• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন |

আওয়ামী লীগে পরিবর্তনের পক্ষে মাঠের কর্মীরা

Awaসিসি ডেস্ক: পরিবর্তনের পক্ষে আওয়ামী লীগের কর্মীরা। মন্ত্রিসভা, দল ও সহযোগী সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ পদে এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে রাজনৈতিক নিয়োগে পরিবর্তন চান দলের নেতা-কর্মীরা। মাঠের নেতারা মন্ত্রিসভা ও রাজনৈতিক নিয়োগে দলের পরীক্ষিত ও ত্যাগীদের মূল্যায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করছেন। গত সাড়ে ছয় বছরে রাজনৈতিক নিয়োগ পাওয়া অনেকেই নিজের ভাগ্য গড়লেও দল ও সরকারকে কিছুই দিতে পারেননি বলে কর্মীদের অভিযোগ। তাদের বিশ্বাস, একমাত্র পরিবর্তনই পারে দলকে গতিশীল করতে। সর্বশেষ সিটি নির্বাচনে কর্মীরা ছিলেন ঐক্যবদ্ধ। নেতারা করেছেন নানামুখী রাজনীতি। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের অনেক নেতা এখন দলীয় কাজের চেয়ে ব্যবসায়িক কাজে গভীর মনোযোগী। রাজনীতি বিশেষজ্ঞদের মতে, আওয়ামী লীগের মতো ঐতিহ্যবাহী গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলটি এখন কেবলই কর্মীনির্ভর। সাংগঠনিক কাজে মন নেই নেতাদের। টানা দুবার ক্ষমতায় এলেও সাংগঠনিক স্থবিরতায় দলের কর্মকাণ্ড অনেকটাই দিবসনির্ভর। বার বার হাইকমান্ড নির্দেশ দিলেও সংগঠনকে গতিশীল করতে পারছেন না কেন্দ্রীয় নেতারা। তৃণমূলেও অনেকটা একই চিত্র। সাংগঠনিক স্থবিরতা আর কোন্দলে জর্জরিত ৬৬ বছরের ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দলটি। সূত্রমতে, দলের চেয়ে ব্যবসায় মনোযোগী হওয়ার কারণে ঘরে-বাইরে যে শক্ত অবস্থান নেওয়ার কথা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের, সেখানে তারা ব্যর্থ। এসব কারণে দলকে ঢেলে সাজানোর পক্ষে মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা। মাঠের নেতাদের মতে, ব্যবসা-বাণিজ্যে সদাব্যস্ত নেতাদের কেন্দ্রের গুরুত্বপূর্ণ পদে রাখাটা নিরর্থক। এ উপলব্ধি দলের শুভাকাঙ্ক্ষীদেরও। সূত্রমতে, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রে অবস্থানকারী সাংগঠনিক নেতাদের অনেকের ভূমিকাই বিতর্কিত। কেউ কেউ ব্যক্তিগত স্বার্থ উদ্ধারে ব্যবহার করছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। সরকারের একাধিক গোয়েন্দা রিপোর্টেও এসব তথ্য উঠে আসছে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছেও পাঠানো হচ্ছে গোয়েন্দা প্রতিবেদন। বিশেষজ্ঞদের মতে, ক্ষমতার চলতি মেয়াদে বিতর্কিতদের ‘দলের সম্পদ’ মনে করা বিপজ্জনক। দলে এখন যারা দায় হিসেবে চিহ্নিত, কর্মী ও জনবিচ্ছিন্ন তাদের দ্রুত বাদ দেওয়াই উত্তম। প্রায় সব জেলা-উপজেলায় সুবিধাবাদী একটি চক্র দলকে বিতর্কিত করছে নানাভাবে। সুবিধাবাদী ও হাইব্রিড নেতাদের কারণেই দলের সাংগঠনিক ভিত্তি ক্রমে দুর্বল হচ্ছে। কেন্দ্রের অনেক নেতাই চলছেন গা ভাসিয়ে। এ অবস্থা চলতে থাকলে সাংগঠনিক বিপর্যয় অত্যাসন্ন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নেতারা যেখানে নিষ্ক্রিয় ও ব্যবসায়িক কাজে ব্যস্ত সেই মুহূর্তে মাঠ পর্যায়ে ত্যাগী ও পরীক্ষিত কর্মীরাই দলকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। বিশ্লেষকদের মতে, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কাঠামোয় পরিবর্তন না আনলে দীর্ঘমেয়াদে সাংগঠনিক শক্তি ধরে রাখা দলের জন্য কঠিন হতে পারে। তাই এখনই দলের গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোয় পরিবর্তন আনা অত্যাবশ্যক। মাঠের কর্মীরাও মনে করেন আগামীতে বিরোধী রাজনৈতিক আন্দোলন মোকাবিলা এবং পরবর্তী জাতীয় নির্বাচনে দলের বিজয় নিশ্চিত করতে হলে সাংগঠনিক নেতৃত্বে পরিবর্তন আনতে হবে। এজন্য প্রয়োজনে দ্রুত কেন্দ্রীয় কাউন্সিল করে ত্যাগী ও মাঠের নেতাদের দিয়ে দল সাজাতে হবে। এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, পরিবর্তন যে কোনো ক্ষেত্রেই গতিশীলতা নিয়ে আসে। তবে সে পরিবর্তন জোরপূর্বক নয়, হতে হবে স্বতঃস্ফূর্ত। তিনি বলেন, কখনো বৈচিত্র্য আনতে কখনো সংকট নিরসনে কিংবা ইতিবাচকভাবে পরিস্থিতির সামাল দিতে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মতো রাজনৈতিক দলেও পরিবর্তন আনতে হয়। কিন্তু সে ক্ষেত্রে অবশ্যই একটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে, পরিবর্তন করতে গিয়ে যেন পাল্টা দ্বন্দ্বের সৃষ্টি না হয়। অর্থাৎ সেখানে যেন সবার স্বতঃস্ফূর্ততা থাকে। উৎস: বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ