা। মাকে ভোলা যায় না। শুধু কবিতা আর গানেই নয় মাকে সম্মান দেখানো হয়েছে ধর্মেও। হিন্দু সনাতন ধর্মে মাকে পূজনীয় করা হয়েছে। স্বর্গের সাথে তুলনা করে তারও উপরে স্থান দেওয়া হয়েছে মাকে। বলা হয়েছে জননী জন্মভূমিশ্চ স্বর্গাদপি গরিয়সী। অর্থাৎ জননী ও জন্মভূমি স্বর্গের চেয়েও মহান। দুই যুবক যুবতীর গল্পটি ও হৃদয়কে স্পর্শ করে। যুবতী যুবকের কাছে তাকে ভালোবাসার পরীক্ষা দিতে বলে, তোমার মায়ের কলজেটা ছিঁড়ে এনে এক্ষুণি আমাকে দাও। যুবক হেসে হেসে বললে সে কী আর তেমন কঠিন কাজ। এখুনি যাচ্ছি। যুবক ছুড়ি হাতে দৌঁড়ে গিয়ে মাকে হত্যা করে কলজে নিয়ে ফেরত আসার সময় পথে আকাশ কালো করে গুড়ুম গুড়ুম শব্দ হতে লাগলো। পা পিছলে রাস্তায় লুটিয়ে পড়লো ছেলে। হাতের কলজেটা ডেকে ওঠলো। ব্যথা পাসনি তো বাপ! সেই আমাদের মা। মা দিবস পালন নিয়ে এখনও অনেক দেশে বিভ্রান্তি আছে। রোমানরা মায়েদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতো বছরের ১৫-১৮ মার্চ। বৃটেনে মা দিবস পালিত হয় ২ মার্চ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মা দিবস পালিত হয় মে মাসের ২য় রোববার। নরওয়েতে ফেব্রুয়ারির ২য় সপ্তাহে এবং জর্জিয়ায় ৩ মার্চ পালন করা হয় এই দিবস। ৮ মার্চ এই দিবস পালন করা হয় দক্ষিণ কোরিয়া, আলবেনিয়া, রাশিয়া, আফগানিস্তান, রুমানিয়া, বুলগেরিয়া ও ইউক্রেনে। ২১ মার্চ এই দিবস পালন করা হয় ইরাক, কুয়েত, মিশর, জর্ডান, ওমান, ফিলিস্তিন, লেবানন, কাতার ও সৌদী আরবে। তবে বিশ্বের অধিকাংশ দেশেই মা দিবস পালিত হয় মে মাসের ২য় রোববার। পাশ্চাত্যের ঠুনকো মায়া মমতার মতো আমরা মা-বাবার জন্য বৃদ্ধাশ্রম গড়তে চাই না। মাটির কুঁড়েঘরেই আমরা একত্রে বসবাস করতে চাই বৃদ্ধ মা-বাবাকে নিয়ে। কর্মের টানে আজ আমরা মাকে ছেড়ে অনেক দূরে বসবাস করছি যদিও। তারপরও স্মরণ করবো মাকে। সব কিছু প্রতারণা করলেও একমাত্র মা-ই পারেন না সন্তানের সাথে প্রতারণা করতে। বিশ্ব মা দিবসে আজ স্মরণ করছি সেই সব মায়েদের যারা ঘুমিয়ে আছেন দৃষ্টির আড়ালে। জীবিত এবং মৃত সব মায়ের প্রতিই আমাদের শ্রদ্ধা। মা দিবসের এই মুহূর্তে শুনি কে যেনো দু’হাত বাড়িয়ে ডাকছে তার সন্তানকে আয় বাবা, আমার কোলে আয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ