• রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১২:০৭ অপরাহ্ন |

ডিসেম্বরে নতুন আঙ্গিকে বিপিএল

BCB-pic-BM-e1426778932124ঢাকা: ম্যাচ পাতানো কেলেঙ্কারিতে প্রায় দুই বছর ধরে বন্ধ আছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। তবে গত দুই আসরের ৭ ফ্র্যাঞ্চাইজি’র পরিবর্তে নতুন ক্লাবগুলোকে নিয়ে ধুম-ধাড়াক্কার এ আসরটি ডিসেম্বরে আবার মাঠে গড়ানোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিপিএলের আয়োজক কামিটি।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব আই এইচ মল্লিক জানান, ডিসেম্বরে বাংলাদেশের কোনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট না থাকায় ঐ সময়ে বিপিএলের তৃতীয় আসর আয়োজন করতে চান তারা।

যদিও প্রতিযোগিতাটির দিন তারিখ ঠিক না হলেও ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে বিপিএলের তৃতীয় আসর হবে বলে জানিয়েছেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান আফজালুর রহমান সিনহা। তবে এবারের আসরে আগের ৭ ফ্র্যাঞ্চাইজির না থাকার সম্ভাবনাই বেশি।এই ব্যাপারে এখনো কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেনি বিপিএলের কার্যকরী কমিটি।

বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের  চেয়ারম্যান আফজালুর রহমান সিনহা আরও বলেন, ‘আগের আসরে অংশগ্রহণকারী ৭ ফ্র্যাঞ্চাইজিরা যদি তাদের বকেয়া পরিশোধ না করে। তবে নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজির সন্ধান করা হবে।’

তবে এবার  ছোট আঙ্গিকে বিপিএল আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আয়োজকরা। তাই আগের সব বকেয়া পরিশোধ করা না হলে বাতিল হয়ে যেতে পারে টুর্নামেন্টের ৭ ফ্র্যাঞ্চাইজি। এ বিষয়ে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব আই এইচ মল্লিক বলেন, ‘আমরা তাদের অপেক্ষাতে নেই। এরই মধ্যে আমরা কাজ শুরু করে দিয়েছি। অনেক আগ্রহী ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে কথা হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আগের দুই আসরে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো তাদের চুক্তিমত কাজ করেনি। তাদেরকে একাধিকবার চিঠি দেওয়া স্বত্তেও তারা বকেয়া পরিশোধ করেনি। এছাড়া যেসব ঝামেলা সৃষ্টি হয়েছে সেগুলো সমাধানের জন্য বলা হলেও তারা কোনো কর্ণপাত করেনি। পরবর্তীতে তাদেরকে বাতিল করা হবে বলে চিঠিও দেওয়া হয়েছে।এখনও আমরা এর কোনো জবাব পাইনি।’

সাত ফ্র্যাঞ্চাইজির মধ্যে কি ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরর্স পড়ছে কিনা এ প্রশ্নে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরি সুজন বলেন, ‘ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরর্স থাকছে না, এটা প্রায় নিশ্চিত। কেননা, আইসিসি ও বিসিবির আইনি জটিলতায় তাদের নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফলে তাদের না থাকার সম্ভাবনা বেশি।’

তিনি আর যোগ করে বলেন, ‘তাছাড়া বাকি যে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো তাদের কমর্কাণ্ডের মাধ্যমে চুক্তি বাতিল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি করেছে। তবে তারা চাইলে তৃতীয় আসরের বিপিএলে অংশ নিতে পারবে। সেক্ষেত্রে তাদের সকল প্রকার বকেয়া পরিশোধসহ বিসিবির কাছে নতুন করে আপিল করতে হবে। পরে বোর্ড অনুমোদন দিলে তারা খেলতে পারবে।’

বিপিএল বন্ধ হওয়ার পর থেকে দেশে কোনো টি২০ টুর্নামেন্ট ছিল না। আর তাই টি২০ অনুশীলনের জন্য মাশরাফি, সাকিব, মুশফিকরা বরাবরই এই ছোট ফরম্যাটের টুর্নামেন্ট চালু করার কথা বলে আসছিলেন। আগামী বছরের ১১ মার্চ  থেকে ৩ এপ্রিল পর্যন্ত ভারতে হতে যাওয়া টি২০ বিশ্বকাপের প্রস্তুতির জন্য এবারের বিপিএল দারুণ সহায়ক হবে বলে মনে করছেন আয়োজকরা।

বিপিএলের প্রথম এবং দ্বিতীয় আসরের বকেয়া টাকা-পয়সা এখনও ঠিকমতো পাননি বলে দেশি ও বিদেশি খেলোয়াড়দের একাধিক অভিযোগ রয়েছে। তবে তৃতীয় আসরের আগে এগুলো মিটিয়ে ফেলা সম্ভব বলে মনে করছেন বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান ও বোর্ড পারিচালক জালাল উইনুস।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এরই মধ্যে বিদেশী ক্রিকেটারদের আমরা সকল প্রকার বকেয়া পরিশোধ করেছি। এরপরও যদি কেউ বৈধ দাবী করে বকেয়া টাকার ব্যাপারে সেক্ষেত্রে অবশ্যই পরিশোধ করা হবে। এছাড়া স্থানীয়  খেলোয়াড়দের বকেয়া পরিশোধ করার জন্য বোর্ড পরিচালক ও বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান নাঈমুর রহমান দুর্জয়কে দায়িত্ব  দেওয়া হয়েছে।’

উল্লেখ্য, ২০১২ সালে বসেছিল বিপিএলের প্রথম আসর। এরপর ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় আসর। ঐ আসরে ম্যাচ পাতানো কেলেঙ্কারিতে বন্ধ হয়ে যায় বিপিএল। প্রায় দুই বছর পর আবারও আলোর মুখ  দেখতে যাচ্ছে ঘরোয়া এ টি২০ আসরটি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ