• শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৪৯ পূর্বাহ্ন |

ছাত্রলীগ নেতা নিহত: ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা

indexটাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে আহত ছাত্রলীগ নেতা মোশাররফের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।
এর আগে দুপুরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করা হয়। কিন্তু সেখানে নেওয়ার পথে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। মোশাররফের পিতার নাম শহিদুল ইসলাম। বাড়ি ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার মোজাটি চরপাড়া গ্রামে।
এদিকে এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস পরীক্ষা বন্ধ ঘোষণা করেছে। ছাত্রদের আজ রাত সাড়ে ৮টার মধ্যে এবং ছাত্রীদের আগামীকাল সকাল ১০টার মধ্যে হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সন্ধ্যার পর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. খাদেমুল ইসলাম জানান, বুধবার দুপুর পৌনে ৩টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়ায় ছাত্রলীগের মনির গ্রুপ (জিসান গ্রুপ) ও মোশাররফ গ্রুপের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।
এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বাঁধে। পরে উভয় গ্রুপ দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে মনির গ্রুপের লোকজন বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধতত্ত্ব ও পুলিশ সায়েন্স বিভাগের (সিপিএস) মাস্টার্সের ছাত্র মোশাররফ, পদার্থবিজ্ঞানের দ্বিতীয় বর্ষের দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্র ফয়সাল ও বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ার বিভাগের ছাত্র বাঁধনকে কুপিয়ে আহত করে।
এ সময় ক্যাম্পাসে দুটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ক্যাম্পাসে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
আহতদের প্রথমে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তাদের মধ্যে মোশাররফ ও ফয়সালকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করা হয়।

প্রসঙ্গত, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ। তবে পরোক্ষভাবে ছাত্রসংগঠনের কার্যক্রম চলে আসছে। মোশাররফ নিজেকে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে দাবি করতো। এ নিয়েও ক্যাম্পাসে বিরোধ ছিল।

গত ৯ মে শনিবার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছিলো। পরে পুলিশ গিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি হল থেকে বিপুল সংখ্যক দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ